সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ০৫ জুলাই, ২০১৮, ০৯:৩২:২৭

তারেক রহমানের টেবিলে বিএনপির ৩০০ আসনের প্রার্থী তালিকা

তারেক রহমানের টেবিলে বিএনপির ৩০০ আসনের প্রার্থী তালিকা

নানা প্রতিকূল পরিবেশেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে এগোচ্ছে বিএনপি। যে কোনো পরিস্থিতিতেই দলটি নির্বাচনে যেতে চায়। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হাতে ৩০০ আসনে দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকা পৌঁছেছে। কয়েক দফা জরিপ চালিয়ে দলের সম্ভাব্য প্রার্থীও চূড়ান্ত করা হয়। সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠপর্যায়ে অনানুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণাও শুরু করেছেন। দলটি আশা করছে, ভোটের আগেই বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কারামুক্তি লাভ করবেন। কোনো কারণে তিনি মুক্তি না পেলেও সম্ভাব্য সব প্রস্তুতি নিয়ে রাখছে দলটি। হাইকমান্ডের সবুজ সংকেত পাওয়ার পরপরই মাঠে ঝাঁপিয়ে পড়বেন প্রার্থীরা। এরই মধ্যে তারেক রহমানের নির্দেশনায় দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সিনিয়র নেতাদের নিয়ে একাদশ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছেন। তারেক রহমানের টেবিলে যাওয়া দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকা বাংলাদেশ প্রতিদিনের হাতে এসেছে।

তালিকা অনুযায়ী—

পঞ্চগড়-১ ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার কিংবা তার ছেলে ব্যারিস্টার নওশাদ জমির, পঞ্চগড়-২ বিএনপি নেতা ফরহাদ হোসেন আজাদ। ঠাকুরগাঁও-১ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ঠাকুরগাঁও-২ জোটের পক্ষে জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী ছিলেন। বিএনপি থেকে মির্জা ফখরুলের ছোট ভাই মির্জা ফয়সাল আমিন দলীয় মনোনয়ন প্রার্থী। ঠাকুরগাঁও-৩ জাহিদুর রহমান,       ওবায়দুল্লাহ মাসুদ ও কামাল আনোয়ার আহম্মেদ। দিনাজপুর-১ জামায়াতের প্রার্থী ছিলেন। এবার সেখানে শফিউল আলম প্রধানের মেয়ে ব্যারিস্টার তাসনিয়া প্রধানও প্রার্থী হতে চান।

দিনাজপুর-২ লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বা মঞ্জুরুল ইসলাম, দিনাজপুর-৩ (সদর) বেগম খালেদা জিয়া বা শাহরিয়ার আক্তার হক ডন। দিনাজপুর-৪ আখতারুজ্জামান বা হাফিজুর রহমান সরকার, দিনাজপুর-৫ এম রেজওয়ানুল হক, দিনাজপুর-৬-এ জামায়াত ছিল। এবার বিএনপির অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেনও নির্বাচন করতে পারেন। নীলফামারী-১-এ খালেদা জিয়ার ভাগনে শাহরিন ইসলাম তুহিন বা জোটের শরিক বাংলাদেশ ন্যাপের জেবেল রাহমান গানি, নীলফামারী-২-এ জামায়াতের প্রার্থী ছিলেন। সেখানে বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শামছুজ্জামান সম্ভাব্য প্রার্থী। নীলফামারী-৩-এ জামায়াত ছিল। বিএনপির ফাহমিদ ফয়সল চৌধুরী কমেটও দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থী। নীলফামারী-৪ আমজাদ হোসেন সরকার, কণ্ঠশিল্পী বেবী নাজনীন বা কেন্দ্রীয় নেত্রী বিলকিস ইসলামও দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন।

