বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ০৪ জুন, ২০১৮, ০৩:৩৫:২৭

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস থেকে আরও ১৮ বাংলাদেশি গ্রেপ্তার

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস থেকে আরও ১৮ বাংলাদেশি গ্রেপ্তার

ঢাকা : বৈধ কাগজপত্র না থাকায় যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের সীমান্তবর্তী শহর লারেদো থেকে গত সপ্তাহে কমপক্ষে আরও ১৮ বাংলাদেশি নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর ফলে চলতি অর্থবছরে মোট ২৭৪ অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসীকে গ্রেপ্তার করা হল বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্ত টহল কর্মকর্তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস রাজ্যের সীমান্তবর্তী লারেদো শহর থেকে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বাংলাদেশিকে আটক করা হয়। অন্য যেকোনো সীমান্তের চেয়ে এই সীমান্তপথেই সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশি অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করে। মেক্সিকো হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রবেশের জন্য অভিবাসন প্রত্যাশীদের লারেদো শহরের দক্ষিণের রিও গ্রান্ড নদী পাড়ি দিতে হয়। গত মাসে নদী পার হওয়ার সময় একজন অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু হয়। পরে যাচাই-বাছাই শেষে জানা যায় তিনি বাংলাদেশি নাগরিক।

বাংলাদেশি নাগরিকদের ওই এলাকা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অনুপ্রবেশ করার বিশেষ কোনো কারণ নেই। তবে মানব পাচারকারী চক্রগুলো মূলত ওই রুটটি নিয়ন্ত্রণ করে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তারাই ঠিক করে দেয় কারা কোন পথে সীমান্ত অতিক্রম করবে।

গ্রেপ্তারের পর সবারই আগের অপরাধের বিষয়ে যাচাই-বাছাই করা হয়। এজন্য বায়োমেট্রিক পদ্ধতি ব্যবহার করে বিভিন্ন ডাটাবেজ ঘেটে দেখা হয়। এর মাধ্যমে তাদের আগের অপরাধ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি তাদের অভিবাসন মর্যাদাও জানা যায়। কর্মকর্তারা বলেন, অভিবাসীরা লুকানো বা পালানোর চেষ্টা করে না। তার পরিবর্তে তারা হেঁটে গিয়ে সীমান্ত এজেন্টদের কাছে ধরা দেয়। অভিবাসীরা নিজ দেশে জীবনের নিরাপত্তার প্রশ্ন তুলে আশ্রয় চেয়ে অনুরোধ করে থাকে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাতিসংঘের শরণার্থী কনভেনশনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক চুক্তি হয়। সেই হিসেবে আশ্রয়প্রার্থীদের সুরক্ষা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। যুক্তরাষ্ট্র ১৯৮০ সালে কনভেনশনে স্বাক্ষর করে তা নিজ দেশে আইনে পরিণত করে। মূলত নিজ দেশে নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতে পালিয়ে যাওয়া ব্যক্তিদের নিরাপদ আশ্রয় দেয়ার উদ্দেশ্যেই আইনটি করে যুক্তরাষ্ট্র।



আজকের প্রশ্ন