বুধবার, ২২ মে ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯, ১১:০২:৪৫

স্ত্রীর কারণেই ইকার্দির সর্বনাশ!

স্ত্রীর কারণেই ইকার্দির সর্বনাশ!

স্পোর্টস ডেস্ক: ইকার্দির প্রেমজীবন এককথায় সিনেমার গল্পকেও হার মানায়। তিনি বিয়ে করেছেন যে নারীকে সেই নারী আর কেউ নন, আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের সাবেক খেলোয়াড় ম্যাক্সি লোপেজের সাবেক স্ত্রী ওয়ান্ডা নারা। যিনি আর্জেন্টিনার টেলিভিশন সেলিব্রেটি। এই ওয়ান্দার নারার সাথে ২০১৩ সালের নভেম্বরে পাঁচ বছরের বিবাহিত জীবনের সমাপ্তি ঘটান লোপেজ। এই ঘটনার মাত্র কয়েকদিন পরেই টুইটারে বেশকিছু মেসেজ বিনিময় করেন ইকার্দি-ওয়ান্ডা। সেই মেসেজে নিজেদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে খোলামেলা কথা বলেন তারা। সেখানে তারা আর্জেন্টিনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৫ বার ‘ম্যারাথন যৌন মিলনের’ কথা প্রকাশ করেন।

২০১৪ সালে ইকার্দি-ওয়ান্দা বিয়ে করেন। নিজের আত্মজীবনিতে ইকার্দি দাবি করেছেন, লোপেজের সাথে বৈবাহিক সম্পর্ক থাকা অবস্থায়ই ওয়ান্ডা তার সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়ানোর চেষ্টা করেন। অন্যের স্ত্রী ভাগিয়ে নিয়ে আবার সেই নারীকে নিজের এজেন্ট হিসেবে ব্যবহার করেন ইকার্দি।

আর্জেন্টাইন এই তারকা ফুটবলারের সর্বনাশের মূলে রয়েছে তার স্ত্রী ওয়ান্ডা নারা। কিছুদিন আগেই খবর রটেছিল, ইন্টার মিলান থেকে ইকার্দিকে দলে ভেড়াতে পারে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ। তবে এ গুঞ্জন থেকে যায় গুঞ্জনই, আর ইকার্দি রয়ে যান ইন্টারেই। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম মার্কা জানিয়েছে, ইকার্দির এজেন্ট হিসেবে কাজ করা তারই স্ত্রী ওয়ান্ডা নারার কারণেই রিয়াল আগ্রহ হারিয়ে ফেলে।

ইন্টার মিলানে দুর্দান্ত পারফর্ম করে চলেছেন ইকার্দি, চলতি মৌসুমেও করেছেন ১৫ গোল। তাই রিয়ালের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে ইকার্দি। তবে ওয়ান্ডা নারার আচরণের কারণেই তাকে কেনা থেকে বিরত থাকে রিয়াল মাদ্রিদ। গুঞ্জন আছে, ওয়ান্ডার জেদি মানসিকতায় বিরক্ত হয়ে সম্প্রতি আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দিয়ে ইকার্দির কাছ থেকে দলের অধিনায়কত্ব ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে এবং তা স্থায়ীভাবে দেয়া হয়েছে সামির হান্দানোভিচকে।

ইন্টারের সঙ্গে ইকার্দির সম্পর্ক এখন তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। নেতৃত্ব হারানোর কারণে গত বৃহস্পতিবার ভিয়েনার মাঠে ইউরোপা লিগ ম্যাচ খেলতে দলের সঙ্গে যেতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি। এতে পরিস্থিতি এখন এমনই দাঁড়িয়েছে যে, ইন্টারের অ্যাপিয়ানো গেন্টাইল ট্রেনিং গ্রাউন্ডে একাকী হয়ে পড়েছেন ইকার্দি এবং খাবারও খাচ্ছেন একা একা। সতীর্থরা তার থেকে দূরেই থাকছেন।

২০১৮ সালেই ইকার্দির জন্য ইন্টারকে প্রস্তাব দেয় প্রস্তুতি শুরু করেছিল রিয়াল। যদিও ওই সময় তারা শেষ পর্যন্ত প্রস্তাব দেয়া থেকে বিরত থাকে। ওয়ান্ডা নারার কারণে বর্তমানে ইন্টারে অস্বস্তিকর এক পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ায় এখন রিয়াল ম্যানেজমেন্ট বিশ্বাস করে, তাদের সিদ্ধান্ত সঠিকই ছিল। রিয়াল এ কারণেই খুশি, ইকার্দি ও তার স্ত্রীকে নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতি এড়াতে পেরেছে তারা। আবার ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেনজেমাও ক্যারিয়ারের সেরা ফর্মে রয়েছেন। তাই ইকার্দিকে নিয়ে আক্ষেপও নেই।

তবে রিয়াল না কিনলেও ইকার্দির অখুশি হওয়ার কারণ নেই। কারণ ইকার্দিকে পেতে চাইছে জুভেন্টাস ও চেলসিও।

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?