বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৭, ০২:০৭:১৪

ঘনিয়ে আসছে তেরেসা মে’র দিনকাল

ঘনিয়ে আসছে তেরেসা মে’র দিনকাল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিপদ যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’র। এমনিতেই ব্রেক্সিট ইস্যু, মন্ত্রী-এমপিদের যৌন কেলেঙ্কারি নিয়ে যথেষ্ট ঝামেলার মধ্যে আছেন তিনি। এর মধ্যে আবার তার কনজারভেটিভ পার্টিরই ৪০ জন সংসদ সদস্য সম্মত হয়েছেন তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনার দলিলে স্বাক্ষর করতে। সানডে টাইমস পত্রিকার বরাত দিয়ে এমন খবর জানিয়েছে হিন্দুস্তান টাইমস।

 

এই অনাস্থা প্রস্তাব বাস্তবায়িত হলে পার্টির সর্বোচ্চ পদের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর পদও হারাতে পারেন তেরেসা। সেক্ষেত্রে তার স্থলাভিষিক্ত হবেন তার পার্টিরই অন্য কোনো নেতা।

 

প্রসঙ্গত, গত ৮ জুন অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারানোর পর থেকেই পার্টিতে তার নেতৃত্ব হুমকির মুখে পড়ে। ওই নির্বাচনের আগে বিপুল ভোটে জয়ের কথা জানিয়েছিলেন তিনি, কিন্তু অপ্রত্যাশিতভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়ে বসে তার পার্টি।

 

ব্রেক্সিট ইস্যু এবং যৌন কেলেঙ্কারিতে এখন কার্যত বিভক্ত হয়ে পড়েছে মে’র সরকার। উদ্ভুত অরাজক পরিস্থিতি মোকাবেলায় সম্পূর্ণ ব্যর্থ কনজারভেটিভরা।

 

বার্ষিক পার্টি কনফারেন্সে পার্টি নেতৃত্ব থেকে তাকে সরানোর আওয়াজ উঠলেও একসময় তা স্তিমিত হয়ে যায়। কিন্তু দলের অনেক নেতাই প্রধানমন্ত্রীর কার্যক্রমে অসন্তুষ্ট। তারা মনে করেন সর্বোচ্চ নেতৃত্বের জন্য প্রতিযোগিতা এখনই শেষ হয়ে যায়নি।

 

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে দু’জন ক্যাবিনেট মন্ত্রীকে হারান তেরেসা মে। তাদের একজন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মাইকেল ফ্যালন। তেরেসা’র ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে খ্যাত এই রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল যৌন হেনস্থার। আর প্রীতি প্যাটেলকে পদত্যাগ করতে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে গোপন বৈঠকের দায়ে।

 

সর্বোচ্চ নেতৃত্বের প্রতিযোগিতায় মে যদি কোনো প্রতিযোগীর কাছে হেরে যান তবে তার কাছে দলের সর্বোচ্চ নেতৃত্ব এবং প্রধানমন্ত্রীত্বের পদ ছেড়ে দিতে হবে মে কে। সেজন্য কোনো জাতীয় নির্বাচনের দরকার হবে না।

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, বর্তমানে দেশের মানুষের ক্রয়ক্ষমতা নাগালের বাইরে চলে গেছে। আপনি কি একমত?