মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই, ২০১৯, ০২:১৭:৪৬

হারলেন কোহলি, ট্রলের শিকার আনুশকা!

হারলেন কোহলি, ট্রলের শিকার আনুশকা!

বিনোদন ডেস্ক : মাত্র ২৪০ রান, ফাইনালে ওঠার জন্য ভারতের এটাই লক্ষ্য। আপাত দৃষ্টিতে সহজ লক্ষ্যই যেন পাহাড় হয়ে দাঁড়ায় বিরাট কোহলির দলের কাছে।

রান তাড়া করতে নেমে পাঁচ রানের মধ্যে ভারতের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা ফিরে যান। ঘটনাচক্রে রোহিত শর্মা, লোকেশ রাহুল ও বিরাট কোহলি প্রত্যেকেই আউট হয়ে যান ব্যক্তিগত এক রান করে।

পরিসংখ্যান বলছে, ওয়ান-ডে ক্রিকেটের ইতিহাসে এর আগে কোনো দলের প্রথম তিন ব্যাটসম্যানই ব্যক্তিগত এক রান করে আউট হয়ে যাননি। ফলত নিউজিল্যান্ডের কাছে ১৮ রানের লজ্জাজনক হার।

বিশ্বকাপ অভিযান শেষ হওয়ায় ক্রিকেটপ্রেমী ভারতে চলছে তীব্র আলোচনা-সমালোচনা। অন্তর্জালে বিস্কোরক ভারত সমর্থকেরা। সেই ঢেউ পড়েছে বলিউডেও। অনেক তারকা সমালোচনায় মুখর।

তবে কোহলির দল হারায় ভক্তরা মিম-উৎসবে মেতেছেন তাঁর স্ত্রী, অভিনেত্রী আনুশকা শর্মাকে নিয়ে। মাইক্রো-ব্লগিং সাইট টুইটারে কোহলি ও আনুশকার মিম বানিয়ে ভক্তরা নানা মন্তব্য করে চলেছেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ এইট্টিনের প্রতিবেদন জানিয়েছে, নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে লজ্জাজনক হারের পর ক্রিকেট-ভক্তরা তাঁদের সমস্ত আবেগ-অনুভূতি উগড়ে দিচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। টুইটার ব্যবহারকারীরা আনুশকা শর্মার ‘সুই ধাগা’ সিনেমার দৃশ্য নিয়ে মিম বানাচ্ছেন। তাতে যুক্ত করছেন কোহলির ধরাশায়ী অবস্থা। ভক্তদের হতাশা আর ক্ষোভ সব যেন আছড়ে পড়ছে আনুশকার ওপর!

এদিকে ভারত হারায় চটেছেন ‘বিতর্কের রানি’ খ্যাত অভিনেত্রী রাখি সায়ন্ত। তাঁর প্রশ্ন, বিশ্বকাপে কেন ক্রিকেটাররা তাঁদের স্ত্রীকে নিয়ে গিয়েছেন? ভিডিও-বার্তায় তিনি বলেন, ‘রোহিত শর্মার স্ত্রী গিয়েছে, বিরাট কোহলির স্ত্রী গিয়েছে, আরো অনেকের স্ত্রী গিয়েছে সেখানে। এ তো ওয়ার্ল্ড কাপ না, মনে হচ্ছে তারা হানিমুন কাপ খেলতে গিয়েছে।’

যা হোক, গত মঙ্গলবার টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। বৃষ্টির জন্য কেন উইলিয়ামসনদের ইনিংস থেমেছিল ৪৬.১ ওভারে। এরপর বৃষ্টিতে আর খেলা শুরু করা যায়নি। গতকাল বুধবার ছিল রিজার্ভ ডে। বাকি চার ওভার খেলে কোহলিদের সামনে নিউজিল্যান্ড লক্ষ্য দেয় মাত্র ২৪০ রান। খেলতে নেমে ২২১ রানেই গুটিয়ে যায় কোহলির দল।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?