সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ,২০১৭

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৭, ০৭:৩৭:১৮

ছাত্রদলের অচলাবস্থা কাটছেই না

ছাত্রদলের অচলাবস্থা কাটছেই না

ঢাকা: বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বিএনপির 'ভ্যানগার্ড' খ্যাত ছাত্রদল অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন নাজুক।

নেতাকর্মীদের ধারণা, 'নেতৃত্ব' আর 'দলের চেইন অব কমান্ড' ভেঙ্গে পড়ায় সংগঠনটির এখন বেহাল দশা। এর পাশাপাশি মেয়াদ শেষ হওয়া সত্ত্বেও নতুন কমিটি না দেয়ায় দল ও নেতাকর্মীদের মধ্যে দিন দিন দ্বন্দ্ব বেড়েই চলছে। যার ফলে দেখা দিয়েছে হতাশা।

জানা গেছে, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরলে ভবিষ্যৎ সঙ্কট মোকাবেলা ও আগামী আন্দোলন-সংগ্রামকে সামনে রেখে সিনিয়র-জুনিয়রদের সমন্বয়েই নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হবে।

দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম নেই বললেই চলে। যার ফলে কলেজছাত্রী তনু হত্যা, খাদিজার ওপর হামলা, এছাড়া ছাত্রদের বিভিন্ন অধিকার আদায়ে কোনো ধরনের কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামতে পারেনি ছাত্রদল। তাই সঠিক নেতৃত্বের অভাবে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের অস্তিত্ব আজ হুমকির মুখে পড়েছে। বর্তমান কমিটির নেতৃত্ব এতোটাই ব্যর্থ যেখানে সভা করতে পারা তো দূরের কথা এই কমিটির মেয়াদ শেষ হলেও এখন পর্যন্ত তাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা ও রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুলের শ্রদ্ধাঞ্জলি পর্যন্ত জানাতে পারেনি তারা।

যার ফলে দলের শীর্ষ দুই নেতা রাজীব আহসান (সভাপতি) ও মো. আকরামুল হাসানের (সাধারণ সম্পাদক) বিরুদ্ধে প্রায় দুই শতাধিক ছাত্র দলের নেতারা নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে একত্রিত হয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির প্রতি অনাস্থা জানিয়ে নতুন কমিটি গঠনের দাবিও জানিয়েছেন।

জানা গেছে এর আগে, একই দাবিতে দলীয় কার্যালয়ের নিচে অনশন কর্মসূচি পালন করে তারা। এমনকি এই দাবিতে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা লাগানোর মতো ঘটনাও ঘটেছে।
কর্মসূচি পালন নয়, সংগঠনটি এখন বিবৃতি নির্ভর হয়ে পড়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে সংগঠনের একাধিক নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ছাত্রদলের সাবেক নেতারা যারা এখন দেশে এবং যারা বিদেশে অবস্থান করছেন তারা পকেট কমিটি গঠনের মধ্যেদিয়ে নিজেদের আধিপত্য ধরে রাখতে গড়ে তুলেছে সিন্ডিকেট।

কেউ নতুন কমিটির ব্যাপারে কিছু জানে না। বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে আংশিক কমিটি ঘোষণার পর পূর্ণাঙ্গ করার পূর্বেই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। জেলা, উপজেলা ও কলেজ কমিটিগুলোর গড় বয়স প্রায় ১ যুগ পাড় হয়ে গেছে। অথচ এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে নেই তেমন কোনো আগ্রহ। ফলে এই সংগঠন এখন প্রায় স্থবির।

এ ব্যাপারে সংগঠনটির সভাপতি রাজীব আহসান জানান, সবাই জানেন এই সংগঠনের বর্তমান কমিটির মেয়াদ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। এখন সংগঠনের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যখন উপযুক্ত সময় মনে করবেন তখনই নতুন কমিটি ঘোষণা করবেন।

কমিটি গঠন করার ক্ষমতা আমার নেই উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, আমরা শুধু এখন আমাদের স্বাভাবিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি।

সংগঠনটি সহ-সভাপতি এজমল হোসেন পাইলট জানান, নতুন কমিটি এখন সময়ের দাবি। এর পাশাপাশি এই কমিটিতে সিনিয়র-জুনিয়রের সমন্বয়ে ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা উচিত।

সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান জানান, জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল একটি বিরাট সংগঠন। তাই এখানে স্বাভাবিকভাবেই অভিজ্ঞ, মেধাবী ও ত্যাগী নেতৃত্ব প্রত্যাশা করি।
তিনি বলেন, এখন যেহেতু এই কমিটির মেয়াদ শেষ এরপর নতুন কমিটি হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

উল্লেখ্য, ছাত্রদলের বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে গত ১৪ অক্টোবর। ২০১৪ সালের ১৪ অক্টোবর রাজীব আহসানকে সভাপতি ও আকরামুল হাসানকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৫৩ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এর ষোল মাস পর ঘোষণা করা হয় ৭৩৬ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি, যেটা বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতির ইতিহাসে সর্ববৃহৎ কমিটি।



আজকের প্রশ্ন

কিছু সহিংসতা ও অনিয়ম হলেও সামগ্রিকভাবে ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে—সিইসির এই বক্তব্যের সঙ্গে আপনি একমত?