লালমনিরহাট-১-এ জামায়াত ছিল। সেখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ব্যারিস্টার হাসান রাজীব। লালমনিরহাট-২-এ সালেহউদ্দিন আহমেদ হেলাল ও লালমনিরহাট-৩-এ আসাদুল হাবিব দুলু। রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া) জামায়াত ছিল। আসনটি ফাঁকা রাখা হয়েছে। রংপুর-২ (তারাগঞ্জ-বদরগঞ্জ) জামায়াত ছিল। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অধ্যক্ষ পরিতোষ চক্রবর্তী। রংপুর-৩ মোজাফ্ফর হোসেন, রইচ আহমেদ, মরহুম মশিউর রহমান যাদু মিয়ার মেয়ে রিটা রহমান বা আবদুল কাইয়ুম মণ্ডল বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী। রংপুর-৪ রহিমউদ্দিন ভরসার ছেলে এমদাদুল হক ভরসা। রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) জামায়াত ছিল, রংপুর-৬ নূর মোহাম্মদ মণ্ডল।

কুড়িগ্রাম-১ সাইফুর রহমান রানা, কুড়িগ্রাম-২ অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, কুড়িগ্রাম-৩ তানভিরুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম-৪-এ জামায়াত ছিল। গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) জামায়াত ছিল। গাইবান্ধা-২ শফিকুর রহমান ও আনিসুজ্জামান খান বাবু। গাইবান্ধা-৩-এ জামায়াত ছিল। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ডা. মইনুল হাসান সাদিক। গাইবান্ধা-৪-এ জামায়াত ছিল। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম ও কাজী জেসিন। গাইবান্ধা-৫ হাছান আলী ও মোহাম্মদ আলী, জয়পুরহাট-১ ফয়সাল আলীম ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান। জয়পুরহাট-২ ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোস্তফা এবং এ এইচ এম ওবায়দুর রহমান চন্দন।

বগুড়া-১ মো. শোকরানা। বগুড়া-২ বৃহত্তর জোট হলে নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না। এ ছাড়া বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় এ কে এম হাফিজুর রহমান ও উপজেলা চেয়ারম্যান মীর শাহ আলম। বগুড়া-৩ আবদুল মোমিন তালুকদার খোকা ও আবদুল মুহিত তালুকদার, বগুড়া-৪ জেড আই এম মোস্তফা আলী ও ডা. জিয়াউল হক মোল্লা। বগুড়া-৫ জানে আলম খোকা ও জি এম সিরাজ। বগুড়া-৬ বেগম খালেদা জিয়া। বগুড়া-৭ বেগম খালেদা জিয়া বা তারেক রহমান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ শাহীন শওকত ও মো. শাহজাহান মিয়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আমিনুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ হারুনুর রশিদ, নওগাঁ-১ ডা. সালেক চৌধুরী, নওগাঁ-২ সামছুজ্জোহা খান ও খাজা নাজীমউল্লাহ চৌধুরী, নওগাঁ-৩ প্রয়াত আখতার হামিদ সিদ্দিকীর ছেলে পারভেজ আরেফিন সিদ্দিকী, নওগাঁ-৪ (মান্দা) শামছুল আলম প্রামাণিক বা আবদুল মতিন, নওগাঁ-৫ (সদর) কর্নেল (অব.) আবদুল লতিফ খান, নওগাঁ-৬ সাবেক প্রতিমন্ত্রী আলমগীর কবির, আনোয়ার হোসেন ও মামুন চৌধুরী স্টালিন, রাজশাহী-১ ব্যারিস্টার আমিনুল হক, রাজশাহী-২ মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী-৩ কবীর হোসেন ও মতিউর রহমান মন্টু, রাজশাহী-৪ সাবেক এমপি আবু হেনা এবং এম এ গফুর, রাজশাহী-৫ নাদিম মোস্তফা, সিরাজুল হক, নজরুল ইসলাম ও মাহমুদা হাবিবা, রাজশাহী-৬ আবু সাঈদ চাঁদ ও দেবাশীষ রায় মধু।

