বুধবার, ০৮ এপ্রিল ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ০৩ মার্চ, ২০২০, ০৮:০১:৪৬

মাত্র একদিনেই যেভাবে পাবেন ই-পাসপোর্ট

মাত্র একদিনেই যেভাবে পাবেন ই-পাসপোর্ট

ঢাকা: বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট সেবা চালু হয়েছে, অতি জরুরি ফি প্রদান সাপেক্ষে পাসপোর্ট পেতে সময় লাগবে প্রায় একদিন। আর এর মেয়াদকাল হবে পাঁচ ও ১০ বছর। বাংলাদেশে আবেদনকারীদের জন্য ৪৮ পৃষ্ঠার পাঁচ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৩ হাজার ৫০০ টাকা, জরুরি ফি ৫ হাজার ৫০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ৭ হাজার ৫০০ টাকা। আর ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৫ হাজার টাকা, জরুরি ফি ৭ হাজার টাকা ও অতীব জরুরি ফি ৯ হাজার টাকা। অন্যদিকে বাংলাদেশে আবেদনকারীদের জন্য ৬৪ পৃষ্ঠার পাঁচ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৫ হাজার ৫০০ টাকা, জরুরি ফি ৭ হাজার ৫০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ১০ হাজার ৫০০ টাকা। দশ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৭ হাজার টাকা, জরুরি ফি ৯ হাজার টাকা ও অতীব জরুরি ফি ১২ হাজার টাকা।

সাধারণ ফি প্রদান সাপেক্ষে পাসপোর্ট পেতে সময় লাগবে প্রায় ২১ দিন। জরুরি ফি প্রদান সাপেক্ষে পাসপোর্ট পেতে সময় লাগবে প্রায় ৭ দিন। অতিজরুরি ফি প্রদান সাপেক্ষে পাসপোর্ট পেতে সময় লাগবে প্রায় ১ দিন। বিদেশে অবস্থারত বাংলাদেশিদের জন্য পৃথক ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে শ্রমিক ও শিক্ষার্থীদের ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট সাধারণভাবে পেতে ফি দিতে হবে ৩০ মার্কিন ডলার; ১০ বছর মেয়াদি হলে ৫০ মার্কিন ডলার। ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি ১৫০ মার্কিন ডলার ও ১০ বছর মেয়াদি হলে ফি দিতে হবে ১৭৫ মার্কিন ডলার।

৪৮ পৃষ্ঠার জরুরিভাবে ৫ বছর মেয়াদি ৪৫ মার্কিন ডলার ও ১০ বছর মেয়াদি হলে ফি দিতে হবে ৭৫ মার্কিন ডলার। ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট জরুরিভাবে পেতে ফি দিতে হবে ২০০ মার্কিন ডলার। ১০ বছর মেয়াদি হলে ফি দিতে হবে ২২৫ মার্কিন ডলার। বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশি শ্রমিক ও শিক্ষার্থী ছাড়া অন্য সাধারণ আবেদনকারীদের জন্য পৃথক ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। দূতাবাসের মাধ্যমে ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট সাধারণভাবে পেতে ফি দিতে হবে ১০০ মার্কিন ডলার। আর ১০ বছর মেয়াদি হলে ফি দিতে হবে ১২৫ মার্কিন ডলার। ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট সাধারণভাবে পেতে ফি দিতে হবে ১৫০ মার্কিন ডলার। আর ১০ বছর মেয়াদি হলে ফি দিতে হবে ১৭৫ মার্কিন ডলার।

ই-পাসপোর্টের আবেদনপত্র অনলাইনে অথবা পিডিএফ ফরমেট ডাউনলাড করে পূরণ করা যাবে। বাংলাদেশ সরকারের ই-পাসপোর্ট এ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে https://epassport.gov.bd/landing। পাঁচটি ধাপে ফরম পূরণ করে Application summary ও পূরণকৃত Applicaion form-এর pdf ফাইল প্রিন্ট করতে হবে। আপনার পছন্দের তারিখ ও সময় মেইলে জানানো হবে। প্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) এবং অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন সনদপত্র (বিআরসি) সহ বাবা-মা এর জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ব্যাংকে ই-পাসপোর্ট ফির রশিদসহ পুরাতন পাসপোর্ট যদি থাকে সেগুলো নিয়ে যেতে হবে। আবেদনপত্র গ্রহণের সময় হাতের দশ আঙুলের ছাপ, ছবি ও চোখের আইরিশ ফিচার নেয়া হবে। আবেদন করার বিস্তারিত নিয়মাবলি এরইমধ্যে অধিদফতরের ওয়েব সাইটে আপলােড করা হয়েছে।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির নেতারা আইন না বুঝেই মন্তব্য করে আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে আপনি কি একমত?