রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ,২০১৭

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ০৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ০১:৩৫:৫২

ভালোবাসাহীন সম্পর্কে কেন বাঁধা পড়ে আছেন আপনি?

ভালোবাসাহীন সম্পর্কে কেন বাঁধা পড়ে আছেন আপনি?

লাইফস্টাইল ডেস্ক : সবসময় খুব বেশী মানসিক চাপের মধ্যে আছেন, মানসিক অশান্তিতে আছেন। কিন্তু কারোর কাছেই কোন কথা বলতে পারছেন না। কারণ কিছু কথা থাকেই এমন যে কারোর কাছে বলতে গেলে নিজেরই খুব কষ্ট হয়। আর সেই মানসিক কষ্টের কারণ যদি হয় আপনার অশান্তিময়, অহেতুক টেনে নিয়ে যাওয়া ভালোবাসার সম্পর্ক, তবে তো বলার কিছুই নেই।

কেউ হয়তো জানেও না যে আপনার ভালোবাসার মানুষটার সাথে আপনি কতটা মানসিক অশান্তিতে আছেন। যে সম্পর্কটা আপনাকে এতোটা ভোগাচ্ছে, সেই সম্পর্কের মধ্যে নিজেকে তবে কেন বেঁধে রাখা? এর পেছনে যে ভুল ধারণা, যুক্তি এবং কারণগুলো আপনার মনের মধ্যে কাজ করে যা আপনাকে সামনে এগিয়ে যেতে দিচ্ছেনা, তারই কিছু পয়েন্ট এখানে তুলে ধরা হলো।

 

১/ আপনি অনেক বেশী লম্বা সময় নিয়ে চেষ্টা করছেন

মাসের পর মাস, এমনকি বছরের পর বছর ধরেই হয়তো আপনই চেষ্টা করে যাচ্ছেন আপনার ভালোবাসার সম্পর্ককে ঠিক করার জন্য। আপনার সকল ইচ্ছা, আপনার সকল মূল্যবান সময় ব্যয় করেও যখন আপনার ভালোবাসার সম্পর্ক ঠিক করতে পারছেন না, তখন বুঝতে হবে আপনি খুব ভুল জায়গায় চেষ্টা করছেন।

 

২/ আমরা খুব অল্পতে সময়েই নিজেকে বেঁধে ফেলি

বেশিরভাগ সময়েই আপনই এমন মনোভাব পোষণ করেন যে এখনকার এমন সম্পর্কটাই ঠিক আছে। অনেক সময় এমন হয় যে আমরা আমাদের বাজে সম্পর্কটাকেই টেনে নিয়ে যেতে চাই, কারণ আমরা ভাবি যে হয়তো এর চেয়ে ভালো কোন সম্পর্কে জড়ানো সম্ভব হবে না। অথবা, এর চাইতে ভালো কোন মানুষকে পাওয়া সম্ভব হবেনা। কিন্তু আমাদের ভুলটা এখানেই। দুনিয়াটা অনেক বড় এবং চারপাশেই বহু সম্ভাবনা। ভুল ভেবে ছোট কিছুতে নিজেকে বেঁধে ফেলাটা এক ধরণের বোকামি।

 

৩/ আমাকে ছাড়া সে কীভাবে থাকবে- এমন অপরাধবোধ ঝেড়ে ফেলুন

একটা অহেতুক ভালোবাসার সম্পর্ককে আমরা অনেক সময় সামনে টেনে নিয়ে যাই এটা ভেবে যে, অপরপক্ষ সম্পর্ক ভাঙন কে কীভাবে নিবেন। কিন্তু সত্যি কথা হলো, একটা অহেতুক সম্পর্ককে টেনে নিয়ে যাওয়াটা একটা বোঝা। সেখানে আপনই নিজে থেকে বের হয়ে আসলে আপনার সঙ্গীও সেটা থেকে বের হয়ে আসবে এবং কিছুদিনের মধ্যে সে ব্যপারটা কে মেনে নিয়ে স্বাভাবিক জীবনযাপনে অভ্যাস্ত হয়ে যাবে।

 

৪/ কিন্তু আমি তো তাকে ভালোবাসি!