নাটোর-১ প্রয়াত ফজলুর রহমান পটলের স্ত্রী কামরুন্নাহার শিরিন, তাইফুল ইসলাম টিপু ও অ্যাডভোকেট আসিয়া আশরাফি পাপিয়া, নাটোর-২ অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, নাটোর-৩ কাজী গোলাম মোর্শেদ, নিহত উপজেলা চেয়ারম্যান বাবুর স্ত্রী মহুয়া নূর কচি ও জন গোমেজ, নাটোর-৪ অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, মোজাম্মেল হক ও সাবেক সচিব আবদুর রশীদ সরকার, সিরাজগঞ্জ-১ আবদুল মজিদ ও কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপা, সিরাজগঞ্জ-২ ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বা রোমানা ইকবাল মাহমুদ, সিরাজগঞ্জ-৩ আবদুল মান্নান তালুকদার ও সাইফুল ইসলাম শিশির, সিরাজগঞ্জ-৪ আকবর আলী। জামায়াতের মাওলানা রফিকুল ইসলাম খানও এ আসনে প্রার্থী হতে পারেন। সিরাজগঞ্জ-৫ আমিরুল ইসলাম খান আলিম ও রফিকুল করিম খান পাপ্পু, সিরাজগঞ্জ-৬ প্রয়াত ডা. আবদুল মতিনের ছেলে ডা. এম এ মুহিত, গোলাম সারোয়ার ও কামরুদ্দিন ইয়াহিয়া খান মজলিস।

পাবনা-১ জামায়াত ছিল। সেখানে মতিউর রহমান নিজামীর ছেলে নির্বাচন করতে পারেন। এ ছাড়া বিএনপি থেকে ছাত্রদলের সাবেক নেত্রী ও মেজর (অব.) মঞ্জুর কাদেরও প্রার্থী। পাবনা-২ সেলিম রেজা হাবিব ও কৃষিবিদ হাসান জাফরি তুহিন বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী। এ ছাড়া জোটের শরিক দল এনডিপির গোলাম মর্তুজার নামও শোনা যাচ্ছে। পাবনা-৩ এ কে এম আনোয়ার ইসলাম, সাইফুল আজম সুজা ও বিমানবাহিনীর সাবেক প্রধান ফখরুল আজম বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী। পাবনা-৪ হাবিবুর রহমান হাবিব, আকরাম আলী খান সঞ্জু, পাবনা-৫ অ্যাডভোকেট শামছুর রহমান শিমুল বিশ্বাস ও পৌরসভার মেয়র কামরুল হাসান মিন্টু। এখানে জামায়াতের প্রার্থীও ছিলেন।

মেহেরপুর-১ মাসুদ অরুণ, মেহেরপুর-২ আমজাদ হোসেন। কুষ্টিয়া-১ রেজা আহমেদ বাচ্চু মোল্লা, আলতাফ হোসেন। কুষ্টিয়া-২ অধ্যাপক শহীদুল ইসলাম। এ ছাড়া জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) আহসান হাবিব লিংকন বা ব্যারিস্টার রাগীব রব চৌধুরীও নির্বাচন করতে পারেন। কুষ্টিয়া-৩ অধ্যক্ষ সোহরাব হোসেন, কুষ্টিয়া-৪ মেহেদী আহমেদ রুমী। চুয়াডাঙ্গা-১ শামছুজ্জামান দুদু। চুয়াডাঙ্গা-২ মাহমুদ হাসান বাবু। ঝিনাইদহ-১ আবদুল ওয়াহাব, অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান ও জয়ন্ত কুমার কুণ্ডু, ঝিনাইদহ-২ মশিউর রহমান, ঝিনাইদহ-৩ কণ্ঠশিল্পী মনির খান, আমিরুজ্জামান খান শিমুল ও মেহেদী হাসান রনি, ঝিনাইদহ-৪ শহিদুজ্জামান বেল্টু ও সাইফুল ইসলাম ফিরোজ। যশোর-১ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী মফিদুল হাসান তৃপ্তি ও মহসীন কবির। যশোর-২ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী মিজানুর রহমান খান ও সাবিরা নাজমুল মুন্নী। যশোর-৩ তরিকুল ইসলাম বা তার ছেলে অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। যশোর-৪ ইঞ্জিনিয়ার টি এস আইয়ুব, যশোর-৫ ইসলামী ঐক্যজোটের মুফতি মো. ওয়াক্কাস বা উপজেলা বিএনপি সভাপতি শহীদ মো. ইকবাল। যশোর-৬ আবুল হোসেন আজাদ ও অমলেন্দু দাস অপু। মাগুরা-১ আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান। তিনি  না করলে বিএনপির কবির মুরাদ, মনোয়ার হোসেন খান ও নেওয়াজ হালিমা আরলী। মাগুরা-২ অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী ও কাজী সলিমুল হক কামাল। নড়াইল-১ বিশ্বাস জাহাঙ্গির আলম। নড়াইল-২ মনিরুল ইসলাম ও শরীফ খসরুজ্জামান। জোটের শরিক দল এনপিপির ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদও প্রার্থী।

