মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০১৮, ১০:৩৬:৫৬

সম্পর্কটা সুন্দরভাবে টিকিয়ে রাখতে

সম্পর্কটা সুন্দরভাবে টিকিয়ে রাখতে

লাইফস্টাইল ডেস্ক : বিয়ের পর অনেক সময় পার হয়ে গেলে সবকিছু কেমন যেন ফিকে হয়ে যায়। তাই ভালবাসার দুনিয়ায় রঙ মাখাতে আর সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখতে কিছু গোপন সূত্র প্রয়োগ করলেই জীবন হবে সুন্দর। আজীবনই থাকবে সুন্দর ও বিশ্বস্ত। আসুন জেনে নেই ১৫টি জাদুকরি টিপস যেগুলো সম্পর্ক সুন্দর রাখবে-

১। যে যার কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে যান সকাল সকাল। রাতে আবার দেখা। সারাটা দিনের সব বিষয় আশয় কি খেল, কেমন কাটল, কি কি করল্লেন আপনার সঙ্গী তা তাকে জিজ্ঞেস করুন। তাকে বুঝান সে আপনার জন্য কতকটুকু গুরুত্বপূর্ণ।

২। প্রতিটি সম্পর্কেই দ্বন্দ-কলহ থাকবেই এটাই স্বাভাবিক। ঝগড়া-ঝাঁটি সম্পর্কের ক্ষেত্রে খুব স্বাভাবিক একটা বিষয়। তবে চেষ্টা করবেন, দু-জনে একসঙ্গে মাথা গরম না করতে। একে অতি গুরুত্ব দিয়ে আবেগঘন পর্যায়ে যেতে দিবেন না।

৩। আপনার স্বামী বা স্ত্রী যে ধরনের সিনেমা দেখে বা ছুটির দিনে তাঁর পছন্দ অ্যামিউসমেন্ট পার্ক কিন্তু আপনার উল্টো, তাও ইচ্ছে না হলেও মাঝেমধ্যে তাকে নিয়ে বেড়িয়ে আসুন। উনি আপনাকে পাশে পেতে চাইছেন, এই বিষয়টা আপনি নিশ্চয় হারাতে চান না। তবে হ্যাঁ, মাঝেমধ্যে আপনার মতও প্রাধান্য পাবে বৈকি।

৪। জীবন থেকে সারপ্রাইজ হারিয়ে যেতে দেবেন না। হঠাৎ রাতে মাঝে মাঝে তাঁর পছন্দের ডিশ খাইয়ে অবাক করে দিন। দেখবেন জীবন আবার নতুন ছন্দে বইবে।

৫। অফিস যাওয়া এবং অফিস থেকে ফিরে আসার দুই সময়েই একটু রোমান্টিক হোন। তাকে জড়িয়ে ধরুন, কপোলে চুমু দিন। তাকে ভালবাসার প্রকাশ করুন।

৬। ছুটির দিনে দুজনে একান্তে বেরিয়ে যান। ঘুরে আসুন চাইলে কিছুটা পুরনো মধুর স্মৃতি মনে করুন। পছন্দের ডিশ খান, প্রিয় জায়গায় যান।

৭। আপনার স্বামী বা স্ত্রীর পরিবারকে নিজের পরিবারের মতো গুরুত্ব দিন। তাঁর বাবা-মার খোঁজখবর নিন। আপনার সঙ্গীরও ভালো লাগবে।

৮। ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ কিংবা ‘I Love You’ বলতে ভুলবেন না। এই তিনটি শব্দ বরাবর ম্যাজিকের মতো কাজ করে।

৯। আপনার স্বামী বা স্ত্রী অসুস্থ হলে তাঁর খেয়াল রাখুন। অসুখ হলে সাধারণত মানুষ মানসিক ভাবেও দুর্বল হয়ে পড়েন। সেই সময় তাঁর যত্ন নিন, আপনার প্রতি তাঁর আস্থা বাড়বে।

১০। আপনার সঙ্গী অফিসে রয়েছেন। এই সময় মোটেই তাঁকে ঘরের কোনও সমস্যার কথা বলে বিরক্ত করবেন না। কাজের সময় তাঁকে কাজ করতে দিন। চেষ্টা করুন নিজের সমস্যার সমাধান করার।

১১। আপনার স্বামী বা স্ত্রীকে নিয়ে অন্যের সামনে ঠাট্টা-ইয়ার্কি করবেন না। উনি আপনার জীবনসঙ্গী, তাকে ভালবাসা সম্মান দিন। তার সম্মান মানেই আপনার সম্মান।

১২। সময়ের কাজ সময়ে শেষ করুন। কোথাও একসঙ্গে যাওয়ার প্ল্যান থাকলে সময়ের আগেই তৈরি হয়ে নিন। দীর্ঘসময় অপেক্ষা করতে কারোরই ভালো লাগে না।

১৩। বিকেলে স্কুলের বন্ধুর সঙ্গে দেখা করার প্ল্যান আছে অথবা কারো সাথে কোথাও ঘুরতে যাবেন? সঙ্গীকে জানিয়ে যান। অযথা ভুল বোঝাবুঝির কি দরকার।

১৪। ফোন করে খবর নিন। মেসেজ করলেও জেনে নিন, কী হয়েছে। তিনি বুঝবেন যে আপনার কাছে তাঁর গুরুত্ব কতটা। তাকে তার প্রতি আপনার টান কতটুকু তা বোঝান।

১৫। বেড়াতে গিয়ে ঝগড়া করবেন না। অফিসের ব্যস্ত সময়ের ফাঁকে বেড়াতে যাওয়া এমনিতেই প্রায় হয় না। সেখানে গিয়ে ঝগড়াঝাঁটি করে ভালো সময়টা নষ্ট করলে পরে পস্তাতে হবে।

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?