মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৮, ১১:২৬:৪০

ফারাওদেরও ১০০০ বছর আগে ছিল মমি প্রথা

ফারাওদেরও ১০০০ বছর আগে ছিল মমি প্রথা

ঢাকা : ছোট শব্দ মমির সাথে রয়েছে নানা রহস্য। এর মাধ্যমে হাজার হাজার বছর আগের পৃথিবী সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারণা পাওয়া যায়। আবার সেই সঙ্গে যুক্ত হয় সব অতিলৌকিক ঘটনা। সাধারণ মানুষদের পাশাপাশি গবেষকদেরও কৌতূহলের শেষ নেই।  সম্প্রতি এক পুরনো মমিকে ঘিরে নতুন আবিষ্কারের কথা সামনে এসেছে। জানা গেছে ফারাওদের আগেও মমি প্রথা চালু ছিল প্রাচীন মিশরে!

ওই মমিটি পাওয়া গিয়েছিল গত শতাব্দীর একেবারে শুরুতেই। যা ১৯০১ সাল থেকে ইতালির তুরিন মিউজিয়ামে সংরক্ষিত রয়েছে। ধারণা করা হয়েছিল ৩৭০০ থেকে ৩৫০০ খ্রিস্ট পূর্বাব্দের সময়কালের ওই মমিটি কৃত্রিম ভাবে সংরক্ষিত হয়নি।

কোনো দুর্যোগের পরে মরুভূমিতে প্রাকৃতিক ভাবেই ওই দেহটি সংরক্ষিত হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু গবেষকরা এখন জানতে পেরেছেন, ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সী ওই যুবকের দেহটিকে কৃত্রিম ভাবেই সংরক্ষণ করা হয়েছিল।

যার ফলে গবেষকদের এতদিনের জানা সময়েরও ১ হাজার বছর আগেই এই বিদ্যা আয়ত্ত করেছিল মিশরের মানুষ। ওই গবেষক দলের অন্যতম গবেষক অস্ট্রেলিয়ার সিডনির বাসিন্দা জানা জোন্স জানিয়েছেন, মমিটির ডান কবজি, ধড় খুঁটিয়ে পরীক্ষা করার পরে বোঝা গিয়েছে সেটিকে সংরক্ষণ করা হয়েছে।

পাশাপাশি পরীক্ষা করা হয়েছে দেহের সঙ্গে থাকা ব্যাগটিও। দেখা গিয়েছে, জৈব তেল, প্রাণীজ চর্বি ও আরও বহু পদার্থের প্রলেপ দিয়ে কাপড়ে মোড়ানো হয়েছিল দেহটি। যার উদ্দেশ্য অবশ্যই সংরক্ষণ।

গবেষকরা বলছেন, মমিটি এতই প্রাচীন যখন লেখার ভাষাও আবিষ্কৃত হয়নি। সম্ভবত মুখে মুখেই ওই সংরক্ষণের প্রক্রিয়া প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে চলে এসেছে।

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?