মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ১১ জুলাই, ২০১৮, ০৪:১৫:৪২

নীলফামারীর ডিমলা ছিটমহলবাসীর ভোটাধীকার

নীলফামারীর ডিমলা ছিটমহলবাসীর ভোটাধীকার

নীলফামারী : দীর্ঘ বঞ্চনার পর পরাধীনতার শিকল ভেঙ্গে মাথা উচু করে বাঁচার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন ছিটমহলবাসী তা বাস্তবায়িত হয়েছে ঠিকই। কিন্তু এখনও সেই তিমিরের বন্দী ছিটমহলের মানুষ। ঘর আছে জমি আছে মিলেছে স্বীকৃতিও। তবে মৌলিক অধিকার থেকে এখনও বঞ্চিত তারা। সরকারের পক্ষ থেকে আশার বাণী শোনানো হলেও বাস্তবতা ভিন্ন।

মানুষের মানবতা বোধ রক্ষায় ছিটমহল বিনিময়ে বর্তমান সরকার তৈরী করেছেন এক নতুন ইতিহাস। বন্দীদশা থেকে মুক্তি মিলেছে মানুষের, ফিরে পেয়েছে নাগরিক পরিচয় আর মর্যদা। কিš‘ ভোট মৌসুমে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে না পারায় ক্ষুব্ধ এখানকার বাসিন্দারা। শুধু ভোটাধীকার প্রয়োগই নয়, স্বাস্থ্য, শিক্ষাসহ সকল নাগরিক অধিকার থেকে বঞ্চিত এখানকার মানুষ।

তাদের আশা ছিল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মিলবে পরিচয়পত্র প্রয়োগ করবেন ভোটাধীকার। কিন্তু দীর্ঘ প্রতিক্ষার পরও এই অধিকার না পাওয়ায় হতাশায় ভুগছেন তারা। ( জিলহাস উদ্দীন, জেলা নির্বাচন অফিসার, নীলফামারী।) সদ্য বিলুপ্ত নীলফামারী ডিমলার ৪টি ছিটমহলের ভোটা তালিকা পুন:বিন্যাস কর্মকর্তা নিয়োগ না হওয়ায় তারা ভোটাধীকার প্রয়োগ করতে পারছেন বলে জানিয়েছেন এই নির্বাচন কর্মকর্তা।  উপজেলার বড় খানকি, বড় খানকি খারিজা, বড় খানকি খারিজা গিদালদহ আর নগর জিগাবাড়ি ছিটমহলে বসবাসরত পরিবার ১১৯টি। নতুন নাগরিক হিসেবে এই পরিবারগুলো ভোট উৎসবে নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে পারবেন এমনটাই দাবী তাদের।

 


                                           

 



আজকের প্রশ্ন