শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০১ জুন, ২০১৮, ০৩:০৫:১৮

ইফতারে শরীর শীতল করা খাবার

ইফতারে শরীর শীতল করা খাবার

স্বাস্থ্য ডেস্ক : ইফতারে চনা, পেঁয়াজু ছাড়া যেন চলেই না। কিন্তু এত ভাজাভুজিতে পানিশূন্যতা, গ্যাসের সমস্যা, হজমের সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর এবার রোজা গরমে পড়ায় সচেতন ভাবে খাওয়া দাওয়া করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

ইফতারে এমন খাবার রাখুন যা আপনার সারাদিনের পানিশূণ্যতা দূর করবে। পাশাপাশি সুস্থ রাখবে আপনার হজম প্রক্রিয়া।

কমলা
মৌসুমি ফল হলেও এখন প্রায় সারাবছরই কিন্তু কমলা পাওয়া যায়। কমলায় রয়েছে ৮০% পানি যা এই গরমে আপনার শরীরকে হাইড্রেইটেড রাখবে। এছাড়া এতে রয়েছে পটাসিয়াম, ভিটামিন বি১, ভিটামিন এ, ক্যালসিয়াম ও কপার। ইফতারিতে পান করতে পারেন এক গ্লাস কমলার রস। আর কমলা দিয়ে অনেক ধরনের জুস, স্মুদি, মুজ ইত্যাদি বানিয়ে নিতে পারেন অনায়াসেই।

২. শসা
শসায় আছে ৯৫% পানি, ভিটামিনস ও মিনারেলস ফলে শসা খেলে শরীর ভিতর থেকে ঠান্ডা করে থাকে। এতে ক্যালরি কম থাকে আর ফাইবার থাকে, ফলে ওজন কমাতে সহায়ক। তাই প্রতিদিন খাবারের শসা রাখতে চেষ্টা করুন। এমনকি শসার জুসও খেতে পারেন।

৩. তরমুজ
গরমকালের অন্যতম একটি ফল হলো তরমুজ। তরমুজে ৯২% পানি যা শরীরের পানির চাহিদা পূরণ করে। এছাড়া এতে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি৬, ভিটামিন সি, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যামিনো অ্যাসিড। ফলের রস কিংবা ফ্রুট সালাদ হিসেবে ইফতারের টেবিলে রাখতে পারেন তরমুজ।

৪. আপেল
কথিত আছে প্রতিদিন একটি আপেল আর ডাক্তারকে রাখুন দূরে। আপেল আপনার শরীরকে ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করবে। আপেলে রয়েছে প্যাকটিন, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি এবং অন্যান্য অ্যাসেনশিয়াল পুষ্টি উপাদান। সবুজ আপেল খাওয়াটা খুবই স্বাস্থ্যকর।

৫. আনারস
আনারসের গুণ সম্পর্কে তো আগেও বলা হয়েছে। ফ্রুট সালাদ কিংবা স্মুদিতে আনারস ব্যবহার করতে পারেন। এতে রয়েছে ব্রোমেলিন যা এনজাইমের অন্যতম একটি উৎস। এছাড়া আনারসে ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৬, ফাইবার, ভিটামিন বি১, ম্যাগনেসিয়াম, প্যানটোথেনিক অ্যাসিড রয়েছে।
curd

৬. টকদই
টকদই শুধু শরীরকেই ঠাণ্ডা রাখে না, বরঞ্চ খারাপ কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। ওজন কমাতে টকদইয়ের কার্যকরী ভূমিকার কথাতো আমরা সবাই জানি। আইসক্রিম বা সফট ড্রিঙ্কসের পরিবর্তে খাদ্য তালিকায় তাই টকদই কিন্তু রাখতে পারেন। এছাড়া পছন্দের কোনো ফলের সাথে টকদই মিশিয়ে খেতেও কিন্তু দারুণ লাগে।

সারাদিন রোজার রাখার পর ইফতারটা করুন স্বাস্থ্যকর খাবার দিয়ে। বাঁচুন সুস্থভাবে।



আজকের প্রশ্ন