বুধবার, ০১ এপ্রিল ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৪ মার্চ, ২০২০, ০৯:৪৫:৫৫

‘মধ্যরাতে ডিসি অফিসে নিয়ে সাংবাদিক আরিফকে চোখ বেঁধে বিবস্ত্র করে পেটানো হয়’

‘মধ্যরাতে ডিসি অফিসে নিয়ে সাংবাদিক আরিফকে চোখ বেঁধে বিবস্ত্র করে পেটানো হয়’

কুড়িগ্রাম :কাবিখা, মোবাইল কোর্টসহ কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসকের নানা অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি সংবাদ করেছিলেন সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম। এসব সংবাদের জেরেই মধ্য রাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে।

শুধু কারাদণ্ড নয়, তুলে নিয়ে যাওয়ার পর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে চোখ বেঁধে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করা হয়েছে। সে নির্যাতনের ঘটনার পুরো দৃশ্য ভিডিও করে একজন।  

শনিবার (১৪ মার্চ) কুড়িগ্রাম কারাগারে আটক আরিফের সঙ্গে দেখা করতে গেলে স্ত্রী মোস্তারিমা সরদার নিতুর কাছে এসব অভিযোগ করেছেন তিনি (আরিফ)। এসময় রাতের ঘটনায় নেতৃত্ব দানকারী কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের আরডিসি (সিনিয়র সহকারী কমিশনার-রাজস্ব) নাজিম উদ্দিনকে চিনে ফেলেন নিতু। তিনি সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, আরডিসি নাজিম উদ্দিনই তার বাসায় হামলার নেতৃত্ব দিয়েছেন।

এর আগে শুক্রবার (১৩ মার্চ) রাতে মাদক বিরোধী টাস্কফোর্সের অভিযানের কথা বলা অভিযান চালায় জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট। তবে ওই অভিযানে একমাত্র সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম ছাড়া আর কাউকে আটক করা বা সাজা দেয়া হয়নি।

আরিফুল ইসলামের স্ত্রী মোস্তারিমা সরদার নিতু বলেন, ‘শুক্রবার গভীর রাতে অনেক লোকজন এসে আমাদের বাসার দরজা খুলে দিতে বলে। একপর্যায়ে ওনারা ধাক্কা দিয়ে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে সাত আটজন মিলে আমার স্বামীকে মারতে শুরু করে। তাদের হাতে রাইফেল, পিস্তল সবই ছিল।’

‘তখন বারবার বলছিল, কয়দিন ধরে খুব জ্বালাচ্ছিস। গুলি করে দেবো। বলে আর মারে। ওর গায়ে কোন কাপড় ছিল না। আশেপাশের বাড়ির কাউকে সামনে এগোতে দেয়নি। সারা রাস্তা মারতে মারতে নিয়ে গেছে। কোথায় নিয়ে যাচ্ছে, তাও বলেনি। অনেকক্ষণ খোঁজাখুঁজির পরে জানা গেল, তাকে নাকি সঙ্গে সঙ্গেই মাদকের মামলায় এক বছরের সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়ে দিয়েছে।’

আরিফের স্ত্রীর আরও বলেন, তুলে নিয়ে যাওয়ার পর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে চোখ বেঁধে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করা হয়েছে। সে নির্যাতনের ঘটনার পুরো দৃশ্য ভিডিও করে একজন।  শনিবার (১৪ মার্চ) কুড়িগ্রাম কারাগারে আটক আরিফের সঙ্গে দেখা করতে গেলে তার কাছে এসব অভিযোগ করেছেন আরিফ।

আরিফুল ইসলামের সহকর্মীরা বলেন, ‘জেলা প্রশাসক ও প্রশাসনের অনিয়মের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি প্রতিবেদন প্রকাশ করার কারণে প্রতিশোধমূলকভাবে ধরে এনে সাজানো মামলায় সাজা দেয়া হয়েছে।’

তবে এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলছেন, জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে সংবাদ করার কারণে প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা হিসাবে এখানে কোন ঘটনা ঘটেনি।

