শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ০৭:৫৮:৩৯

মশায় ব্যাকটেরিয়া ঢুকিয়ে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ভিয়েতনামের সফলতা

মশায় ব্যাকটেরিয়া ঢুকিয়ে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ভিয়েতনামের সফলতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : এ বছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ডেঙ্গু ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এর প্রভাবে ফিলিপাইনে কয়েকশ মানুষ মারা গেছেন।

ভিয়েতনামে আগের বছরের তুলনায় ডেঙ্গু তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। মালয়েশিয়া, মায়ানমার এবং কম্বোডিয়ার হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা অন্যান্য বছরের তুলানায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় এবং দক্ষিণ এশিয়ায়ও ডেঙ্গুর প্রকোপ বৃদ্ধি পেয়েছে আগের তুলনায় অনেক বেশি। বাংলাদেশেও ডেঙ্গু প্রকট আকার ধারণ করেছে।

তবে একদল বিজ্ঞানী ডেঙ্গু মোকাবিলার জন্য ডেঙ্গু প্রতিরোধী একটি ব্যাকটেরিয়া আবিষ্কার করেছেন। এটি দিয়ে শেষ পর্যন্ত ডেঙ্গু ভাইরাসের মোকাবিলা করা যাবে।

ডেঙ্গু ভাইরাসকে ধ্বংস করা যাবে অতি সহজে। ওয়ার্ল্ড মস্কোইট প্রোগ্রাম (ডাব্লুএমপি) একটি পদ্ধতির সূচনা করেছে। এর মাধ্যমে পুরুষ ও মহিলা এডিস এজিপ্টি মশা শরীরে ওলবাচিয়া নামে একটি ব্যাকটেরিয়া ঢুকিয়ে দেওয়া হবে।

এর পর কয়েক সপ্তাহের মধ্যে বাচ্চা মশা জন্মগ্রহণ করে ওলবাচিয়া ব্যাকটেরিয়া নিয়ে। যা ডেঙ্গু ভাইরাসের বাফার হিসাবে কাজ করবে। ওলবাচিয়া যদি এডিস মশার শরীরে ঢুকিয়ে দেওয়া যায়, তাহলে ভাইরাসের বিরুদ্ধে মশার শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। ভাইরাসের বৃদ্ধিও ব্যহত হয়। এটি কেবল ডেঙ্গু নয়, জিকা, চিকুনগুনিয়া এবং হলুদ জ্বর প্রতিরোধে কাজ করবে।

এই পদ্ধতিতে, এডিস মশাকে ওলবাচিয়া ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রমিত করা হয়। ওলবাচিয়া সংক্রমিত পুরুষ মশাটি স্ত্রী মশার সঙ্গে মিলিত হলে মশা জন্মাতে পারে না এমন ডিম তৈরি হয়। অপরদিকে স্ত্রী মশা ওলবাচিয়া সংক্রমিত হলে তার থেকে জন্ম নেওয়া অন্য মশাও ওলবাচিয়া সংক্রমিত হয়েই জন্মাবে। এভাবে স্বাভাবিক এডিস মশার জায়গা দখল করে নেয় ওলবাচিয়া সংক্রমিত এডিস মশা।

পদ্ধতিটি আবিষ্কার করা পর এটি নিয়ে চলছে গবেষেণা। প্রথমে এই পদ্ধতিটি নিয়ে গবেষণা করা হয় উত্তর অস্ট্রেলিয়ায়। এরপরেই আরো দশটি দেশে গবেষণা চালানো হয়। গবেষণা চালানোর পর প্রথম ফলাফল আসে ভিয়েতনাম থেকে। বলা হচ্ছে, ভিয়েতনামে গবেষণার ফল অনেকটাই ভালো। সেখানে বিজ্ঞানীরা প্রাথমিক সফলতা পেয়েছেন।

ভিয়েতনামের ওয়ার্ল্ড মস্কোইট প্রোগ্রামের (ডাব্লুএমপি) সমন্বয়কারী নুগেইন বিন নুগেইন বলেন, এই পদ্ধতিটি চালু করার পর আমরা অনেক ভালো ফল পেয়েছি। আমরা দেখছি যে দেশটিতে ডেঙ্গুর পরিমাণ উল্লেখযোগ্যভাবে কমছে।

দক্ষিণ ভিয়েতনামের জনাকীর্ণ জেলা বিনহ লুংয়েতে প্রায় পাঁচ লাখ ওলবাচিয়া ব্যাকটেরিয়া আক্রান্ত মাশা ছাড়া হয়। নুগেইনের দল বিনামূল্যে এবং নিজেদের পরীক্ষার জন্য মশাগুলো ছেড়েছিল গত বছর। পরীক্ষায় তারা অনেকটাই সফল হয়েছিলেন। পরীক্ষা শুরুর পর থেকেই বিনহ লুংয়েতে নাহা ট্রাংয়ের তুলনায় ৮৬ শতাংশ ডেঙ্গু মশা কমে যায়।

এদিকে বিশেজ্ঞরা বলছেন, ওলবাচিয়া নামে ব্যাকটেরিয়াটি নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী পরীক্ষা এবং আরো বড় ধরনের গবেষণা করা প্রয়োজন।

সূত্র: এএফপি।

এই বিভাগের আরও খবর

  নিখোঁজ ২০ হাজার তামিল মারা গেছে, স্বীকার করলো শ্রীলঙ্কা

  ন্যাটো জোটে এস-৪০০ ব্যবহার করবে না তুরস্ক

  উইঘুর প্রশ্নে ‘চীন ভালো বন্ধু’ বললেন ইমরান

  গজনভি ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালাল পাকিস্তান

  ‘ইরানের নতুন কমান্ডারকেও একই পরিণতি বরণ করতে হবে’

  কিয়ানিকেও সোলাইমানির ভাগ্য বরণ করতে হবে: যুক্তরাষ্ট্র

  ট্যাংকার বিমান বিধ্বস্তে ৩ মার্কিন নাগরিক নিহত

  মিয়ানমারসহ ৭ দেশের নাগরিকদের জন্য মার্কিন ভিসা নিষিদ্ধ হচ্ছে

  পারমাণবিক চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে ইরান!

  চীনে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ১৭, উহান শহরে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ

  রোহিঙ্গা গণহত্যা: আইসিজেতে গাম্বিয়ার মামলার অন্তর্বর্তী আদেশ আজ

আজকের প্রশ্ন

ঢাকার সিটি নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হলে জনগণের রায় প্রতিফলিত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আপনিও কি তাই মনে করেন?