মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৮, ০৫:৩৬:৩৬

বাংলাদেশে ২ কোটির বেশি মানুষ এখনও দরিদ্র

বাংলাদেশে ২ কোটির বেশি মানুষ এখনও দরিদ্র

ঢাকা : অর্থনীতিতে দ্রুত অগ্রগতির ফলে বাংলাদেশে দরিদ্রের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। ফলে ১৫ দশমিক ২০ শতাংশে নেমে এসেছে দেশের চরম দারিদ্র্যের হার। এখনও ২ কোটি ৪৪ লাখ মানুষ চরম দরিদ্র। তবে উচ্চ দারিদ্র্যের হার কমানোর এ অগ্রগতি অর্জনে বাংলাদেশের প্রশংসা করেছে বিশ্বব্যাংক।

বিশ্ব দারিদ্র্য নিরসন দিবস উপলক্ষে বুধবার রাতে প্রকাশিত ‘প্রভাটি অ্যান্ড শেয়ারড প্রসপারিটি ২০১৮ : পিসিং টুগেদার দ্য প্রভার্টি পাজল’ শীর্ষক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৫ বছরে বিশ্বে শত কোটি মানুষ দারিদ্র্য জয় করেছে। দারিদ্র্যের হার নেমে এসেছে ১০ শতাংশে। এ অবস্থায় কিছু অঞ্চলে দারিদ্র্য বৃদ্ধির প্রবণতা ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাব-সাহারান আফ্রিকা অঞ্চলের দেশগুলোতে দারিদ্র্যের হার বাড়ছে।

বিশ্বের ৭৩ কোটি ৫৯ লাখ মানুষ এখনও দরিদ্র্য সীমার নিচে। বিশ্বব্যাপী দারিদ্র্য বিমোচনের গতিও কমে এসেছে। এ পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) আওতায় ২০৩০ সালের মধ্যে অতি দারিদ্র্য দূর করার লক্ষ্য পূরণে সংশয় প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক।

এতে বলা হয়েছে, ২০১৫ সালে প্রথমবারের মতো বিশ্বব্যাপী দারিদ্র্যের হার ১০ শতাংশে নেমে এসেছে। চলতি বছরের মধ্যে দারিদ্র্যের হার ৮ দশমিক ৬০ শতাংশে নেমে আসবে বলে ধারণা দেয়া হয়েছিল সংস্থার পক্ষ থেকে।

তবে এ লক্ষ্য পূরণ হচ্ছে না বলে প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

তবে ২০২০ সালের মধ্যে দারিদ্র্যের হার ৯ শতাংশে নেমে আসবে বলে ধারণা দেয়া হয়েছে। দারিদ্র্য হ্রাসের গতি কমে আসায় উদ্বেগও প্রকাশ করা হয়েছে।

বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম এক বিবৃতিতে বলেছেন, বিশ্বে এখন চরম দরিদ্র মানুষের সংখ্যা অতীতের যে কোনো সময়ের চাইতে কম।

বর্তমান মানব প্রজন্মের এটা অনেক বড় অর্জন। ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্র্য দূর করতে হলে অনেক বেশি বিনিয়োগ করতে হবে। বিনিয়োগে মানব সম্পদ উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। এখনও দারিদ্র্য সীমায় থাকা মানুষের উন্নয়নে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি নিশ্চিতে পদক্ষেপ নিতে হবে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, বিশ্বের অর্ধেকের বেশি দেশে দারিদ্র্যের হার এখন ৩ শতাংশের কম। ১৯৯০ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর দারিদ্র্যের হার ১ শতাংশ হারে কমেছে। ফলে ৩৬ শতাংশ থেকে অতি দরিদ্রের হার নেমেছে ১০ শতাংশে।

তবে ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ২ বছরে দারিদ্র্য কমেছে মাত্র ১ শতাংশ। মূলত দক্ষিণ এশিয়ায় বিপুলসংখ্যক মানুষ দারিদ্র্য সীমা অতিক্রম করায় বৈশ্বিক দারিদ্র্য হার কমছে।

এ সময়ে দক্ষিণ এশিয়ায় দরিদ্র মানুষের সংখ্যা ২৭ কোটি ৪৫ লাখ থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ২১ কোটি ৬৪ লাখে। ১৬ দশমিক ২০ শতাংশ থেকে কমে অতি দারিদ্র্যের হার দাঁড়িয়েছে ১২ দশমিক ৪০ শতাংশে। অর্থাৎ দক্ষিণ এশিয়ায় দুই বছরে চরম দারিদ্র্য জয় করেছে ৫ কোটি ৮১ লাখ মানুষ। এর ৮৫ শতাংশের বেশি দক্ষিণ এশিয়ায়।

সূত্র: ইন্টারনেট

এই বিভাগের আরও খবর

  চট্টগ্রামে পুলিশের সঙ্গে গুলিবিনিময়, ১৪ মামলার আসামি নিহত

  দেশে রাজনৈতিক সঙ্কট বিরাজ করছে, বিরোধী মনোভাবকে সহ্য করতে হবে: আকবর আলি খান

  পরীক্ষায় অনৈতিক সুবিধা না দেওয়ায় শিক্ষক লাঞ্চিত

  মাওয়ায় কাল বসবে ১১তম স্প্যান

  উজিরপুরে লঞ্চ-পল্টুনের চাপায় ডাব বিক্রেতার মৃত্যু, আটক-২

  রোহিঙ্গারা যেন ভোটার না হয় : সর্বোচ্চ সতর্কতার নির্দেশনা ইসির

  ব্রুনাই-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক বৈঠক, ৬ সমঝোতা সই

  ফের বাংলাদেশিকে হত্যা করলো বিএসএফ

  রোহিঙ্গাদের ভোটার না করার ব্যাপারে ইসির সতর্কতা

  রূপগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে নিহত ২, আহত ৭

  ময়মনসিংহে ছাত্রলীগ-যুবলীগের সংঘর্ষে পাঁচ গুলিবিদ্ধসহ আহত ১০

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?