মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১৪ মে, ২০১৮, ০৪:৪৮:৩৯

যে সমস্যা থাকলে রসুন খাবেন না

যে সমস্যা থাকলে রসুন খাবেন না

ঢাকা: আমাদের শরীরের অনেক সমস্যার জন্যই রসুন খুব উপকারি। তবে সবার শরীরের জন্যই যে এই খাবারটি ভাল ফল নিয়ে আসবে তা কিন্তু নয়। রসুনের কিছু কিছু গুণের জন্য আপনার শারীরিক সমস্যা বেড়েও যেতে পারে। আপনার যে সমস্যাগুলো থাকলে রসুন খাওয়া ঠিক নয়, এমন কিছু কারণ জেনে নিন।  

লিভারের সমস্যা : লিভারের সমস্যা থাকলে রসুন না খাওয়াই ভাল। কারণ রসুন আপনার লিভারের সমস্যা আরো বাড়িয়ে দিতে পারে।
হোমিওপ্যাথি ওষুধ : পেঁয়াজ, রসুন হোমিওপ্যাথি ওষুধের কার্যকারিতা নষ্ট করে দিতে পারে। তাই হোমিওপ্যাথি ওষুধের কোর্স খেলে সেই সময় রসুন এড়িয়ে চলুন।
নিম্ন রক্তচাপ : কারো যদি নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা থাকে তাহলে রসুন কম খাওয়াই ভাল। রসুন রক্তচাপ আরো কমিয়ে সমস্যা তৈরি করতে পারে।
রক্তাল্পতা : রসুন রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কমিয়ে দেয়। তাই রক্তাল্পতার সমস্যা থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুসারে রসুন খাওয়া বাদ দিতে পারেন।
বদহজম : হজমের সমস্যায় ভুগলে রসুন ও তেল মসলাযুক্ত খাবার থেকে দূরে থাকুন।
গর্ভ নিরোধক পিল : যদি আপনি নিয়মিত গর্ভ নিরোধক পিল খান তাহলে অতিরিক্ত রসুন খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। রসুন গর্ভ নিরোধক পিলের কার্যকারিতা কমিয়ে দেয়।
গর্ভকালীন সময়: রসুন শরীর গরম করে। গর্ভাবস্থায় অতিরিক্ত রসুন খেলে তা শরীরের তাপমাত্রা বাড়িযে দেয়। যার ফলে গর্ভপাতের সম্ভাবনা থাকে। যাদের রসুনে অ্যালার্জি আছে তারা এড়িয়ে চলুন।

তবে সমস্যা না থাকলে খালি পেটে রসুন খাওয়ার অনেক উপকারিতা আছে জেনে নিন সে গুলো:

খালি পেটে রসুন খাওয়া স্বাস্থ্যকর একটি ব্যাপার। খালি পেটে রসুন খেলে এমন কিছু উপকার হয়, যেটা অন্য খাবারের সাথে রান্না করা অবস্থায় খেলে হয় না। রসুন অবশ্যই খেতে হবে সকালে, নাস্তা করার আগে। চিবিয়ে খেতে না চাইলে পানি দিয়ে গিলে ফেলুন টুকরো করা দুই কোয়া রসুন।

এটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে। গবেষকদের মতে খালি পেটে রসুন খেলে তা  হাইপারটেনশন ও স্ট্রেস কমাতে সহায়তা করে। অন্যদিকে হজমের সমস্যাও রোধ করে। স্ট্রেস থেকে পেটে গ্যাসের সমস্যা হলে সেটাও প্রতিরোধ করে খালি পেটে রসুন। অন্যদিকে ডায়রিয়া হলে দ্রুত তা সারিয়ে দেয়। সকালে খালি পেটে রসুন রক্ত পরিস্কার করে।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?