শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ১০ আগস্ট, ২০১৮, ০৬:১৬:০১

কিডনি রোগীদের খাবার-দাবার

কিডনি রোগীদের খাবার-দাবার

স্বাস্থ্য ডেস্ক : প্রাণঘাতি রোগের একটি হলো কিডনি রোগ। প্রতি বছর প্রায় ৪০ হাজার মানুষ মারা যাচ্ছে এই রোগে। একটু সতর্কতা ও রুটিন অনুযায়ী খাবার খেলে এর হাত থেকে অনেকাংশে রক্ষা পাওয়া সম্ভাব। আর যারা ইতমধ্যেই এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন তাদের জন্যও আছে কিছু নিয়ম। খাবার খাওয়ায় তারা কিছু নিষেধাজ্ঞা মেনে চলতে পারেন। এখন প্রশ্ন হলো কিডনী রোগিরা কি খাবেন আর কি খাবেন না? চলুন সেটাই একবার দেখে নেয়া যাক-

যেসব খাবার খাবে…
সবজিঃ লাউ, চিচিঙ্গা, লাউ, করলা, বিচি ছাড়া শশা, সজনা, ডাটা শাক, লাল শাক, কাচু শাক, জিংগা, পেপে হেলেঞ্চা শাক ইত্যাদি।

প্রানিজ আমিষ: মাছ, মাংশ, দুধ, ডিম ইত্যাদি সীমিত পরিমানে খাবে।

কম পটাশিয়াম যুক্ত ফল: আপেল, পেয়ারা, পাকা পেপে, নাসা পাতি ইত্যাদি।

যেসব সবজি খাবে না…
ফুল কপি, বাঁধা কপি, পালং শাক, কচু, মূলা, পুইশাক, ঢড়স, গাজর, কাঠালের বিচি, শীমের বিচি, মূলাশাক ইত্যাদি।

ডাব, কলা, আঙ্গুর তো একে বারেই খাবেনা, কেননা, এতে পটাশিয়ামের পরিমান বেশি। কিডনি রোগীদের রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বাড়তে থাকে।

এছাড়া রোগীর খাদ্য তালিকায় প্রোটিন রাখতে হবে রোগের উপর মাত্রার উপর ভিত্তি করে। যেমনঃ রোগীর রক্তের ক্রিয়েটিনিন, শরীরের ওজন, ডায়ালাইসিস করেন কিনা, করলেও সপ্তাহে কয়টা করেন তার উপর নির্বর করে প্রোটিনের মাত্রা নির্ধারন করতে হবে।

কিডনি রোগ শনাক্ত হওয়ার পর প্রতিকেজি দৈহিক ওজনের জন্য প্রোটিনের প্রয়োজন ০.৫-০.৮ গ্রাম। এবং গুরুত্বর রোগীর জন্য ০.৫ গ্রাম।

উপরোক্ত নির্দেশনা অনুযায়ী খাদ্য তালিকা তৈরী করলে খাবার খেলে কিডনি রোগ অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?