বাগেরহাট-১ শেখ ওয়াহিদুজ্জামান দীপু, শেখ মুজিবুর রহমান ও শেখ রবিউল আলম। বাগেরহাট-২ মনিরুল ইসলাম খান ও এম এ সালাম। বাগেরহাট-৩ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম ও শেখ ফরিদুল ইসলাম। বাগেরহাট-৪ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ড. এ বি এম ওবায়দুল হক। খুলনা-১ আমির এজাজ খান, খুলনা-২ নজরুল ইসলাম মঞ্জু, খুলনা-৩ রকিবুল ইসলাম বকুল, কাজী শাহ সেকান্দার আলী, আরিফুর রহমান মিঠু, খুলনা-৪ আজিজুল বারী হেলাল ও শাহ শরীফ কামাল তাজ। খুলনা-৫ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ড. মামুন হোসেন। খুলনা-৬ জামায়াত ছিল। এখানে জেলা বিএনপির সভাপতি শফিকুল ইসলাম মনা ও রফিকুল ইসলাম রফিক। সাতক্ষীরা-১ হাবিবুল ইসলাম হাবিব, সাতক্ষীরা-২ জামায়াত ছিল। সাতক্ষীরা-৩ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ডা. শহীদুল ইসলাম, সাতক্ষীরা-৪ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী কাজী আলাউদ্দিন ও জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) গোলাম রেজা।

বরগুনা-১ মতিউর রহমান তালুকদার, ফিরোজ আহমেদ ও মাহবুবুল হক ফারুক মোল্লা, বরগুনা-২ অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন ও নূরুল ইসলাম মনি। পটুয়াখালী-১ এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী। পটুয়াখালী-২ এ কে এম ফারুক আহমেদ তালুকদার, শহিদুল আলম তালুকদার, পটুয়াখালী-৩ মো. শাহজাহান খান, হাসান মামুন, পটুয়াখালী-৪ এ বি এম মোশাররফ হোসেন, আতিকুর রহমান আতিক, ভোলা-১ বিজেপির আন্দালীব রহমান পার্থ, ভোলা-২ হাফিজ ইব্রাহিম, ভোলা-৩ মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, ভোলা-৪ নাজিমউদ্দিন আলম ও নূরুল ইসলাম নয়ন, বরিশাল-১ জহিরউদ্দিন স্বপন, আকন্দ কুদ্দুসুর রহমান, আবদুস সোবাহান ও অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম সজল, বরিশাল-২ সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও সরদার শরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু, ইলিয়াস খান ও রওনাকুল আলম টিপু, বরিশাল-৩ বেগম সেলিমা রহমান ও অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন, বরিশাল-৪ রাজীব আহসান, মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ ও শাহ আবুল হোসাইন, বরিশাল-৫ মজিবুর রহমান সারোয়ার, বরিশাল-৬ আবুল হোসেন খান, ঝালকাঠি-১ ব্যারিস্টার শাজাহান ওমর বীরোত্তম, ঝালকাঠি-২ ইসরাত জাহান ইলেন ভুট্টো, মাহবুবুল হক নান্নু, জেবা খান, পিরোজপুর-১ জামায়াতের দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে মাসুদ সাঈদী, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার ও লেবার পার্টির ডা. মুস্তাফিজুর রহমান ইরান, পিরোজপুর-২ নূরুল ইসলাম মঞ্জুর ছেলে আহমেদ সোহেল মঞ্জুর সুমন, পিরোজপুর-৩ শাহজাহান মিয়া ও কর্নেল (অব.) শাহজাহান মিলন, টাঙ্গাইল-১ ফকির মাহবুব আনাম স্বপন, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী, টাঙ্গাইল-২ আবদুস সালাম পিন্টু ও শামছুল আলম তোফা, টাঙ্গাইল-৩ লুত্ফর রহমান খান আজাদ, টাঙ্গাইল-৪ লুত্ফর রহমান মতিন, প্রকৌশলী বাদলুর রহমান ও বেনজির আহমেদ টিটু, টাঙ্গাইল-৫ মেজর জেনারেল (অব.) মাহমুদুল হাসান ও সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, টাঙ্গাইল-৬ অ্যাডভোকেট গৌতম চক্রবর্তী ও নূর মোহাম্মদ খান, টাঙ্গাইল-৭ আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, সাঈদ সোহরাব, টাঙ্গাইল-৮ অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান ও ওবায়দুল হক নাসির। বৃহত্তর জোট হলে প্রার্থী পরিবর্তন হতে পারে। সে ক্ষেত্রে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী জোটের প্রার্থী হতে পারেন।

