মঙ্গলবার, ০২ জুন ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০৮ মে, ২০২০, ০৫:৫৭:৪৫

যে দেশে ইফতারের ১ ঘণ্টা পরই সেহরি

যে দেশে ইফতারের ১ ঘণ্টা পরই সেহরি

ধর্ম: বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে পবিত্র সিয়াম সাধনার মাস মাহে রমজান। তবে সময় ও দেশের দূরত্বের কারণে বিভিন্ন দেশে রোজার সময়ও হয় আলাদা। এই যেমন ফিনল্যান্ডের মুসলিমদের প্রায় ২৩ ঘণ্টা রোজা রাখতে হয়। বিশেষত ফিনল্যান্ডের উত্তর দিকের বৃহত্তম শহর উলু। যে শহরে প্রায় ২২ ঘণ্টা ৫৩ মিনিট রোজা রাখতে হয়। যেখানে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম রোজা হয়।

গ্রিনল্যান্ড, নরওয়েতেও প্রায় একই অবস্থায়। কারণ ওইসব দেশগুলোতে সূর্য বলা চলে অস্তই যায় না। আইসল্যান্ড, ডেনমার্ক কিংবা সুইডেনেও গড়ে ১৯ থেকে ২০ ঘণ্টা রোজা রাখতে হয়। ওইসব দেশে রাত আসে কিছু সময়ের জন্য।

কিন্তু আর্জেন্টিনায় চিত্রটা পুরোপুরি উল্টো। লিওনেল মেসিদের দেশে রোজাদারদের মাত্র ১১ ঘণ্টা রোজা রাখলেই চলে। কিংবা সবচেয়ে ছোট রোজার দেশগুলোতে উপরের সারিতে আছে চিলি, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, আর্জেন্টিনা ও দক্ষিণ আফ্রিকার নাম।

চলতি বছরের এক জরিপে দেখা গেছে, বিশ্বে সবচেয়ে কম সময় রোজা রাখেন আর্জেন্টিনার মুসলমানরাই। সে দেশে সেহরি থেকে ইফতার পর্যন্ত মাঝের সময় মাত্র ১১ ঘণ্টা।

শুধু আর্জেন্টিনাই নয়, লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে এ বছর ব্রাজিলে ১২ ঘণ্টা ৫ মিনিট, চিলিতে ১১ ঘণ্টা ৫ মিনিট, আর্জেন্টিনায় ১১ ঘণ্টা ৫ মিনিট রোজা রাখতে হচ্ছে। এছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকায় ১২ ঘণ্টা, অস্ট্রেলিয়ায় ১১ ঘণ্টা ৫ মিনিট, নিউজিল্যান্ডে ১১ ঘণ্টা ৫ মিনিট, মালয়েশিয়ায় ১৩ ঘণ্টা ৫ মিনিট রোজা রাখছেন মুসল্লিরা।  

এবছর সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে প্রায় ১৫ ঘণ্টা রোজা রাখতে হচ্ছে। ফিলিস্তিনের জেরুজালেমে রোজা হবে ১৫ ঘণ্টা ৫ মিনিট, তুরস্কের আঙ্কারায় ১৬ ঘণ্টা ৫ মিনিট, ইরানে ১৬ ঘণ্টা, কাতারে ১৫ ঘণ্টা ও সৌদি আরবে ১৪ ঘণ্টা ৩০ মিনিট রোজা রাখা হচ্ছে।

চলতি বছর যুক্তরাজ্যের লন্ডনে ১৮ ঘণ্টা ৫ মিনিট, কানাডার অটোয়ায় ১৭ ঘণ্টা, যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে ১৬ ঘণ্টা আর রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে রোজা রাখতে হবে ১৭ ঘণ্টা। তবে সুইডেন ও জার্মানিতে রোজা হচ্ছে প্রায় ১৯ ঘণ্টা। ইতারিতে রোজা হচ্ছে ১৭ ঘণ্টা।

বাংলাদেশ ও ভারতে রোজা রাখতে হচ্ছে প্রায় ১৫ ঘণ্টা। তবে পাকিস্তানে রোজার সময় হচ্ছে ১৬ ঘণ্টা।

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির নেতারা আইন না বুঝেই মন্তব্য করে আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে আপনি কি একমত?