শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ০৪ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:২১:২৩

৪৫ বছর বয়সে ৬০ বিয়ে নিয়ে তোলপাড়!

৪৫ বছর বয়সে ৬০ বিয়ে নিয়ে তোলপাড়!

জামালপুর: একে একে ৬০টি বিয়ে করে সবার মাথা ঘুরিয়ে দিয়েছেন জামালপুরের ইসলামপুরের গোয়ালের চর ইউপির সভারচর গ্রামের আবু বক্কর। তাও আবার ৪৫ বছর বয়সে।

এলাকার মানুষ তাকে প্রতারক হিসেবে চিনলেও তার ৬০ বিয়ের কথা শুনে সবাই হতবাক। অবশেষে এই প্রতারক ধরা পড়েছে নেত্রকোনার পূর্বধলা গ্রামের মাস্টার্সে অধ্যায়নরত রোজী খানমের মামলার জালে।

রোজী খানম ওই বক্করের ৬০ নম্বর স্ত্রী। তার করা মামলায় শনিবার রাতে নিজ বাড়ি থেকে বক্করকে আটক করে পুলিশ। ধরা পড়ার পর একে একে বেড়িয়ে আসে বক্করের বিয়ে প্রতারণার সব কাহিনী।

আটক বক্কর একই গ্রামের সভারচর গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে। রোজী খানমের আত্মীয়ের পূর্ব পরিচিত হওয়ায় ওই এলাকায় যাতায়াত করতো বক্কর।

সে ওষুধ কোম্পানি ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালের জেলা এরিয়া ম্যানেজার পরিচয় দিত। অবিবাহিত পরিচয় দিয়ে গত আগস্টে নাম শাহিন আলম, বাবা আকরাম, গ্রাম-কুতুবেরচর, সাধুরপাড়া, বকশীগঞ্জ ঠিকানা ব্যবহার করে রোজীকে বিয়ে করে।

সেই থেকে রোজীর বাড়িতে বসবাস করে বক্কর। এ সময় রোজীর পরিবারের কাছে দুই লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। এতে রোজীর পরিবার অপারগতা প্রকাশ করে।

পরে বক্কর কৌশলে শ্যালককে ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি দেয়ার কথা বলে শ্বশুরের কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দেয়। এর কয়েকদিন পর শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়।

পরে স্ত্রী রোজীর পরিবার খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে বিয়ের নামে প্রতারণা করেছে বক্কর। বক্কর জানায়, সে ৬০টি বিয়ে করলেও সাত সন্তানের জনক।

শুধু টাকার লোভে বিয়ে করেছে। টাকা পেলেই ফেলে এসেছে স্ত্রীদের। বক্কর পেশায় ব্যবসা কোথাও রিপ্রেজেন্টেটিভ, কোথাও উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, অবিবাহিত, স্ত্রী মারা গেছে এসব কথা বলে বিভিন্ন নাম ঠিকানা ব্যবহার করে বিয়ে করতো।

নিজ উপজেলা ইসলামপুরের ঠিকানা সে কখনই ব্যবহার করতো না। বর্তমানে নিজ বাড়িতে প্রথম স্ত্রী সাজেদা বেগমসহ দুই স্ত্রী ও সাত সন্তান রয়েছে।

ইসলামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) আনছার আলী জানান, পূর্বধলা থানায় স্ত্রী রোজী খানমের মামলায় ইসলামপুর থানা পুলিশের সহায়তায় তাকে আটক করা হয়েছে। প্রতারণা করে বক্কর প্রায় ৬০টি বিয়ে করেছে। এটা সে নিজেই স্বীকার করেছে। এলাকায় তাকে সবাই চিটার বক্কর বলেই চেনে।



আজকের প্রশ্ন