বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ২০ মার্চ, ২০২০, ১২:৫২:২২

দেশেই পাপিয়ার ৫ কোটি টাকার সন্ধান

দেশেই পাপিয়ার ৫ কোটি টাকার সন্ধান

ঢাকা: বহুল আলোচিত বহিষ্কৃত যুব মহিলা লীগ নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়ার ৫ কোটি ১০ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদের সন্ধান পাওয়া গেছে। অটো গ্যারেজের মালিকের মেয়ে। এক সময় তাদের তেমন কিছুই ছিল না। কিন্তু গত ৫ বছরে অর্থ বিত্ত অর্জন করে আগুল ফুলে কলা গাছ হয়ে গেছেন। গাড়ি, বাড়ি, ফ্ল্যাট কিনে বনেছেন শত কোটি টাকার মালিক। দেশে গাড়ির ব্যবসার পাশাপাশি বিদেশে দিয়েছেন বার। আর সবই করেছেন অন্যায় ও অপকর্মের উপর ভর করে। ধনাঢ্য ব্যবসায়ীদের ব্ল্যাকমেইল, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা ও দেহ ব্যবসাই তাদের মূল পেশা।

পাপিয়ার অপরাধ জগতের সহায়তাকারী হিসেবে এরই মধ্যে সিআইডি ৫ জনকে চিহ্নিত করেছে। দু-একদিনের মধ্যে পাপিয়ার সঙ্গে এই ৫ জনকে আসামি করে মামলা করা হবে।
বৃহস্পতিবার তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মামলার অনুমোদনও দেয়া হয়েছে। গুলশান থানায় মামলা হতে পারে। পুলিশের অতিরিক্ত আইজি ও সিআইডি প্রধান চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানায়, মামলার এজাহার প্রায় প্রস্তুত। এজাহারে ৫ কোটি ৯ লাখ ৭৭ হাজার ৭৬১ টাকা লন্ডারিংয়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পাপিয়া রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে ৪ মাস ১০ দিন অবস্থান করেন। গত বছর ১২ অক্টোবর থেকে ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ওই অভিজাত হোটেলে তার নামে বরাদ্দ কক্ষের সংখ্যা ছিল ২৬টি। তিনি হোটেল বিলই দেন ৩ কোটি ২৩ লাখ ২৪ হাজার ৭৬১ টাকা। এছাড়া ঢাকায় কার এক্সচেঞ্জ শোরুমে তার বিনিয়োগের পরিমাণ এক কোটি টাকা, কেএমসি এন্টারপ্রাইজ ও কেএমসি কার ওয়াশ অ্যান্ড সলিউশন নামের একটি প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করেছেন ২০ লাখ টাকা। এছাড়া রাজধানীর ইন্দিরা রোডের একটি ফ্ল্যাটে বছরে ৬ লাখ টাকা ভাড়া পরিশোধ করেছেন এবং পাপিয়ার কাছে নগদ ৬০ লাখ টাকাও পাওয়া যায়।

এর বাইরে এজাহারে পাপিয়ার দুটি সঞ্চয়ী, দুটি চলতি হিসাব এবং তিনটি স্থায়ী আমানতের কথা উল্লেখ করা হচ্ছে। এতে অর্থের পরিমাণ কয়েক লাখ টাকা। এসবই এজাহারে উল্লেখ করা হচ্ছে। পাপিয়া দম্পতির বৈধ কোনো আয় না থাকলেও তারা বিপুল পরিমাণ অর্থ অর্জন করেছেন।

তবে তাদের অবৈধ আয়ের একটি বড় অংশ বিদেশে পাচার করেছেন। তবে ঠিক কি পরিমাণ অর্থ তারা দেশের বাইরে পাচার করেছেন তা তদন্তে বেরিয়ে আসবে। এজাহারে তাদের যেসব স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের খোঁজ পাওয়া গেছে তাও উল্লেখ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

গত ২২ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে দেশত্যাগের সময় পাপিয়াসহ চারজনকে আটক করে র‌্যাব। গ্রেফতার অন্যরা হলেন পাপিয়ার স্বামী মফিজুর রহমান, সাব্বির খন্দকার ও শেখ তায়িবা নূর।

এরপর তাদের নিয়ে ফার্মগেট ও নরসিংদীর বাসায় অভিযান চালানো হয়। র‌্যাবের এ অভিযানে ১টি বিদেশি পিস্তল, ২টি পিস্তলের ম্যাগজিন, ২০টি পিস্তলের গুলি, ৫ বোতল দামি বিদেশি মদ, ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, ৫টি পাসপোর্ট, ৩টি চেকবই, বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা, বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি ভিসা ও এটিএম কার্ড উদ্ধার করে।

পরে তাদের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করা হয়। প্রথমে থানা পুলিশ তদন্ত করলেও ২৬ ফেব্রুয়ারি তিনটি মামলার তদন্তভার ন্যস্ত করা হয় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওপর। পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক নির্দেশে ১০ মার্চ মামলা তিনটির তদন্ত র্যাবের হাতে ন্যস্ত করা হয়।

১১ মার্চ পাপিয়া দম্পতিকে আদালতে হাজির করে তিন মামলায় ফের ১০ দিন করে ৩০ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন জানায় র‌্যাব। পরে আদালত তাদের ৫ দিন করে ১৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এই বিভাগের আরও খবর

  রাজধানীতে ৭ হাসপাতাল ঘুরেও চিকিৎসা মেলেনি অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষিকার, অবশেষে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু

  সর্দি-জ্বর নিয়ে সোহরাওয়ার্দীর আইসোলেশনে ভর্তি দুজনের মৃত্যু

  করোনায় মৃত ব্যক্তি থেকে করোনা ছড়ায় না: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  মৃত্যুর মিছিলে ৭৮ বাংলাদেশি, যুক্তরাষ্ট্রেই ৫০ প্রবাসী

  দেশে করোনা সংক্রান্ত তথ্যের স্বচ্ছতা নিশ্চিতের দাবি জানিয়ে ৮৫ বিশিষ্ট নাগরিকের বিবৃতি

  চীনের দেয়া আক্রান্ত-মৃতের সংখ্যা ভুয়া: গোয়েন্দা রিপোর্ট

  তথ্য গোপন করে মহামারি এড়ানো যাবে না: রিজভী

  বাংলাদেশে আরও ২ জন করোনা রোগী শনাক্ত, মোট ৫৬

  লাশের শহরে পরিণত হয়েছে নিউইয়র্ক!

  করোনা আতংকের মধ্যেই বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশী নিহত

  জ্বর-ঠান্ডা-কাশি নিয়ে করোনা টেস্ট, অতঃপর একা নির্জন কারাকক্ষে পাপিয়া



আজকের প্রশ্ন