বুধবার, ২১ নভেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৮, ০৪:১৬:২৪

ভারতীয় গণমাধ্যমেও আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর খবর

ভারতীয় গণমাধ্যমেও আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর খবর

বিনোদন ডেস্ক : কিংবদন্তি সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব আইয়ুব বাচ্চু। সকালে তাঁর জীবনাবসানের পর শোকের ছায়া নেমে এসেছে দেশের সংস্কৃতি অঙ্গনে। সাধারণ মানুষের হৃদয়েও চলছে শোকের মাধ্যম। গনমাধ্যম জুড়ে কেবলই বাচ্চুর কথা। তাঁর জীবন, অর্জন গান এবং বিভিন্ন দিক নিংয়ে চলছে ব্যাপক পর্যালোচনা। এদিকে দেশের ভারতীয় গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়েছে লিজেন্ডারি এই মিউজিক আইকনের মৃত্যুর খবর।

‘এই সময়’ পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে লেখা হয়েছে, ‘বাংলাদেশে তথা বাংলা রক গানের আঙিনা ছেড়ে চিরতরে চলে গেলেন বাংলাদেশী ব্যান্ড সঙ্গীতের কিংবদন্তি আইয়ুব বাচ্চু। সঙ্গীত জীবনের দীর্ঘ চার দশকে অসংখ্য হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া দিয়েছেন শ্রোতাদের। তার সৃষ্টি অনেক গান মানুষের অন্তরে গেঁথে আছে।’

বাচ্চুর মৃত্যুতে জি নিউজ শিরোনাম করেছে, ‘প্রয়াত বাংলা ব্যান্ডের কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু।’এরপর তারা লিখেছে, ‘আইয়ুব বাচ্চুকে এই উপমহাদেশের ‘সেরা গিটারিস্ট’ বললে অত্যুক্তি করা হবে না বোধহয়। মূলত গিটারের প্রতি অসামান্য প্রেম আর অসম্ভব দখলই তাঁকে রক সঙ্গীতের জগতে টেনে নিয়ে আসে।’

‘আজকাল’ তাদের অনলাইনে লিখেছে, ‘বিলাসী বিষাদবিধুরতা বার বার উঠে এসেছে তাঁর লেখায়। পরে সেই সব কবিতায় সুর সংযোজন করে তাকে যখন গানে পরিণত করেছিলেন তিনি, সঙ্গে সুরঝঙ্কার তুলেছিল রুপালি গিটার-এর তার, কষ্ট হয়ে উঠেছিল সর্বজনীন! এ ভাবেই বার বার আনন্দ থেকে ব্যথায়, জীবন থেকে তার মানে খোঁজার নানা কোণে অক্লান্ত ভাবে বিচরণ করে গিয়েছেন আইয়ুব বাচ্চু। কিন্তু হঠাৎ করেই সেই সব বিকেলের গল্পে দেখা দিল যতিচিহ্ন, জীবনের সব কষ্টে ইতি টেনে মৃত্যুর পরপারে চলে গেলেন আইয়ুব বাচ্চু।’

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?