রবিবার, ২৬ জানুয়ারী ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৯, ০১:২৩:২১

পাকিস্তানের ৬২৯ তরুণীকে চীনে বিক্রি

পাকিস্তানের ৬২৯ তরুণীকে চীনে বিক্রি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানি গোয়েন্দাদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, কমপক্ষে ৬২৯ জন পাক তরুণীকে কনে হিসেবে চীনের বিভিন্ন নাগরিকের কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে।

গত ১৮ মাস ধরে চীনে এসব নারীকে পাচার করেছে পাকিস্তানের মানবপাচারকারীরা। গোয়েন্দাদের অভিযোগ, এ বিষয়ে পাক প্রশাসনকে অবগতি করা হলেও তারা আশানুরূপ কোনো ব্যবস্থাই গ্রহণ করেনি। যে কারণে চীনে নারী পাচার রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না।

চলতি বছরের জুনে পাচার হওয়া নারীদের একটি তালিকা তৈরি করে প্রশাসনকে দেয়াও হয়েছিল বলে জানান পাক গোয়েন্দারা।

এ বিষয়ে এক পাক কর্মকর্তা বলেন, প্রশাসন থেকে যথেষ্ট কঠোরতা না দেখানোয় পাচারচক্ররা আরও বিস্তৃত হয়েছে। তাদের অপরাধের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলছে। কারণ এসব পাচারচক্রের সদস্য জানে, বিপদে পড়লেও প্রশাসনের অচলাবস্থার সুযোগে সেখান থেকে বেঁচে যেতে পারবে তারা।

গোয়েন্দাদের একটি নথিতে ৬২৯ পাক নারীর জাতীয় পরিচয়পত্র এবং তাদের চীনা স্বামীদের নাম ও বিয়ের তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে।

২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের এপ্রিলের মধ্যে ওই নারীদের কনে হিসেবে চীনে পাচার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

সীমান্ত দিয়ে পাক তরুণীদের চীনে বিক্রি করে দেয়ার ঘটনা প্রায়ই ঘটে। চলতি বছরের অক্টোবরে মানবপাচারের ঘটনায় ৩১ চীনা নাগরিককে অভিযুক্ত করেছিলেন ফয়সালাবাদের একটি আদালত।

সূত্র: দ্য হিন্দু, টেলিগ্রাফ, বিবিসি

 

এই বিভাগের আরও খবর

  যেভাবে করবেন ই-পাসপোর্ট

  দ্বিতীয় স্ত্রী তালাক দিয়ে ফিরলেন স্বামী, দুধে গোসল দিয়ে বরণ করলেন প্রথমজন

  বরগুনায় মোবাইল ফোনে প্রেম, অতঃপর...

  ধর্ষণের পর স্কুলছাত্রীর সন্তান প্রসব, মেয়েকে নিতে চাচ্ছেন না বাবা-মা!

  যেভাবে ফাঁদে ফেলতেন সুন্দরী তানিয়া

  ‘আল্লাহ যাদের অনেক টাকাপয়সা দেয় শুধু তাদেরই যেন মেয়ে দেয়’

  প্রতি বিয়েতে ৩০ হাজার টাকা দেবে সরকার

  নগ্ন করে নারীসহ ভিডিও বানালেন সংসদ সদস্যের প্রতিনিধি

  ‘বোরকা পরে বাংলাদেশ থেকে এসেছি’ বিজেপি এমপির টুইটে তোলপাড় ভারত

  যে কারণে টাকা দিয়ে গোল্ডেন পাসপোর্ট কিনছেন বিত্তশালীরা

  ৯ রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত অনুমোদন

আজকের প্রশ্ন

ঢাকার সিটি নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হলে জনগণের রায় প্রতিফলিত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আপনিও কি তাই মনে করেন?