মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০৮ নভেম্বর, ২০১৯, ০৮:৩৩:১৪

মোংলা-পায়রায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত, লঞ্চ চলাচল বন্ধ, ২২ মন্ত্রণালয়ে কর্মরতদের ছুটি বাতিল

মোংলা-পায়রায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত, লঞ্চ চলাচল বন্ধ, ২২ মন্ত্রণালয়ে কর্মরতদের ছুটি বাতিল

ঢাকা: ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরে ৭ নম্বর এবং চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। তবে কক্সবাজারে ৪ নম্বর সংকেত অব্যাহত রয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের পক্ষ থেকে আজ সন্ধ্যা সাতটায় এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়েছে। শনিবার (০৯ নভেম্বর) সন্ধ্যা থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত যেকোনো সময় ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আঘাত হানতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে বাংলাদেশের সাতটি জেলাকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। জেলাগুলো হলো- খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, বরগুনা, পিরোজপুর, পটুয়াখালী ও ভোলা।

২২ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবেলায় ২২টি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ জেলা-উপজেলা পর্যায়ের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করেছে সরকার।

শুক্রবার বিকালে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ড. এনামুর রহমান। এর আগে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর প্রভাব মোকাবেলায় মনিটরিং সেলের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে প্রতিমন্ত্রী বলেন, শনিবার সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত যে কোনো সময় ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আঘাত হানতে পারে। তাই এর মোকাবেলায় সরকার সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে।

বরিশালের অভ্যন্তরীণ রুটের লঞ্চ চলাচল বন্ধ
ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে বরিশালের অভ্যন্তরীণ রুটের সব ধরনের লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে বিআইডব্লিউটিএ। শুক্রবার সন্ধ্যায় এই ঘোষণা দেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে বরিশাল নদী বন্দর কর্মকর্তা আজমল হুদা মিঠু সরকার জানান, পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত অভ্যন্তরীণ রুটের সব লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে।

‘অতি ভয়ঙ্কর’ রূপে এগোচ্ছে বুলবুল
ভয়ঙ্কর থেকে অতি ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হল ‘বুলবুল’। একই সঙ্গে চলে এল পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উপকূলের আরও কাছে। বৃহস্পতিবার রাতেই গভীর নিম্নচাপ থেকে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় (সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম)-এ পরিণত হয়েছিল ‘বুলবুল’। এখন সেটি ‘ভেরি সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম’ বা অতি ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে বলে জানালেন আবহবিদরা।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, শুক্রবার দুপুর তিনটে নাগাদ ঘূর্ণিঝড়ের অবস্থান পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ থেকে প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার দূরে। ওড়িশার পারাদ্বীপ থেকে তার দূরত্ব ৩১০ কিলোমিটার এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়া থেকে ঘূর্ণিঝড় রয়েছে প্রায় ৫৫০ কিলোমিটার দূরে। আবহাওয়া বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, বঙ্গোপসাগরে বুলবুলের ঘূর্ণনের গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার। কলকাতা থেকে ‘বুলবুল’-এর দূরত্ব ৫৫০ কিলোমিটার।

ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর প্রভাব পড়তে শুরু করল কলকাতা ও উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে। শুক্রবার সকাল থেকেই কলকাতা ও দুই ২৪ পরগনায় শুরু হয়েছে ঝিরঝিরে বৃষ্টি। সঙ্গে মেঘলা আকাশ। উপকূলীয় এলাকায় বইছে দমকা হাওয়া।

আবহাওয়া দফতরের মতে, আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এ রাজ্যের সাগর দ্বীপ এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়ার মধ্যে তা আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু ঠিক কোন জায়গায় আছড়ে পড়বে বুলবুল, সে ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত হতে পারছেন না আবহবিদরা। কারণ, মাঝেমধ্যেই গতিপথ পরিবর্তন হচ্ছে বুলবুলের। তবে আবহাওয়াবিদদের অনুমান, সুন্দরবনের উপর দিয়ে এই ঘূর্ণিঝড় বয়ে যাবে। সাগরদ্বীপ থেকে বাংলাদেশের খেপুপাড়া— এর মধ্যেই কোনও একটি জায়গায় স্থলভাগে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বুলবুলের। তবে অভিমুখ এখনও পর্যন্ত খেপুপাড়ার দিকেই ঝুঁকে রয়েছে বলে আবহাওয়া বিজ্ঞানীদের মত।

আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, শনিবার সকাল থেকে ঝোড়ো হাওয়া বইতে শুরু করবে। ধীরে ধীরে সেই গতিবেগ আরও বাড়বে। আর বুলবুল যখন আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে স্থলভাগে আছড়ে পড়বে, তখন তার গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটারের আশেপাশে। রবিবার সকাল থেকে ৮০ থেকে ৯০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইবে।

বুলবুল এখনও সমুদ্রে থাকলেও স্থলভাগে তার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। শুক্রবার সকাল থেকেই বাংলাদেশের ঢাকাসহ উপকূলের জেলাগুলো ও কলকাতা-সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের আকাশ মেঘলা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই শুরু হয়েছে ঝিরঝিরে বৃষ্টি। একই পরিস্থিতি দুই ২৪ পরগনাতেও। এই পরিস্থিতির ক্রমেই আরও অবনতি হবে বলেই পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতরের।

উপকূলবর্তী এলাকায় বুলবুলের প্রভাব আরও বেশি হবে। ইতিমধ্যেই দমকা হাওয়া বইতে শুরু করেছে। বেড়েছে সমুদ্রে ঢেউয়ের উচ্চতাও। শনিবার সকাল থেকে উপকূলে হাওয়ার গতিবেগ থাকতে পারে ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার। দিঘা, শঙ্করপুর, মন্দারমণি এবং বকখালির মতো পর্যটনকেন্দ্রগুলিতে সমুদ্রে নামতে বারণ করা হয়েছে। 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?