আরিফুল ইসলাম কাজ করেন বাংলা ট্রিবিউনে। অনলাইনটির নির্বাহী সম্পাদক হারুন উর রশীদ বলেন, ‘আরিফুল ইসলাম জেলা প্রশাসকের অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি সংবাদ করেছিলেন। এর মধ্যে একটি হচ্ছে কাবিখার টাকায় একটি পুকুর সংস্কার করে জেলা প্রশাসক নিজের নামে নামকরণ করেছিলেন। এছাড়া কুড়িগ্রামের মোবাইল কোর্টকে যেভাবে ব্যক্তি স্বার্থে ব্যবহার করা হয়, তা নিয়েও তিনি সংবাদ করেছিলেন।' 'আরেকটি খবরের বিষয়ে তিনি খোঁজখবর নিচ্ছিলেন। সে কারণেই তাকে এভাবে আটক করে সাজা দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আরিফের বাড়িতে কোন তল্লাশি চালানো হয়নি। কিন্তু জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নেয়ার পর তার বিরুদ্ধে আধা বোতল মদ আর দেড়শ গ্রাম গাজা উদ্ধারের গল্প বলা হচ্ছে। অথচ আরিফুল সিগারেটও খায় না। এ থেকেই বোঝা যায়, এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আর প্রতিশোধমূলকভাবে করা হয়েছে।’

তবে কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীন বলেন, ‘আমাদের নিয়মিত মোবাইল কোর্ট হয়, আমরা শিডিউল করে দেই। অনেক সময় তারা মাদক, চোরাচালানের টাস্কফোর্সের অভিযানেও যায়, যেখানে ম্যাজিস্ট্রেট থাকেন। গত রাতেও এরকম কয়েকটি অভিযান চালানো হয়েছে। সেই অভিযানে ওই ব্যক্তিকে আটক করে সাজা দেয়া হয়েছে।’

জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ কারণে এই অভিযান বলে যে অভিযোগ উঠেছে, সেই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যদি ওই ঘটনাই হতো, সেটা তো একবছর আগের কথা। এখানে আমি কিছু কাজ করেছি, সংস্কার কাজ.. সেখানে ওরা বলছে যে, আমার নামে....নামের কোন লক্ষণই নেই, সেটা আলাদা বিষয়, সেখানে সে স্যরি বলেছে বলে আমরা তো আর কিছুই বলি নাই। ওইটা যদি কোন বিষয় হতো, তাহলে তো তখনি আমরা কোন অ্যাকশনে যেতাম। এখন ওইটার সঙ্গে এইটা মিলাচ্ছে তারা (সাংবাদিকরা)।’

মোবাইল কোর্ট এভাবে অভিযান চালাতে পারে কিনা, জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘আসলে অভিযানটি চালিয়েছে টাস্কফোর্স। সেখানে যদি মোবাইল কোর্টে শিডিউলভুক্ত মামলার বিষয় থাকে, সেক্ষেত্রে তারা দিতে পারে।’

কিন্তু যেভাবে একজন সাংবাদিককে মধ্যরাতে ধরে আনা, আধ বোতল মদ আর দেড়শ গ্রাম গাজার মামলায় একবছরের সাজা দেয়া, এটা বেশ নজিরবিহীন ঘটনা। তিনি তাই মনে করেন কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘টাস্কফোর্সের টোটাল টিম বলতে পারবে, আসলে ব্যাপারটা কী? আমি তো ঘটনাস্থলে ছিলাম না।’

 

এই বিভাগের আরও খবর

  করোনায় মধ্যবয়সীদের মৃত্যুঝুঁকিও কম নয়: গবেষণা

  করোনায় প্রবাসে ৫৩ বাংলাদেশির মৃত্যু, যুক্তরাষ্ট্রে ৩২

  মৃত্যুর সংখ্যায় চীনকে ছাড়ালো যুক্তরাষ্ট্র-ফ্রান্স

  চট্টগ্রামে আইসোলেশনে থাকা নারীর মৃত্যু

  প্রতি মিনিটে করোনায় মারা যাচ্ছে ১০ জন!

  করোনায় ফের রেকর্ড: ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারিয়েছেন ৪৩০০, নতুন আক্রান্ত ৭২ লক্ষাধিক

  শরীয়তপু‌রে আইসোলেশনে থাকা যুব‌কের মৃত্যু, ৫ বাড়ি লকডাউন

  ভাইরাস নিয়ে ফেসবুকে গুজব, ২৩ জনকে জরিমানা

  সোহরাওয়ার্দীতে করোনা সন্দেহে আইসোলেশনে ভর্তি রোগীর মৃত্যু

  ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে পাকিস্তান

  এশিয়ায় করোনা মহামারি শেষ হতে এখনও অনেক দেরি: ডব্লিউএইচও



আজকের প্রশ্ন