শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ০৫ জুন, ২০১৮, ১২:৪২:৪১

বিশ্বনাথে বিবাহিত কিশোরীকে নিয়ে তোলপাড়!

বিশ্বনাথে বিবাহিত কিশোরীকে নিয়ে তোলপাড়!

ঢাকা: সিলেটের বিশ্বনাথে সাড়ে ১৫ বছর বয়সী বিবাহিত কিশোরীকে নিয়ে উপজেলা জুড়ে চলছে তোলপাড়। রবিবার উপজেলায় এই বিষয়টি ছিল টক অব দ্য ডে। বিবাহিত ওই কিশোরীকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে তাকে ও তার কথিত স্বামীর বিরুদ্ধে অপহরণ নাটক সাজাতে গিয়ে রফিজ আলী নামে এক ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধ নিজেই ফেসে যাওয়ায় বেরিয়ে এসেছে থলের বিড়াল।

রফিজ উপজেলার দশপাইকা গ্রামের মদরিছ আলীর পুত্র। এ ঘটনায় কিশোরীর পালক পিতার ভাই একই গ্রামের হরুফ আলী বাদী হয়ে তার কথিত স্বামী ও ধর্ষণ চেষ্টাকারী রফিজকে আসামী করে রবিবার রাতেই থানায় মামলা (নং-১) দিয়েছেন।

জানা গেছে, গত ১ জুন অভিযুক্ত দশপাইকা গ্রামের ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধ রফিজ আলী ওই কিশোরীকে ভাতিজি পরিচয় দিয়ে তার কথিত স্বামী একই গ্রামের আফরোজ আলীর বিরুদ্ধে বিশ্বনাথ থানায় জোরপূর্বক অপহরণের অভিযোগ দেন। এর প্রেক্ষিতে রবিবার ওই কিশোরী ও তার কথিত স্বামীকে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। তাদেরকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে বেরিয়ে আসে আসল কাহিনী।

শিশুকালেই মা-বাবা হারানো ওই কিশোরী নিজের গ্রাম দশপাইকার মফজ্জুল আলীর দত্তক কন্যা হিসেবে বেড়ে ওঠে। গত ৮ এপ্রিল সাড়ে ১৫ বছর বয়সী কিশোরীটি প্রেমের টানে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করে পূর্বে দুটি বিয়ে করা একই গ্রামের আফরোজ আলীকে। বিয়ের পর থেকেই তাদের পথের কাঁটা হয়ে দাড়ান রফিজ আলী। তিনি বাল্যবিয়ের ভয় দেখিয়ে আফরোজ আলীর কাছে চাঁদা দাবি করেন।

একই সুযোগে একাধিকবার ধর্ষণের চেষ্টা করেন ওই কিশোরীকে। এসব কাজে ব্যর্থ হয়েই রফিজ আলী তাকে ভাতিজি পরিচয় দিয়ে তার কথিত স্বামী আফরোজ আলীর বিরুদ্ধে গত ১জুন জোরপূর্বক অপহরণের অভিযোগ দেন থানায়। অভিযোগের প্রেক্ষিতে কিশোরী ও তার কথিত স্বামীকে থানায় নিয়ে আসার পর রাতেই অভিযোগকারী রফিজ আলী ও আফরোজ আলীকে আসামী করে মামলা দেন কিশোরীর পালক পিতার ভাই দশপাইকা গ্রামের হরুফ আলী।

মামলার এজাহারে তিনি উল্লেখ করেন, একাধিক বিয়ে করা আফরোজ আলী ওই কিশোরীকে

বিয়ে করতে চাইলে তারা তাতে রাজী হননি। কিন্তু সে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ৮ এপ্রিল তাকে অপহরণ করে। এরপর থেকে আফরোজ কিশোরীটিকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ধর্ষণ করে আসছে।

ওই কিশোরী সাংবাদিকদের জানায়, সে প্রেমের টানেই পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেছে আফরোজ আলীকে। তাদের সুখের সংসার চলছিল। কিন্তু বৃদ্ধ লম্পট তার স্বামীকে বাল্য বিয়ের ভয় দেখিয়ে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়ার পরও আরও চাঁদা দাবি করছিল। পাশাপাশি তাকে ধর্ষণেরও চেষ্টা করেছে। এসব কাজে ব্যর্থ হয়েই সে চাচা সেজে অপরহরণের অভিযোগ দিয়েছে থানায়।

থানার ওসি শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, এ ব্যাপারে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?