মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ০৭ অক্টোবর, ২০১৮, ০৬:৩৭:৪৯

পূজায় সুস্থ থাকতে কিছু জরুরি টিপস

পূজায় সুস্থ থাকতে কিছু জরুরি টিপস

স্বাস্থ্য ডেস্ক : উৎসবের মৌসুমে হাতের কাছে বা ফোনের নাগালে সব সময় চিকিৎসক পাওয়া যায় না৷ তখন কষ্ট কমাতে কিছু ব্যবস্থা নিতে হয় নিজেকেই৷ চটপানিদি কিছু পদক্ষেপও করতে হয় অসুস্থতা কমাতে। বিশেষ করে বাড়িতে কোনও শিশু ও বয়স্ক থাকলে কিছু ব্যবস্থা অবশ্যই মজুত রাখতে হবে হাতের কাছে।

যা যা ব্যবস্থা নিজে থেকে নিতে পারেন, তার একটা নির্দেশিকা দেয়া হলো।

কখন কী করবেন
রক্তচাপ কমে মাথা ঝিমঝিম করছে মনে হলে লবণ–চিনির শরবত খান৷ সুগার বেশি থাকলে পানিতে শুধু লবণ মিশিয়ে খাবেন৷ অনিয়মে রক্তচাপ খুব বেড়ে গেলে খান ৪০ মিগ্রা ফ্রুসেমাইড৷

সুগার কমেছে বুঝতে পারলে লবণ–চিনির শরবত, গ্লুকোজ বা মিষ্টি, লজেন্স বা কোল্ডড্রিঙ্ক খান৷ গ্লুকোমিটারে যদি দেখেন সুগার বেড়েছে, ভাত–রুটি–আলু–চিড়ে– ইত্যাদি খাওয়া একেবারে কমিয়ে বিশ্রামে থাকুন৷ প্রথম সুযোগেই ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে নিন৷

মাইগ্রেনের তীব্র ব্যথা শুরু হলে ভরা পেটে এনসেড গোত্রের ব্যথার ওষুধ খান৷ অম্বলের ধাত থাকলে অম্বলের ওষুধ খেয়ে নেবেন আগে৷

দাঁত ব্যথা হলে গরম পানিতে লবণ ফেলে কুলকুচি করুন৷ তুলোয় সামান্য লবঙ্গ তেল নিয়ে ব্যথার দাঁতে লাগিয়ে দিন৷

কান ব্যথায় গরম সেঁক দিন৷ না কমলে ১ গ্রাম প্যারাসিটামল খান৷

সিওপিডি বা হাঁপানির রোগীর ক্ষেত্রে যা যা ক্ষতিকারক— যেমন, আইসক্রিম, ঠান্ডা নরম পানীয় বা ঠান্ডা পানি খেয়ে কিংবা দেদার সিগারেট–হুঁকো টেনে শ্বাসকষ্টে ভুগলে সাহায্য নিন সালবুটামল ইনহেলারের৷

উপোস করা, ভুলভাল খাওয়া ইত্যাদি কারণে গ্যাস–অম্বলের বাড়াবাড়ি হলে ৪–৬ চামচ লিকুইড অ্যান্টাসিড খান৷ এরপর কষ্ট না কমা পর্যন্ত ঠান্ডা পানি ছাড়া আর কিছু খাবেন না৷ তাতে না কমলে পিপিআই গ্রুপের অম্বলের ওষুধ আর ডমপেরিডন গ্রুপের ওষুধ খেয়ে নিন৷

বদহজম হয়ে বমি হলে প্রথম দু’–একবার হতে দিন৷ খাবার সব বেরিয়ে যাওয়ার পরও বমিভাব না কমলে ডমপেরিডন জাতীয় ওষুধ খান৷

পেট খারাপ হলে প্রতিবার মোশনের পর বড় এক গ্লাস লবণ–চিনির শরবত বা ওআরএস খান৷ বিশ্রামে থাকুন৷ খিদে পেলে হালকা ঝোল–ভাত খান৷

এক বেলা বা এক দিনের মধ্যে রোগের প্রকোপ কমতে শুরু না করলে দুটো আইমোডিয়াম ট্যাবলেট খেতে হবে৷ তার ৪–৬ ঘণ্ঢা পরও কষ্ট একই রকম থেকে গেলে আরও একটা খেতে পারেন৷

ইউরিনে জ্বালা হলে পানি খান ঘণ্টায় ঘণ্টায়৷ শরবত, ডাবের পানি, ফলের রস ইত্যাদি খেতে পারেন দু’–এক বার৷ দিনে ৩–৪ বার অ্যালকালি মিক্সচার খান পানিতে মিশিয়ে৷

দাঁত ব্যথা হলে গরম পানিতে লবণ ফেলে কুলকুচি করুন৷ তুলোয় সামান্য লবঙ্গ তেল নিয়ে ব্যথার দাঁতে লাগিয়ে দিন৷
কান ব্যথায় গরম সেঁক দিন৷ না কমলে ১ গ্রাম প্যারাসিটামল খান৷

