শনিবার, ১৮ নভেম্বর ,২০১৭

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৭, ০৩:০০:২২

বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখতে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে: মির্জা ফখরুল

বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখতে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে: মির্জা ফখরুল

টাঙ্গাইল : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখতে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

শুক্রবার টাঙ্গাইলে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখার ষড়যন্ত্র করছে।

 

এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, আগামীতে বিএনপি সব ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

 

যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বিএনপি প্রস্তুত আছে জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিএনপি জনগণের দল। সকল চ্যালেঞ্জ এবং ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে বিএনপি সামনে এগিয়ে যাবে।’

 

তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের নিজ ভূমিতে ফিরিয়ে নিতে বেগম জিয়া আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়সহ মায়ানমারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।’

 

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বেগম জিয়া মানবিক কারণে কক্সবাজার সফর করেছেন। তার এ মানবিক সফরে হামলা চালিয়ে সরকার নিজেদেরকে সন্ত্রাসী দল হিসেবে আরেকবার প্রমাণ করল।’

 

হামলার সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার না করে সরকার গণতান্ত্রিক রাজনীতিকে ধ্বংস করার আরেকটি পরিকল্পনা করেছে বলেও মন্তব্য করেন ফখরুল।

 

এছাড়া রবিবার এক বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘সরকারের মদদে আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের দ্বারা সংঘটিত বেপরোয়া সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা রাজনীতিতে অশনিসংকেত।’

 

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন গাড়িবহরে আওয়ামী ক্যাডারদের হামলায় আবারো প্রমাণিত হলো সারাদেশ এখন সন্ত্রাসের ভয়াল রাজ্যে রুপান্তরিত হয়েছে।’

 

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘মনে হয় সন্ত্রাসী, গুন্ডা-পান্ডারা এদেশের হর্তাকর্তা। খালেদা জিয়ার বিপুল জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়েই অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তার গাড়িবহরে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের ব্যাপক হামলা হয়েছে।’

 

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘শত বাধাবিপত্তি অতিক্রম করে রাস্তায় রাস্তায় দেশনেত্রীকে একনজর দেখার জন্য মানুষের বাঁধভাঙ্গা স্রোত দেখে ক্রোধে বেসামাল হয়ে পড়েছে আওয়ামী সরকার। আর এজন্যই সামঞ্জস্যহীন কথাবার্তা বলছেন আওয়ামী নেতারা।’

 

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘হিংসাত্মক হয়ে বেপরোয়া আক্রমণ করার পাশাপাশি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার করতে তারা বেপরোয়া হয়ে গেছে। সরকারের এই দমন-পীড়ন কেবল পুরোপুরিভাবে দেশে একদলীয় বাকশালী রাজত্ব কায়েম করার আনুষ্ঠানিক ঘোষণার জন্য।’

 

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, হামলায় গুরুতর আহত হন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান। মাথায় পাথর ঢুকে মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন হুমায়ুন কবির রাজু। তাদের আশু সুস্থতা কামনা করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল।

 

বিবৃতিতে বলা হয়, প্রতিহিংসামূলকভাবে শনিবার পল্টন থানা পুলিশ বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভুইয়া জুয়েল, ছাত্রদল সভাপতি রাজিব আহসান, সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য হাবিবুর রশীদ হাবিব, ছাত্রদল নেতা এনামুল হক এনামসহ ২৬ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। আটক করা হয়েছে যুবদল নেতা আলতাফ, সেন্টু, শাহীন এবং শ্রমিক দল নেতা কামালউদ্দিনকে।

 

 

 

এই বিভাগের আরও খবর



আজকের প্রশ্ন