জামালপুর-১ রশিদুজ্জামান মিল্লাত, এম এ কাইয়ুম ও শাহিদা আক্তার রিতা, জামালপুর-২ সুলতান মাহমুদ বাবু, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আবদুল হালিম, জামালপুর-৩ মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল ও গোলাম রব্বানী, জামালপুর-৪ ফরিদুল কবির তালুকদার (শামীম তালুকদার) ও বেলজিয়াম প্রবাসী ব্যবসায়ী রুহুল আমিন সেলিম, জামালপুর-৫ নিলুফার চৌধুরী মনি, ওয়ারেছ আলী মামুন ও সিরাজুল হক। এ ছাড়া জামালপুরের যে কোনো একটি আসনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান নির্বাচন করতে পারেন। শেরপুর-১ জামায়াত ছিল। এখানে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী হজরত আলী। শেরপুর-২ সাবেক হুইপ প্রয়াত জাহেদ আলী চৌধুরীর ছেলে ফাহিম চৌধুরী ও ব্যারিস্টার হায়দার আলী। শেরপুর-৩ মাহমুদুল হক রুবেল।

ময়মনসিংহ-১ সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স ও আফজাল এইচ খান, ময়মনসিংহ-২ শাহ শহীদ সরোয়ার ও মোতাহার হোসেন, ময়মনসিংহ-৩ এম ইকবাল হোসাইন, তৈমুর রহমান হিরন, ফয়সাল আমিন খান পাঠান, ময়মনসিংহ-৪ অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, দেলোয়ার হোসেন খান দুলু ও ওয়াহাব আকন্দ, ময়মনসিংহ-৫ এ কে এম মোশাররফ হোসেন বা তার ভাই জাকির হোসেন বাবলু, ময়মনসিংহ-৬ শামছউদ্দিন আহমেদ ও আখতারুল আলম ফারুক, ময়মনসিংহ-৭ মাহবুবুর রহমান লিটন, ময়মনসিংহ-৮ শাহ নূরুল কবির শাহীন এবং জোটের শরিক ডেমোক্রেটিক লীগের সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, ময়মনসিংহ-৯ খুররম খান চৌধুরী, ময়মনসিংহ-১০ প্রয়াত ফজলুর রহমান সুলতানের ছেলে মুশফিকুর রহমান, আখতারুজ্জামান বাচ্চু ও এবি সিদ্দিকুর রহমান, ময়মনসিংহ-১১ এ মো. ফখরউদ্দিন আহমেদ বাচ্চু ও মোর্শেদ আলম।

