বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ০৪ জুলাই, ২০১৮, ১১:২৯:০১

আ. লীগ-বিএনপির মধ্যস্থতায় ভারত?

আ. লীগ-বিএনপির মধ্যস্থতায় ভারত?

ঢাকা: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে অর্থবহ এবং অংশগ্রহণমূলক করতে কাজ করছে ভারত। একাধিক কূটনৈতিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, বিএনপিসহ সকল রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে আনতে ভারতের মধ্যস্থতায় সংলাপ চলছে। যদিও আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি উভয় দলই বলছে, তাদের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। কিন্তু ভারত দুই দলের মধ্যে একটি সমঝোতা সৃষ্টির প্রকাশ্য উদ্যোগ নিয়েছে। কয়েকমাস আগেই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের দল ভারত সফর করে। এরপর প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দুই দফা বৈঠক হয়। এই বৈঠকের পরপরই বিএনপির তিন নেতা ছুটে যান ভারতে। আগামী সপ্তাহে ভারত সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এবং আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির অন্যতম এইচ. টি. ইমাম। তাঁর সফরের পরপরই বিএনপির নেতা আবদুল আউয়াল মিন্টুর ভারত সফরের কথা রয়েছে।

একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের লক্ষ্যে দুই পক্ষকে কাছাকাছি আনতে ভারতের মাধ্যমে সংলাপ চলছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, বর্তমান সরকারকেই রেখে বিএনপির কিছু দাবি দাওয়া মিটিয়ে সবাইকে নির্বাচন দেখতে চায় ভারত। জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার থাকলে বিএনপি কি কি শর্তে নির্বাচনে যেতে রাজি তা জানতে চেয়েছিল ভারত। বিএনপির নেতৃবৃন্দ এক্ষেত্রে ৫টি শর্ত দিয়েছিল। এই শর্তগুলো হলো:

১. বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং তাঁকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া।

২. বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহার এবং নির্বাচনের সুযোগ তৈরি করা।

৩. নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রীদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ বন্ধ করা।

৪. নির্বাচনে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্বাচন কমিশনের আওতায় নিয়ে আসা।

৫. রাষ্ট্রপতির নেতৃত্বে একটি নিরপেক্ষ উপদেষ্টামণ্ডলী নির্বাচনকালীন সময়ে গঠন।

একাধিক সূত্র বলেন, ভারত বিএনপির ৪টি দাবির সঙ্গেই নীতিগত একমত পোষণ করেছে। তবে, বেগম জিয়ার যুক্তির বিষয়টি আদালতের এখতিয়ারাধীন বলে তারা এব্যাপারে আগ্রহী নয়। একটি কূটনৈতিক সূত্র বলছে, ঢাকাস্থ ভারতীয় দূতাবাস আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার কাছে এই দাবিগুলো সম্পর্কে জানাতে চেয়েছে। আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় ও চতুর্থ দাবির ব্যাপারে নীতিগত ভাবে রাজি। তবে এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগও কিছু শর্ত দিয়েছে। আওয়ামী লীগের প্রধান শর্ত হলো, বিএনপিকে জামাত ত্যাগ করতে হবে। জাতির পিতাকে স্বীকার করতে হবে। ১৫ আগস্টে বেগম জিয়ার ভুয়া জন্মদিন বন্ধ করতে হবে। ভারতীয় দূতাবাস এ বিষয় গুলোও বিএনপি নেতাদের কাছে তুলে ধরেছে। বিশেষ করে, ভারতও চায় বিএনপি যেন জামাতের সঙ্গ ত্যাগ করে। তবে এই সমঝোতার মধ্যস্থতার পরিণতি কি হবে তা এখনো নিশ্চিত নয়।

উল্লেখ্য, ২০১৪ নির্বাচনের আগেও জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় আওয়ামী এবং বিএনপির সমঝোতা চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জাতিসংঘের উদ্যোগ ভেঙ্গে যায়।

জানা গেছে, সব দলকে নির্বাচনে আনার ভারতের উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন।বা:ইন

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?