শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ০৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:২৪:১৯

স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে আবাসিক হোটেলে যুগল, অতঃপর...

স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে আবাসিক হোটেলে যুগল, অতঃপর...

দিনাজপুর: স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে আবাসিক হোটেলে ওঠে এক প্রেমিক যুগল। সেখানে রাত্রিযাপন করার সময় পুলিশের অভিযানে আটক হন তারা। আটকের ১৫ ঘণ্টা পর থানায় ৮ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে সম্পন্ন হয়। ঘটনাটি ঘটে দিনাজপুর শহরে।
জানা গেছে, বুধবার বিকাল ৩টায় থানায় বিয়ের কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর পুলিশ ৫৪ ধারায় তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করে। পরে আদালত প্রেমিক যুগলের জামিন মঞ্জুর করেন।
প্রেমিক আল মামুনুর রশিদ সরকার (২৬) ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার ভাদুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা শাহজাহান আলী সরকারের ছেলে। আর প্রেমিকা দুলালী পারভীন ( ২৩) একই উপজেলার টেংরিয়া গ্রামের নাজিম উদ্দিনের মেয়ে।
কোতোয়ালি থানা পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) রুহুল আমিন গণমাধ্যমকে জানান, দিনাজপুরের একটি আবাসিক হোটেলে স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে গত মঙ্গলবার রাতে রাত্রিযাপন করার সময় তাদেরকে আটক করা হয়। আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা একে অপরকে ভালোবাসেন বলে স্বীকার করেন। পরবর্তীতে উভয়পক্ষের অভিভাবকদের অনুমতিক্রমে কোতোয়ালি থানায় ৮ লাখ টাকা দেনমোহর ধার্য করে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করা হয়। পরে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয় ।

এই বিভাগের আরও খবর

  মৃত মেয়ের সঙ্গে মায়ের সাক্ষাতের ভিডিও প্রকাশ, বিশ্বজুড়ে হইচই

  যুগ যুগ ধরে মন্দিরে উলঙ্গ হয়ে জাপানি পুরুষরা যে প্রার্থনা করে!

  ঢাকার ভোটে ভিলেন কে? ফেসবুক, ঘুম, না কোরমা-পোলাও

  পরকীয়া ধরে ফেলায় স্বামীর পুরুষাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী!

  স্ত্রীর মাথা কেটে থানায় গিয়ে জাতীয় সংগীত গাইল স্বামী!

  বিয়ের আসর থেকে পালানো প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

  যে গ্রামের সুন্দরী মেয়েদেরও বিয়ে করতে চায় না কেউ

  আজহারীর কাছে ইসলাম গ্রহণ করা সেই ১১ জনকে ভারতে ফেরত

  যেভাবে করবেন ই-পাসপোর্ট

  দ্বিতীয় স্ত্রী তালাক দিয়ে ফিরলেন স্বামী, দুধে গোসল দিয়ে বরণ করলেন প্রথমজন

  বরগুনায় মোবাইল ফোনে প্রেম, অতঃপর...

আজকের প্রশ্ন

ঢাকার সিটি নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হলে জনগণের রায় প্রতিফলিত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আপনিও কি তাই মনে করেন?