নেত্রকোনা-১ ব্যারিস্টার কায়সার কামাল ও সাবেক হুইপ অ্যাডভোকেট আবদুল করিম আব্বাসী, নেত্রকোনা-২ আশরাফউদ্দিন, আবদুল বারী ড্যানী, ডা. আনোয়ার হোসেন, নেত্রকোনা-৩ রফিকুল ইসলাম হিলালী, দেলোয়ার হোসেন দুলাল, সৈয়দ আলমগীর, হাসান বিন সোহাগ। নেত্রকোনা-৪ সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুত্ফুজ্জামান বাবরের স্ত্রী তাহমিনা জামান, চৌধুরী আবদুল্লাহ ফারুক ও কর্নেল (অব.) সৈয়দ আতাউল হক। নেত্রকোনা-৫ ভিপি আবু তাহের তালুকদার, ইমরান শহীদুল্লাহ ও প্রয়াত এমপি ডা. মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী রাবেয়া আলী, কিশোরগঞ্জ-১ খালেদ সাইফুল্লাহ সোহেল ও ওয়ালিউল্লাহ রব্বানী, কিশোরগঞ্জ-২ মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান রঞ্জন ও রুহুল আমিন আকিল, কিশোরগঞ্জ-৩ ড. এম ওসমান ফারুক বা তার স্ত্রী, কিশোরগঞ্জ-৪ অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান, কিশোরগঞ্জ-৫ শেখ মুজিবুর রহমান ইকবাল ও ইশতিয়াক আহমেদ নাসির এবং কিশোরগঞ্জ-৬ শরিফুল আলম।

মানিকগঞ্জ-১ এস এম জিন্নাহ কবির বা প্রয়াত বিএনপি মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ছেলে খোন্দকার আখতার হামিদ ডাবলু ও আকবর হোসেন বাবলু, মানিকগঞ্জ-২ মঈনুল ইসলাম খান শান্ত ও সাইফুল হুদা চৌধুরী শাতিল, মানিকগঞ্জ-৩ আফরোজা খানম রিতা। মুন্সীগঞ্জ-১ শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ও মীর শরাফত আলী সপু। বৃহত্তর জোট হলে মাহী বি চৌধুরীও প্রার্থী হতে পারেন। মুন্সীগঞ্জ-২ মিজানুর রহমান সিনহা, মুন্সীগঞ্জ-৩ কামরুজ্জামান রতন ও সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত এম শামছুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম।

ঢাকা-১ আবদুল মান্নান, আবু আশফাক ও ফাহিমা হোসেইন জুবলী। বৃহত্তর জোট হলে পরিবর্তন হতে পারে। ঢাকা-২ আমানউল্লাহ আমান, ঢাকা-৩ গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ঢাকা-৪ ড. আসাদুজ্জামান রিপন, আবদুল হাই, অধ্যক্ষ সেলিম ভূঁইয়া, ঢাকা-৫ সালাহউদ্দিন আহমেদ, ঢাকা-৬ সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন, কাজী আবুল বাশার, হাজী লিটন, ঢাকা-৭ নাসিমা আক্তার কল্পনা, মীর নেওয়াজ আলী, ঢাকা-৮ হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, ঢাকা-৯ মির্জা আব্বাস, ঢাকা-১০ এম এ কাইয়ুম, ঢাকা-১১ সাইফুল আলম নিরব ও মো. শাহাবউদ্দিন, ঢাকা-১২ ব্যারিস্টার নাসিরউদ্দিন অসীম, শেখ রবিউল আলম ও ডা. আজিজুল হক, ঢাকা-১৩ আবদুস সালাম ও সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ঢাকা-১৪ এস এ খালেক বা তার ছেলে এ বি সিদ্দিকী সাজু, বজলুল বাসিত আঞ্জু, ঢাকা-১৫ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বিএনপির বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন ও মামুন হাসান, ঢাকা-১৬ ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ও আমিনুল ইসলাম, ঢাকা-১৭ মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী ও ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, ঢাকা-১৮ মেজর (অব.) কামরুল ইসলাম, এস এম জাহাঙ্গীর ও বাহাউদ্দিন সাদী, ঢাকা-১৯ ডা. দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন ও মেজর (অব.) মিজানুর রহমান মিজান, ঢাকা-২০ ব্যারিস্টার জিয়াউর রহমান, সুলতানা আহমেদ ও ইয়াসিন ফেরদৌস মুরাদ।