সিওপিডি বা হাঁপানির রোগীর ক্ষেত্রে যা যা ক্ষতিকারক— যেমন, আইসক্রিম, ঠান্ডা নরম পানীয় বা ঠান্ডা পানি খেয়ে কিংবা দেদার সিগারেট–হুঁকো টেনে শ্বাসকষ্টে ভুগলে সাহায্য নিন সালবুটামল ইনহেলারের৷

উপোস করা, ভুলভাল খাওয়া ইত্যাদি কারণে গ্যাস–অম্বলের বাড়াবাড়ি হলে ৪–৬ চামচ লিকুইড অ্যান্টাসিড খান৷ এরপর কষ্ট না কমা পর্যন্ত ঠান্ডা

পানি ছাড়া আর কিছু খাবেন না৷ তাতে না কমলে পিপিআই গ্রুপের অম্বলের ওষুধ আর ডমপেরিডন গ্রুপের ওষুধ খেয়ে নিন৷

বদহজম হয়ে বমি হলে প্রথম দু’–একবার হতে দিন৷ খাবার সব বেরিয়ে যাওয়ার পরও বমিভাব না কমলে ডমপেরিডন জাতীয় ওষুধ খান৷

পেট খারাপ হলে প্রতিবার মোশনের পর বড় এক গ্লাস লবণ–চিনির শরবত বা ওআরএস খান৷ বিশ্রামে থাকুন৷ খিদে পেলে হালকা ঝোল–ভাত খান৷

এক বেলা বা এক দিনের মধ্যে রোগের প্রকোপ কমতে শুরু না করলে দুটো আইমোডিয়াম ট্যাবলেট খেতে হবে৷ তার ৪–৬ ঘণ্ঢা পরও কষ্ট একই রকম থেকে গেলে আরও একটা খেতে পারেন৷

পেটব্যথায় খান ডাইসাইক্লোমিন৷

ইউরিনে জ্বালা হলে পানি খান ঘণ্টায় ঘণ্টায়৷ শরবত, ডাবের পানি, ফলের রস ইত্যাদি খেতে পারেন দু’–এক বার৷ দিনে ৩–৪ বার অ্যালকালি মিক্সচার খান পানিতে মিশিয়ে৷

অ্যালার্জি হাঁচি বা নাক দিয়ে পানি পড়লে ১২০ মিগ্রা ফেক্সোফেনাডিন বা ১০ মিগ্রা সেটিরিজিন খান৷

কাশি হলে লবণ–গরম পানিতে গার্গল করুন৷ গরম পানিতের ভাপ নিন৷ না কমলে, শুকনো কাশিতে খান কোডিন। কাশির সঙ্গে কফ উঠলে

ব্রোমোহেক্সিন মেশানো কাফ সিরাপ খান৷ তবে কাফ সিরাপে সমস্যা থাকলে তা এড়িয়ে চলাই ভাল।

সর্দি–কাশি–জ্বর হলে গরম পানিতের ভাপ টালবণ, লবণ–গরমপানিতের গার্গল করুন, ৬৫০ মিগ্রা প্যারাসিটামল খান দিনে ৩ বার, নাক দিয়ে পানি পড়লে অ্যান্টিঅ্যালার্জিক খান৷ নাক বন্ধ হয়ে গেলে নর্মাল স্যালাইন ড্রপ দিন নাকে৷

পা মচকালে ব্যথার মলম লাগিয়ে ক্রেপ ব্যান্ডেজ বেঁধে রাখুন৷ পা বালিশ বা টুলের উপর রেখে বিশ্রাম নিন৷ প্যারাসিটামল খেতে পারেন দু’–একটা৷ পায়ে ফোসকা পড়লে টেপ ব্যান্ডেজ লাগান৷

ঘাড় বা কোমর ব্যথা হলে ব্যথার মলম লাগিয়ে গরম সেঁক দিন৷

কেটে গেলে উষ্ণ পানিতে ধুয়ে পরিষ্কার করে মুছে সোডিয়াম ফিউসিডেট আছে, এমন মলম লাগান৷

পোকা কামড়ালে সামান্য একটু টপিকাল স্টেরয়েড জাতীয় মলম লাগান৷

পুড়ে গেলে জায়গাটা ঠান্ডা না হওয়া পর্যন্ত পানি ঢালতে থাকুন৷ হাত–পা পুড়লে বালতির পরিষ্কার পানিতে ডুবিয়ে রাখুন৷ পাটভাঙা পরিষ্কার কাপড়ে জায়গাটা আলতো হাতে মুছে পভিডন আয়োডিন দ্রবণ বা মলম লাগিয়ে পাটভাঙা কাপড় বা জীবাণুমুক্ত গজ চাপা দিন৷

প্রচণ্ড জ্বর, বুকে কফ, মারাত্মক পেট খারাপ, প্রস্রাবে জ্বালা ইত্যাদি কারণে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ার প্রয়োজন হলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নিন৷

জটিল কোনো উপসর্গ দেখা দিলে কাছাকাছি যে হাসপাতাল পাবেন, সেখানে ভর্তি হয়ে যান৷ তারপর প্রয়োজনে অন্য হাসপাতালে যেতে হবে৷

 

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?