শুক্রবার, ০৭ আগস্ট ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১১:২৬:৩২

নিজের অজান্তেই দাওয়াত দিচ্ছেন রোগব্যাধি?

নিজের অজান্তেই দাওয়াত দিচ্ছেন রোগব্যাধি?

আমরা প্রায়ই ভাবি বসে থাকা মানেই শান্তি। কিন্তু আমাদের অজান্তেই এই বসে থাকার সুবাদে শরীরে বাসা বাঁধে নানারকম রোগব্যাধি। দেখা দেয় উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, কোমর ব্যথা, মেরুদন্ডে ব্যথা ইত্যাদি। পেশার খাতিরে অনেককেই দীর্ঘসময় বসে কাজ করতে হয়। বিশেষ করে যারা একটানা ছয়ঘন্টারও বেশি সময় ধরে বসে থাকেন তাদের ক্ষেত্রে সমস্যাগুলো বেশি দেখা দেয়। তবে সব সমস্যারই সমাধান আছে। আসুন দেখে নিই কিছু সমাধান।

দিনের প্রথম খাবারঃ আমরা অনেকেই তেল চুপচুপে লুচি বা পরোটা খেতে ভালোবাসি। আহা, তেল চুঁইয়ে পড়ছে দেখতে কত ভালো লাগে! তাহলে জেনে নিন এই তেলই আপনাকে ঠেলে দিচ্ছে অকাল মৃত্যুর দিকে, ডেকে আনছে হৃদরোগ, কোলেস্টেরল ও ব্লাডপ্রেশার। প্রাকৃতিক ফল-মূল, আধসেদ্ধ ডিম, ব্রেড, সসেজ খান দিনের শুরুতে। যেটাই খান না কেন পেটভরে খাবেন, কারণ এটাই দিনের একমাত্র ভারি খাবার হবে।

নড়াচড়া করুনঃ কাজ করতে করতে একটু জায়গা থেকে নড়াচড়া করুন। এক ঘন্টা পরপর চেয়ার থেকে উঠে দাঁড়ান, দু’মিনিট হাঁটুন। সিঁড়ির বদলে লিফট ব্যবহার করুন।

পানীয়ঃ চেষ্টা করুন দিনে অন্তত পাঁচ লিটার পানি পান করতে। কোল্ড ড্রিংকস একদম এড়িয়ে চলুন। চা-কফির বদলে গ্রিন-টি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

রাতের খাবার: রাত আটটা-সাড়ে আটটার মধ্যে রাতের খাবার খান। বাকি সময় কাজ করুন। কিন্তু খাবার কিছুতেই সাড়ে আটটার পরে নয়। অনেকেই ভাবেন, তাড়াতাড়ি খেলে তো ক্ষুধা পাবে! নিয়ম মেনে দু’তিন ঘণ্টা পর পর খেলে ক্ষুধা পাবে না। ঘুমানোর আগে এক গ্লাস চিনি ছাড়া দুধ খান। অ্যাসিডিটির সমস্যা থাকলে ঠান্ডা দুধ খান। দুধ সহ্য না হলে পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন।

ঘুমে কোনো অবহেলা নয়: সারাদিনের ব্যস্ততার শেষে নিজের খেয়াল, সন্তানের পড়াশোনা, বাড়ির কাজ সামলে ঘুমাতে দেরি হয়। হওয়াটাই স্বাভাবিক। তবে যখনই ঘুমাতে যান অন্তত ৬-৭ ঘণ্টা নিশ্ছিদ্র ঘুম দরকার। ঘুমের ঘাটতি হলে ওবেসিটি প্রতিরোধ করা যাবে না।

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির নেতারা আইন না বুঝেই মন্তব্য করে আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে আপনি কি একমত?