বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯, ০৬:২৮:২১

ধর্ষণের মামলা করায় অপহরণ শেষে হত্যা

ধর্ষণের মামলা করায় অপহরণ শেষে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক : ধর্ষণের মামলা করায় অপহরণ শেষে ধর্ষিতাকে হত্যা করে গুম করার অভিযোগে ৩০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ১১ ফেব্রুয়ারী সোমবার জেলা জজ আবু শামীম আজাদ বিচারাধীন বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে নিহত যুবতীর বাবা মানিক গাজী মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম জাঙ্গালিয়া এলাকার কেবলু আকনের ছেলে ফয়সাল আকন,মকবুল বেপারী, হেলাল গাজী, সোহরাব হাওলাদার, বাহাদুর হাওলাদার লেঙ্গুটিয়া এলাকার মাইন উদ্দিন মাঝি,কালাম মাঝি, মিজান মাঝি, ফয়সাল হাওলাদার, আসাদ হাওলাদার, ইব্রাহিম মাঝি, রিয়াদ, রফিক,  রাশেদ ও হাসিফ মাঝি সহ অজ্ঞাত আরও ১০ থেকে ১৫ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।

বাদী অভিযোগে ট্রাইব্যুনালে বলেন, তার মৃত্যু কন্যাকে ফুসলাইয়া বিয়ের প্রলোভন দেখাইয়া ২০১৭ সালে ধর্ষণ করে। এতে ধর্ষিতা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে বাদী ফয়সালের পরিবারকে জানায়।ফয়সালের পরিবার ধর্ষিতাকে ফয়সালের সাথে বিয়ে দেয়ার কথা স্বীকার করে। ফয়সাল ধর্ষিতাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। ২০১৭ সালের ২০ ডিসেম্বর ধর্ষিতার গর্ভ নষ্ট করে ফেলে।

বিয়ের দাবী জানালে অস্বীকার করে। ধর্ষিতা উপান্তর না পেয়ে ওই ট্রাইব্যুনালে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং এমপি ৬০/১৮।মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য রয়েছে। ডাক্তারী পরীক্ষা করা হলে ধর্ষিতার ধর্ষণের প্রমাণ পায় ডাক্তার। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাদী ও তার মেয়েকে খুন জখমের হুমকি দেয় অভিযুক্তরা।

এতে গত ৬ ফেব্রুয়ারী ধর্ষিতা বাদী হয়ে এক্সকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত অভিযুক্তদের শোকজ দিলে তারা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।গত ৯ ফেব্রুয়ারী রাতে ধর্ষিতাকে অপহরণ করে নিয়ে হত্যা শেষে তিন কিলোমিটার দূরে জঙ্গলে লাশ গুম করে অভিযুক্তরা সরে যায়।লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে বাদী গিয়ে নিজ মেয়ের লাশ দেখতে পেয়ে থানা পুলিশকে খবর দেয়।

মেহেন্দীগঞ্জ থানা পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত করায়। এধরণের অভিযোগ দেয়া হলে ট্রাইব্যুনাল মেহেন্দীগঞ্জ থানা পুলিশকে এজহার করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আদেশ দেন বলে আদালত সূত্র জানায়।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?