গাজীপুর-১ মজিবুর রহমান, হুমায়ুন কবির ও কাজী সাইদুল আলম বাবুল, গাজীপুর-২ হাসান উদ্দিন সরকার, অধ্যাপক এম এ মান্নান বা তার ছেলে মঞ্জুরুল করিম রনি, গাজীপুর-৩ অধ্যাপক এম এ মান্নান বা তার ছেলে মঞ্জুরুল করিম রনি ও ডা. এস এম রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, গাজীপুর-৪ সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আসম হান্নান শাহর ছেলে রিয়াজুল হান্নান, গাজীপুর-৫ এ কে এম ফজলুল হক মিলন, নরসিংদী-১ খায়রুল কবির খোকন, নরসিংদী-২ ড. আবদুল মঈন খান, নরসিংদী-৩ অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, আকরামুল হাসান ও প্রয়াত সাবেক মহাসচিব আবদুল মান্নান ভূঁইয়ার ছেলে নন্দিত নাহিয়ান সজল, নরসিংদী-৪ সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল, আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল

ও কর্নেল (অব.) জয়নুল আবেদীন, নরসিংদী-৫ জামাল আহমেদ চৌধুরী, নারায়ণগঞ্জ-১ কাজী মনিরুজ্জামান, অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও মোস্তাফিজুর রহমান দীপু ভূঁইয়া, নারায়ণগঞ্জ-২ শিরিন সুলতানা, নজরুল ইসলাম আজাদ, আতাউর রহমান খান আঙ্গুর ও বদরুজ্জামান খসরু, নারায়ণগঞ্জ-৩ রেজাউল করিম ও আজহারুল ইসলাম মান্নান, নারায়ণগঞ্জ-৪ শাহ আলম, মোহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ-৫ আবুল কালাম, সাখাওয়াত হোসেন খান ও জোটের শরিক সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাঈদ আহমেদ। রাজবাড়ী-১ আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়াম ও অ্যাডভোকেট আসলাম মিয়া, রাজবাড়ী-২ নাসিরুল হক সাবু, হারুন অন রশীদ। ফরিদপুর-১ শাহ আবু জাফর ও নাসিরুল ইসলাম, ফরিদপুর-২ শামা ওবায়েদ ইসলাম রিংকু, ফরিদপুর-৩ চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ ও মাহবুব হাসান ভূঁইয়া পিংকু, ফরিদপুর-৪ শাহজাদা মিয়া। গোপালগঞ্জ-১ সেলিমুজ্জামান সেলিম, গোপালগঞ্জ-২ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, এম এইচ খান মঞ্জু ও শেখ সাইফুর রহমান নান্টু, গোপালগঞ্জ-৩ এস এম জিলানী। মাদারীপুর-১ ইয়াজ্জেম হোসেন রোমন, খলিলুর রহমান চৌধুরী, মাদারীপুর-২ হেলেন জেরিন খান, মাদারীপুর-৩ মাশুকুর রহমান মাশুক ও আনিসুজ্জামান তালুকদার খোকন। শরীয়তপুর-১ শহিদুল হক শিকদার ও তাহমিনা আওরঙ্গ, শরীয়তপুর-২ সুলতান মাহমুদ, শফিকুর রহমান ও ডি এম গিয়াসউদ্দিন আহমদ, শরীয়তপুর-৩ তাহমিনা আওরঙ্গ, শফিকুর রহমান কিরণ, সুনামগঞ্জ-১ নজির হোসেন, ডা. রফিক আহমেদ চৌধুরী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুল হক ও উমর ফারুক আল হাদী, সুনামগঞ্জ-২ মো. নাসির উদ্দিন চৌধুরী, সুনামগঞ্জ-৩ নুরুল ইসলাম সাজু, কয়সর আহমেদ, সুনামগঞ্জ-৪ ফজলুল হক আসপিয়া ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জাকিরন, সুনামগঞ্জ-৫ কলিম উদ্দিন আহমেদ মিলন, উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী ও মাওলানা শফিউদ্দিন আহমেদ, সিলেট-১ তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান বা সাবেক এমপি খন্দকার আবদুল মালেকের ছেলে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার আবদুল মোক্তাদির, সিলেট-২ নিখোঁজ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলীর সহধর্মিণী তাহমিনা রুশদী লুনা, সিলেট-৩ শফি আহমেদ চৌধুরী, ব্যারিস্টার এম এ সালাম, কাইয়ুম চৌধরী ও এম এ মালেক, সিলেট-৪ শামছুজ্জামান জামান ও দিলদার হোসেন সেলিম, সিলেট-৫ জামায়াত ছিল। এ ছাড়া বিএনপির আশিক আহমেদ চৌধুরী, মামুনুর রশিদ ও জাকির আহমেদ সম্ভাব্য প্রার্থী। সিলেট-৬ ইনাম আহমেদ চৌধুরী,  ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী ও জাসাসের হেলাল খান, মৌলভীবাজার-১ এবাদুর রহমান চৌধুরী, মৌলভীবাজার-২ নওয়াব আলী আব্বাস খান, অ্যাডভোকেট আবেদ রাজা ও এম এম শাহীন। মৌলভীবাজার-৩ নাসের রহমান ও দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহীদুর রহমান। মৌলভীবাজার-৪ মজিবুর রহমান চৌধুরী।

