শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ,২০১৭

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭, ০৩:২৩:১৮

জার্মানিকে দূরে ঠেলে ইসরাইলকে বন্ধু করছে সৌদি!

জার্মানিকে দূরে ঠেলে ইসরাইলকে বন্ধু করছে সৌদি!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইরান ও লেবানন ইস্যুতে সৌদি আরব জোট নতুন মোড় নিয়েছে। ইরানের বিরুদ্ধে কাজ করতে সৌদি আরবের দিকে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ইসরাইল। অন্যদিকে লেবানন ইস্যুতে সৌদি আরব তার পুরোনো মিত্র জার্মানির প্রতি অসন্তুষ্ট হয়ে পড়েছে।

 

রিয়াদ থেকে লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ আল হারিরি পদত্যাগের ঘোষণার পর ইরান সৌদি আরবের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে আসছে। ইরান সরকারের বক্তব্য হারিরিকে সৌদি আরব বাধ্য করেছে ও তাকে আটক করে রাখা হয়েছে। যদিও সৌদি আরব এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

 

ইরানের বিরুদ্ধে সৌদি আরবকে ঘনিষ্ঠভাবে সহযোগিতা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ইসরাইল। এই লক্ষ্যে রিয়াদের সঙ্গে ইরান সম্পর্কিত গোয়েন্দা তথ্য আদান-প্রদানেরও আগ্রহ প্রকাশ করেছে তেল আবিব। সৌদি ওয়েবসাইট এলাফকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে এসব কথা জানিয়েছেন ইসরাইলি সেনাপ্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল গাদি এইসেঙ্কট।

 

সৌদি আরবের চলমান সঙ্কট নিয়ে লন্ডনে আজ শনিবার দিনব্যাপী সম্মেলন শুরু হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ওই সাক্ষাতকারে ইরানকে ‘গুরুতর হুমকি’ আখ্যা দিয়েছেন ইসরাইলি সেনাপ্রধান। সৌদিকে খুব কাছ থেকে সহযোগিতা দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি।

 

এদিকে লেবানন ইস্যুতে জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিগমার গ্যাব্রিয়েলের ‘অসত্য’ মন্তব্যে কারণে আজ শনিবার জার্মানিতে নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূতকে পরামর্শের জন্য দেশে ডাকা হয়েছে। এছাড়া সৌদি আরবে নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূতকেও প্রতিবাদলিপি পেশ করবে সৌদি সরকার।

 

সৌদি আরব লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরিকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আটকে রেখেছে এমন বক্তব্য দিয়েছেন জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিগমার গ্যাব্রিয়েল। সৌদি আরবের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে রিয়াদের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, এধরণের ঘটনা সৌদি আরবের বাদশাহর সিদ্ধান্তকে অস্বীকার করে। এ অঞ্চলে স্থিতিশীলতা আনতে এ বক্তব্য কোনো সাহায্য করবে না।

 

কর্তৃপক্ষ আরো বলেন, এই বক্তব্য সৌদি আরবকে বিস্মিত করেছে। আর মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে করা এধরণের বক্তব্য অঞ্চলে স্থিতিশীলতা আনবে না। এর আগে সৌদি আরব সরকার তার বিশ্বস্ত সহযোগী হিসেবে বন্ধুত্বপূর্ণ জার্মানি সরকারকে বিবেচনা করে এসেছে।

 

গতকাল শুক্রবার একটি টুইট বার্তায় জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে লেবাননের পদত্যাগী প্রধানমন্ত্রী সাদ আল হারিরি বলেন, ‘যারা বলেন আমি সৌদি আরবে আটক রয়েছি এবং দেশ ছাড়ার অনুমতি নেই-তা মিথ্যা। আমি এখন বিমানবন্দরের পথে রয়েছি।’

 

তিনি গত ৩ নভেম্বর থেকে সৌদি আরবে ছিলেন। ৪ নভেম্বর রিয়াদ থেকে টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন তিনি। ইরান ও ইরান সমর্থিত লেবাননের সংগ্রামী সংগঠন হিজবুল্লাহ, হারিরির রাজনৈতিক দল এবং লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিশেল আউনও এ আকস্মিক পদত্যাগ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তবে পদত্যাগের কয়েকদিন পর সাদ হারিরি জনসমক্ষে ভাষণ দিয়ে নিজেকে ‘মুক্ত’ দাবি করেন।

 

সূত্র: গালফ নিউজ, আল জাজিরা।

আজকের প্রশ্ন

কিছু সহিংসতা ও অনিয়ম হলেও সামগ্রিকভাবে ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে—সিইসির এই বক্তব্যের সঙ্গে আপনি একমত?