কিন্তু আমি তো তাকে ভালোবাসি, এমন কথার ভিত্তিতে আমরা যে ভুলটা করি, একটা অসুখী সম্পর্কে আটকে থাকি। প্রশ্ন করতে পারেন, একটা ভালোবাসার সম্পর্কে কি ভালোবাসাই প্রধান না? হ্যা ভালোবাসা প্রধান, কিন্তু ভালোবাসাটাই সব নয়। পরস্পরের উপর যদি বিশ্বাস না থাকে, সম্মান না থাকে তবে শুধুমাত্র ভালোবাসার অনুভূতি নিয়ে একটা সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না।

 

৫/ একদিন নিশ্চয় সে বদলে যাবে- এমন ধারনা থেকে বের হয়ে আসুন

আপনই হয়তো খুব ভালো করেই জানেন যে আপনাদের ভালোবাসার সম্পর্কটা একেবারেই দায়সারা একটা সম্পর্ক হয়ে গেছে। ভালোবাসাটাও হয়তো শুধু আপনার দিক থেকেই আছে। কিন্তু তবুও আপনি অপেক্ষা করে আছেন একটা বোকা ধারণা মনের মধ্যে নিয়ে যে, আপনার সঙ্গী হয়তো বদলে যাবে! এখনকার এই সময়টা হয়তো বদলে যাবে। পুরো ব্যপারটিই হয়তো অন্যরকম হয়ে যাবে। কিন্তু বাস্তবতা অন্যরকম। এমন ব্যপার কখনোই ঘটে না। তাই আপনাকে নিজের ভালোর জন্যেই শক্ত হতে হবে।

 

৬/ আপনই ধরেই নিয়েছেন বর্তমান সম্পর্কের থেকে ভালো কিছু আপনি আর পাবেন না

যখনই আপনার বিষাক্ত সম্পর্ক থেকে বের হয়ে আসতে চেয়েছেন, তখনই হয়তো ভেবেছেন যে, আপনি হয়তো এমন সম্পর্কের যোগ্য। এর চেয়ে ভালো কোনকিছু হয়তো আপনি আর পাবেন না। এরপর আপনি আপনার ভাগ্যের দোষ দিতে থাকেন। এই ভুলটা আমরা কমবেশী সকলেই করে থাকি। নিজের মূল্য নিজেরাই কমিয়ে ফেলি। অথচ একটু সাহসী হলেই আমরা হতে পারি অনেক সুখি।

 

৭/ আপনি একা থাকতে ভয় পান

এই সম্পর্কটা থেকে বের হয়ে গেলে আমাকে তো একা থাকতে হবে- এমন চিন্তা মনের মধ্যে ঘুরপাক খেতে থাকে বলে আমরা অনেক সময় মনে করে থাকি যে, যেমন সম্পর্ক আছে তেমনই থাকুক। কিন্তু সত্য কথা হচ্ছে, একটা সম্পর্কে থেকে আপনি যদি খুশি থাকতে না পারেন, তবে সেই সম্পর্ককে ছুটি দিয়ে দিলেই বরং আপনি ভালো থাকবেন। হয়তো কিছু সময়ের জন্য আপনাকে একা থাকতে হবে। তবে সেই সময়টুকুও আপনি উপভোগ করবেন এবং জীবনকে নতুনভাবে দেখতে শিখবেন।

 

৮/ সম্পর্ক ভেঙ্গে যাবে এই ভাবনা আপনাকে লজ্জায় ফেলে দেয়

অনেক সময় শুধুমাত্র একটা দুশ্চিন্তার কারণেই আপনি চাইলেও সম্পর্ক থেকে বের হয়ে আসতে পারেন না। আপনার পরিচিতজনেরা অথবা বন্ধুবান্ধবরা কী বলবে! কিন্তু একটা ব্যপার আপনাকে মাথায় রাখতে হবে, এই সম্পর্কে থেকে আপনি যদি মনঃকষ্টে থাকেন, তবে যে কারোর কথা চিন্তা করার আগে আপনাকে ভাবতে হবে যে, সবার আগে আপনার ভালো থাকাটাই মূখ্য। তাই কে কী ভাববে সেটা চিন্তা না করে নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নিন।

জীবনে প্রতিটা সম্পর্কই অনেক মূল্যবান। দারুণ প্রতি যত্নের অভাবে সম্পর্ক হয়ে পড়ে নিস্তেজ। একটা ভালোবাসার সম্পর্ক সেক্ষেত্রে আরও অনেক বেশী নাজুক। সকল চেষ্টা শেষেও যখন সেই সম্পর্ক আগের মতোই থেকে যায়, তখন নিজের ভালো থাকার সিদ্ধান্তটি আপনার নিজেকেই নিতে হবে।



  0

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

কিছু সহিংসতা ও অনিয়ম হলেও সামগ্রিকভাবে ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে—সিইসির এই বক্তব্যের সঙ্গে আপনি একমত?