বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ১১ জুলাই, ২০১৮, ১১:২১:২৬

খালেদা ছাড়া নির্দলীয় সরকারের অধীনেও ‘নির্বাচনে যাবে না’ বিএনপি

খালেদা ছাড়া নির্দলীয় সরকারের অধীনেও ‘নির্বাচনে যাবে না’ বিএনপি

ঢাকা: দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বয়কট করা বিএনপি একাদশ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কথা অনেক আগে থেকেই জানান দিয়ে আসছে। এতদিন দলটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে অনড় ছিল। কিন্তু কারাবন্দী চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি পেতে দেরি হওয়ায় সেই অবস্থানেও পরিবর্তন এসেছে। দলের চেয়ারপারসনকে ছাড়া নির্দলীয় সরকারের অধীনেও নির্বাচনে যেতে চায় না তারা।

প্রিয়.কমের সঙ্গে একান্ত আলাপকালে এমন তথ্য জানিয়েছেন বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের দায়িত্বশীল কয়েকজন নেতা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনমুখী একটি রাজনৈতিক দল। নির্বাচনের ব্যাপারে সবসময় ইতিবাচক। তাই গণতন্ত্রের স্বার্থে স্থানীয় পর্যায়ের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। কিন্তু সেখানেও দেখা যাচ্ছে, বর্তমান সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীনে দেশে নির্বাচনের যে পরিবেশ, তাতে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন কখনো সম্ভব হবে না। তাই আগামী একাদশ নির্বাচন হতে হবে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। তারাই নির্বাচনকালীন সরকার হবে, যাদের নির্বাচনের ফলাফলের প্রতি কোনো স্বার্থ থাকবে না।’

এক প্রশ্নের জবাবে মোশাররফ বলেন, ‘প্রথমত শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি। শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে অংশ নিলে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিত বিএনপি। দ্বিতীয়ত দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী রেখে নির্বাচনে অংশ নিবে না বিএনপি। শুধু তাই নয়, খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্দলীয় সরকারের অধীনেও নির্বাচনে যাবে কি না, তাও নতুন করে ভাবনায় রয়েছে।’

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বয়কট করে বিএনপি। শুধু বয়কটই নয়; নির্বাচন প্রতিহত করারও ঘোষণা দিয়েছিল দলটি। এরপর দীর্ঘদিন নির্দলীয় সরকারের দাবি জানিয়ে এলেও গত ৮ ফেব্রুয়ারি দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাবন্দী হওয়ার পর ভাবনা বদলেছে।

দলটির নেতাদের ভাষ্য, আগে খালেদা জিয়ার মুক্তি, পরবর্তী সময়ে নির্বাচনের ভাবনা। কারণ নির্দলীয় সরকার প্রতিষ্ঠা, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার একই সুতায় গাঁথা।

এ বিষয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘বিএনপির প্রথম দাবি নির্দলীয় সরকার, নির্দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন। নির্দলীয় সরকার প্রতিষ্ঠা হলে ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) দ্রুতই কারামুক্তি পাবেন বলে আমরা মনে করছি। কারণ বর্তমান সরকার রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আদালতের ওপর প্রভাব বিস্তার করে তার জামিন আটকে রাখছে। নির্দলীয় সরকার প্রতিষ্ঠা হওয়ামাত্রই সকল সংকট, সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল আগামী অক্টোবরের শেষের দিকে ঘোষণা করা হতে পারে। সে জন্য সংশ্লিষ্ট ভোটার তালিকা ও ভোটার সিডি প্রস্তুত করার নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনাররা।

১০ জুলাই নির্বাচন কমিশনের ৩২তম সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নির্বাচন কমিশনের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এ তথ্য জানান।

সেই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে গত সোমবার এক অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানিয়েছিলেন, খালেদা জিয়াকে ছাড়া এই দেশে কোনো জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে না; নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না।

খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) ছাড়া কোনো নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি। খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করেই বিএনপি নির্বাচনে যাবে এবং সেই নির্বাচনের জন্য বর্তমান অনির্বাচিত সংসদ ভেঙে দিতে হবে, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে হবে, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। মোট কথা, খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী কিংবা নির্বাচনের বাইরে রেখে নির্দলীয় সরকার প্রতিষ্ঠা হলেও সেই নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি।’

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন



আজকের প্রশ্ন