বুধবার, ১৯ জুন ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ২৩ মে, ২০১৯, ০১:০৭:৪০

গণনায় এগিয়ে মোদি-অমিত, পিছিয়ে সোনিয়া-রাহুল

গণনায় এগিয়ে মোদি-অমিত, পিছিয়ে সোনিয়া-রাহুল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: শুরু হয়েছে ভারতের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ভোট গণনা। ভারতের ৫৪২টি আসনে চলছে ভোট গণনা। সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়েছে গণনা। প্রথমে পোস্টাল ব্যালটের গণনা শুরু হয়। তারপর শুরু হয়েছে ইভিএম গণনা।
প্রাথমিকভাবে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট এগিয়ে রয়েছে ২৮৩টি আসনে। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট এগিয়ে রয়েছে ১২৩টি আসনে। অন্যরা এগিয়ে ১১৪টি আসনে।
প্রাথমিক গণনায় উত্তরপ্রদেশের বারাণসী কেন্দ্র থেকে এগিয়ে রয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গুজরাটের গান্ধীনগর কেন্দ্র থেকে এগিয়ে রয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ।
উত্তরপ্রদেশের আমেথি কেন্দ্র থেকে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী প্রথমে এগিয়ে থাকলেও পরে পিছিয়ে পড়েছেন। সেখানে এগিয়ে গিয়েছেন বিজেপি প্রার্থী স্মৃতি ইরানি। রায়বেরিলি কেন্দ্র থেকে প্রথমে এগিয়ে থাকলেও পরে পিছিয়ে পড়েছেন ইউপিএ চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধী। এই দুটি কেন্দ্রকে গান্ধী পরিবারের ‘খাসতালুক’ বিবেচনা করা হয়।

রাহুল গান্ধী গত পনের বছর ধরে আমেথি কেন্দ্রের সংসদ সদস্য। এর আগে তাঁর বাবা প্রয়াত রাজীব গান্ধী ও মা সোনিয়া গান্ধীও এই কেন্দ্র থেকে জিতে সংসদে গেছেন।
রাহুল গান্ধী অবশ্য এবার শুধু আমেথি নয়, কেরালা রাজ্যের ওয়েনাড কেন্দ্র থেকেও লড়ছেন। সেখানে অবশ্য প্রাথমিক গণনায় তাঁর এগিয়ে থাকার আভাস পাওয়া গেছে।
উত্তরপ্রদেশের সুলতানপুর কেন্দ্র থেকে এগিয়ে রয়েছেন বিজেপি প্রার্থী মেনকা গান্ধী।
যদিও এই এগিয়ে বা পিছিয়ে থাকা কেবলই গণনার প্রাথমিক পর্যায়ে। এখনো বাকি অনেকটা সময়।
গত ১৯ মে সাত ধাপে ভারতের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ হয়। ওই দিন সন্ধ্যা থেকেই বিভিন্ন জরিপ সংস্থা বুথফেরত ফল প্রকাশ করতে থাকে। অধিকাংশ জরিপেই আভাস মিলেছে, দিল্লির ক্ষমতা ফের বিজেপির হাতে যাচ্ছে। তবে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে কর্মীদের বলা হয়েছে, এ ধরনের জরিপে তাঁরা যেন হতাশ না হন।

লোকসভার মোট ৫৪৩টি আসনের মধ্যে এবার ৫৪২টি আসনে ভোট হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে তামিলনাড়ু রাজ্যের একটি আসনে এবার ভোট হয়নি। একক সংখ্যাগরিষ্ঠ পেতে গেলে কোনো দল বা জোটকে ম্যাজিক সংখ্যা ২৭২টি আসন পেতে হবে।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?