সোমবার, ১৭ জুন ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০১৯, ০২:১৭:৪৭

আদালতে যাওয়ার পথে হত্যা মামলার সাক্ষীর হাত কেটে নিলো প্রতিপক্ষরা

আদালতে যাওয়ার পথে হত্যা মামলার সাক্ষীর হাত কেটে নিলো প্রতিপক্ষরা

নাটোর : নাটোরের গুরুদাসপুরের স্বামী পরিত্যক্ত নারী সফুরা খাতুন হত্যা মামলার স্বাক্ষী জালাল উদ্দিনকে আদালতে সাক্ষ্য দিতে যাওয়ার পথে কুপিয়ে ডান হাত কেটে নিয়েছে প্রতিপক্ষরা। এসময় পায়ের রগ ও বাম হাতটিও কুপিয়ে জখম করা হয়েছে।

আহত অবস্থায় প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। আহত জালাল উদ্দিন উপজেলার যোগিন্দ্র নগর গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাহারুল ইসলাম, স্থানীয়রা ও আহতের স্বজনরা জানান, ২০১৩ সালের ১৩ মে উপজেলার যোগিন্দ্র নগর গ্রামের স্বামী পরিত্যক্ত একটি নারীকে শারীরিক নির্যাতনের পর হত্যা করে নদীতে ফেলে দেয় সন্ত্রাসীরা।

এ ঘটনায় নিহত সফুরার ভাই বাদী হয়ে সাইফুল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম রফিকুল ইসলাম সহ আরো কয়েকজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলায় জালাল উদ্দিনকে প্রধান স্বাক্ষী করা হয়। সেই সফুরা হত্যা মামলায় আজ আদালতে স্বাক্ষীর হাজিরার নির্ধারিত দিন ছিল।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে জালাল উদ্দিন স্বাক্ষী দিতে আদালতে যাওয়ার জন্য বাড়ী থেকে বের হলে পথে যোগিন্দ্র নগর বাজারের কাছে প্রতিপক্ষরা ধারালো অস্ত্র নিয়ে তার ওপর হামলা করে। এ সময় প্রতিপক্ষরা জালাল উদ্দিনের ডান হাত কেটে নেয় এবং বাম হাত সহ পা কেটে জখম করে।

পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। খরব পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?