শনিবার, ৩০ মে ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ০১:০৮:৩৭

ফিটনেস নবায়ন নিয়ে বিআরটিএ'র প্রতিবেদন হাইকোর্টে

ফিটনেস নবায়ন নিয়ে বিআরটিএ'র প্রতিবেদন হাইকোর্টে

ঢাকা : হাইকোর্টের বেঁধে দেওয়া দুই মাস সময়ের মধ্যে ঢাকাসহ সারা দেশে ফিটনেস নবায়ন না করা প্রায় পাঁচ লাখ গাড়ির মধ্যে কেবল ৮৯ হাজার ২৬৯ গাড়ি ফিটনেস নবায়ন করেছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ রোড টান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)।

আজ বুধবার (২৩ অক্টোবর) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ প্রতিবেদন জমা দেয় সংস্থাটি।

গত ২৩ জুলাই এক আদেশে ঢাকাসহ সারা দেশে ফিটনেস নবায়ন না করা গাড়িগুলোর জন্য দুই মাসের মধ্যে ফিটনেস নবায়ন করতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ১ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) থেকে ৩০ সেপ্টেম্বরের (সোমবার) মধ্যে এটি সম্পন্ন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এর আগে আদালতে দাখিল করা বিআরটিএর প্রতিবেদনে বলা হয়, ঢাকাসহ সারাদেশে লাইসেন্স নিয়ে ফিটনেস নবায়ন না করা গাড়ির সংখ্যা ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৩২০টি। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে ২ লাখ ৬১ হাজার ১১৩, চট্টগ্রাম বিভাগে ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৮৮, রাজশাহী বিভাগে ২৬ হাজার ২৪০, রংপুর বিভাগে ৬ হাজার ৫৬৮, খুলনা বিভাগে ১৫ হাজার ৬৬৮, সিলেট বিভাগে ৪৪ হাজার ৮০৫ এবং বরিশাল বিভাগে ৫ হাজার ৩৩৮টি গাড়ি মেয়াদোত্তীর্ণ ও ফিটনেসবিহীন রয়েছে।

গত ২৪ জুন আদালত ঢাকাসহ সারা দেশে ফিটনেসবিহীন তথ্য জানতে চেয়েছিলেন। সে অনুসারে বিআরটিএ হাইকোর্টে প্রতিবেদন। এর আগে গাড়ি ও চালকের লাইসেন্স এবং ফিটনেসবিহীন গাড়ি সংক্রান্ত দৈনিক ডেইলি স্টার গত ২৩ মার্চ একটি প্রকাশিত প্রতিবেদন আদালতের নজরের আনেন অ্যাডভোকেট সৈয়দ মামুন মাহবুব। এরপর ওইদিন আদালত রুলসহ আদেশ দেন।

রুলে ফিটনেসবিহীন গাড়ি, রেজিস্ট্রেশনবিহীন গাড়ি ও ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোর বিষয়ে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, পাশাপাশি সংবিধানের ৩২ ধারার আলোকে জীবন বাঁচার অধিকার বাস্তবায়নে কেন মোটর ভেহিক্যাল আইন ১৯৮৩ এর বিধানগুলো সঠিকভাবে পালনের জন্য কেন নির্দেশনা দেওয়া হবে না- তা জানতে চান আদালত।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির নেতারা আইন না বুঝেই মন্তব্য করে আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে আপনি কি একমত?