রবিবার, ২৬ জানুয়ারী ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১১:৩৮:৪৫

গুয়াহাটিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনে নিরাপত্তা জোরদার

গুয়াহাটিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনে নিরাপত্তা জোরদার

ঢাকা: ভারতের আসাম রাজ্যের রাজধানী গুয়াহাটিতে বাংলাদেশের অ্যাসিস্ট্যান্ট হাইকমিশনারের গাড়িতে হামলার ঘটনায় বৃহস্পতিবার ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে প্রতিবাদ জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। চলমান এ পরিস্থিতিতে গুয়াহাটিতে বাংলাদেশী হাইকমিশন ও এতে কর্মরতদের নিরাপত্তা বাড়িয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ভারতের রাষ্ট্রদূত রিভা গাঙ্গুলী দাসকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডেকে পাঠানো হয়। এ সময় ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব কামরুল আহসান গুয়াহাটিতে বাংলাদেশের অ্যাসিস্ট্যান্ট হাইকমিশনারের গাড়িতে হামলার প্রতিবাদ জানান। এ সময় গুয়াহাটিতে বাংলাদেশ মিশন ও সেখানে কর্মরতদের সুরক্ষা দেয়ার অনুরোধ জানান ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব।

এর জবাবে গুয়াহাটিতে বাংলাদেশ মিশন ও সেখানে কর্মরতদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে এরই মধ্যে স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছে বলে আশ্বস্ত করেন রিভা গাঙ্গুলী দাস।

ভারতের সংসদে নাগরিকত্ব (সংশোধন) বিল পাসের পর থেকে আসামসহ কয়েকটি রাজ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ অবস্থার মধ্যে গত বুধবার গুয়াহাটিতে বাংলাদেশের অ্যাসিস্ট্যান্ট হাইকমিশনার ড. শাহ মোহাম্মদ তানভীর মনসুরের গাড়িবহরে হামলা হয়। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম দ্য হিন্দু জানিয়েছে, বিমানবন্দর থেকে বাসভবনে যাওয়ার পথে নাগরিকত্ব বিল পাসের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারী উত্তেজিত জনতা এ হামলা চালায়। এছাড়া বাংলাদেশ মিশনের ৩০ গজের মধ্যে দুটি সাইনপোস্টও ভাংচুর করে জনতা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ভারতের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে অ্যাসিস্ট্যান্ট হাইকমিশন ভবন, কর্মরত ব্যক্তি ও তাদের পরিবারের জন্য বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিয়েছে। অ্যাসিস্ট্যান্ট হাইকমিশনারের গাড়িবহরে হামলা ও হাইকমিশনের সামনে ভাংচুরের বিষয়টিকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবে দেখছে সরকার।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে এর কোনো প্রভাব পড়বে না বলে মনে করছে মন্ত্রণালয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আজকের প্রশ্ন

ঢাকার সিটি নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হলে জনগণের রায় প্রতিফলিত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আপনিও কি তাই মনে করেন?