শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ,২০১৭

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ০৬:৪২:৪৩

সরকারি বিদ্যালয়ের স্বীকৃতি পেতে জালিয়াতি: দালাল চক্র হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা

সরকারি বিদ্যালয়ের স্বীকৃতি পেতে জালিয়াতি: দালাল চক্র হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা

বরগুনা প্রতিনিধি : বরগুনার আমতলীতে বিদ্যালয়কে সরকারি তালিকাভুক্তির জন্য জালিয়াতির মাধ্যমে ভুয়া পরীক্ষার্থী সাজিয়ে পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।  উপজেলার ২৩ টি নন রেজিষ্টার প্রাথমিক বিদ্যালয় নিয়ে চলছে বিতর্ক। কাগজপত্রে বিদ্যালয়গুলোর শক্ত অবস্থান দেখিয়ে জাতীয়করণের তালিকাভুক্ত করতে চেষ্টা চালালেও বাস্তবে বিদ্যালয়গুলোর বেশীরভাগেরই কোন অস্তিত্ব নাই। বিদ্যালয়গুলি  সরকারি হবে- এ আশ্বাস দিয়ে  শিক্ষকদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দালাল চক্র।

বিদ্যালয়গুলিতে শিক্ষার্থী না থাকলেও রোববার থেকে অনুষ্ঠিতব্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষায় পূর্ব খেকুয়ানী নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩ জন, মঠবাড়ীয়া বাজারখালী নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন,  উত্তর পূর্ব ডালাচারা মুক্তিযোদ্ধা শহীদ স্মৃতি নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩ জন, পূর্ব হরিদ্রা বাড়ীয়া নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫ জন, পশ্চিম গুলিশাখালী নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন, দক্ষিন ডালাচারা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন, পূর্ব খাকদান নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩ জন, কালিপুরা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫ জন, কৃষ্ণনগর নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫ জন, পশ্চিম চরখালী নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ২ জন, দক্ষিন গাজীপুর এস এম রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন, উত্তর পশ্চিম চিলা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ২ জন, চর রাওঘা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ২ জন, মধ্যে কুলাইরচর নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন, মধ্য পশ্চিম চিলা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ২ জন, উত্তর পশ্চিম সোনাউঠা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন, কাঠালিয়া নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩ জন, উত্তর পূর্ব লোদা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫ জন, পশ্চিম চন্দ্রা মাদবর বাড়ী নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন, উত্তর টিয়াখালী আদর্শ গুচ্ছ গ্রাম নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন, বলইবুনিয়া নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫ জন, দক্ষিন তারিকাটা নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। তবে এসব শিক্ষার্থী সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়গুলোর নয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে এসব বিদ্যালয় গুলির বেশির ভাগই কাগজ পত্রের মধ্যে সীমাবদ্ধ। দু একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঘর থাকলেও তাতে কোন দিন ক্লাশ হয়নি বলে স্থানীয়রা জানান। কাগজে কলমে থাকা এসব স্কুল সরকারি করনের কথা বলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দালাল চক্র। এই দালাল চক্রের নেতৃত্বে মহসীন মোল্লা, মো.মফিজ উদ্দিন  ও মোঃ কামাল মৃধা রয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গিয়াছে।

উত্তর পূর্ব ডালাচারা শহীদ স্মৃতি নন রেজিঃ বেসরকারী প্রাথমিক বিদালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.মফিজ উদ্দিন  জানান, বিদ্যালয়টি নতুন করতে যাচ্ছি। এখানে কিছু এদিক-সেদিক হয়েছে। বিষয়গুলো না দেখার জন্য অনুরোধ করেন তিনি।

আমতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মজিবুর রহমান বলেন, আমি আমতলীতে যোগদান করার পূর্বেই বিদ্যালয়গুলো ডি আর ভূক্ত হয়েছে। কেউ জালিয়াতি করে থাকলে ঘটনাটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো. বদরুদ্দোজা শুভ বলেন, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থানেওয়া হবে।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মোঃ মোখলেচুর রহমান বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আজকের প্রশ্ন

কিছু সহিংসতা ও অনিয়ম হলেও সামগ্রিকভাবে ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে—সিইসির এই বক্তব্যের সঙ্গে আপনি একমত?