শনিবার, ২৫ মে ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ০৫ মে, ২০১৯, ০৫:৫৩:০১

আইনজীবী পলাশকে কারাগারে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ

আইনজীবী পলাশকে কারাগারে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ

ঢাকা : বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের তালিকাভুক্ত আইনজীবী পলাশ কুমার রায়কে পঞ্চগড় জেলা কারাগারে (কারা হেফাজতে) থাকা অবস্থায় পরিকল্পিতভাবে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন এ অভিযোগ করেন। একই সঙ্গে তিনি ওই ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানান।

আজ রোববার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ মার্চ প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তির অভিযোগে রাজিব রানা নামে স্থানীয় এক যুবক আইনজীবী পলাশের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা করেন। ওই দিনই আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

গত ২৬ এপ্রিল বিকেলে অপর এক মামলায় তাকে ঢাকায় পাঠানোর কথা ছিল। কিন্তু সকালে হঠাৎ হাসপাতালের বাইরে থাকা একটি টয়লেট থেকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় দৌঁড়ে বের হন পলাশ। এ সময় কারারক্ষীরা তাকে উদ্ধার করে আগুন নেভান এবং তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আগুনে তার শরীরের ৪৭ শতাংশ পুড়ে যায়। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পরদিনই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। গত ৩০ এপ্রিল দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পলাশের মৃত্যু হয়।

পলাশের মৃত্যু প্রসঙ্গে মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, মা মিরা রানি রায় তার ছেলে আইনজীবী পলাশ কুমার রায়ের অগ্নিদগ্ধের ঘটনায় কারা কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছেন। এছাড়া অগ্নিদগ্ধ হওয়ার পর খবর না দেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। ওই ঘটনায় পলাশের মা সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেন। মৃত্যুর আগে পলাশ তার মায়ের কাছে সুপরিকল্পিতভাবে হত্যার অভিযোগ করে গেছেন।

পলাশ হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটনে বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি এবং ওই ঘটনায় কারা কর্তৃপক্ষের কোনো যোগসাজশ আছে কিনা- তা খতিয়ে দেখতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক।

গত ২৫ মার্চ দুপুরে স্থানীয় কোহিনুর কেমিক্যাল কোম্পানি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে পরিবারের লোকজন নিয়ে অনশন করেন পলাশ কুমার রায়। পরে সেখান থেকে উঠে তারা জেলা শহরের শের-ই-বাংলা পার্ক সংলগ্ন মহাসড়কে এসে মানববন্ধন শুরু করেন।

একপর্যায়ে রাস্তা বন্ধ করে হ্যান্ডমাইক দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে কটূক্তি করেন পলাশ। এ সময় প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনী সম্পর্কেও অশালীন বক্তব্য দেন তিনি। ক্ষুব্ধ হয়ে স্থানীয়রা তাকে সদর থানা পুলিশের হাতে তুলে দেন। ওইদিন বিকেলে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে স্থানীয় রাজিব রানা নামের এক যুবক পলাশের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা করেন। ওই দিনই আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

  ভারত অনিষ্ট করবে বলে মনে করি না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  ১৪ বাংলাদেশীসহ ভূমধ্যসাগরে উদ্ধার ২৯০

  বেতন-বোনাসের দাবিতে রাজধানীতে পোশাকশ্রমিকদের বিক্ষোভ

  কুমুদিনী হাসপাতাল খেয়াঘাটে বাঁশের সাঁকো ভেঙ্গে জনদুর্ভোগ

  কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আসামি নিহত

  কাজ না করে বেতন, ১৬৭ চিকিৎসকের চাকরিচ্যুতির আশঙ্কা

  নরেন্দ্র মোদীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

  রাষ্ট্র মেরামতের লক্ষ্যে প্রয়োজন রাজনৈতিক সংস্কার: সুজন

  রাষ্ট্র মেরামতের লক্ষ্যে প্রয়োজন রাজনৈতিক সংস্কার: সুজন

  রাজীবের মৃত্যুর ক্ষতিপূরণ মামলার রায় ২০ জুন

  ‘বাড়িতে গিয়ে রান্না করেন’, খাদ্য কর্তৃপক্ষকে হাইকোর্ট

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?