হবিগঞ্জ-১ শেখ সুজাত মিয়া, শাম্মী আখতার, দেওয়ান মুকাদ্দিম চৌধুরী নিয়াজ ও শাহ মোজাম্মেল নান্টু, হবিগঞ্জ-২ ডা. এম সাখাওয়াত হোসেন জীবন, আহমদ আলী মুকিব, হবিগঞ্জ-৩ পৌর মেয়র জি কে গউছ, হবিগঞ্জ-৪ সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়সাল ও অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম। এ ছাড়া খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমেদ আবদুল কাদেরও জোটের প্রার্থী হতে পারেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ এস এ কে একরামুজ্জামান সুখন ও নসরুল্লাহ খান জুনায়েদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ উকিল আবদুস সাত্তার, শেখ মোহাম্মদ শামীম ও তরুণ দে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ খালেদ মাহবুব শ্যামল, অ্যাডভোকেট হারুন আল রশিদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ এম মুশফিকুর রহমান ও নাসির উদ্দিন হাজারী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ প্রয়াত সাবেক এমপি কাজী আনোয়ার হোসেনের ছেলে কাজী তাপস ও তকদির হোসেন জসিম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ অ্যাডভোকেট রফিক শিকদার, মো. আবদুল খালেক ও কৃষিবিদ মেহেদী হাসান পলাশ, কুমিল্লা-১ ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বা তার ছেলে ড. খন্দকার মারুফ হোসেন, কুমিল্লা-২ ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বা দলের অন্য কেউ। কুমিল্লা-৩ ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসাইন কায়কোবাদ বা গোলাম কিবরিয়া সরকার, কুমিল্লা-৪ ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মুন্সি ও আবদুল আউয়াল খান, কুমিল্লা-৫ শওকত মাহমুদ, কুমিল্লা-৬ মো. আমিনুর রশিদ ইয়াছিন ও কাউসার জামান বাপ্পী, কুমিল্লা-৭ এলডিপির ড. রেদওয়ান আহমেদ, কুমিল্লা-৮ জাকারিয়া তাহের সুমন, কুমিল্লা-৯ আবুল কালাম (চৈতি কালাম) ও কর্নেল (অব.) এম আনোয়ারুল আজিম, কুমিল্লা-১০ আবদুল গফুর ভূঁইয়া, মনিরুল হক চৌধুরী ও মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া, কুমিল্লা-১১ জামায়াত ছিল। এ ছাড়া এই আসনে প্রয়াত কাজী জাফর আহমদের মেয়ে জয়া কাজী আহমদও জোটগতভাবে নির্বাচন করতে পারেন।

চাঁদপুর-১ সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আ ন ম এহছানুল হক মিলন বা তার স্ত্রী নাজমুন্নাহার বেবী। চাঁদপুর-২ সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত নূরুল হুদার ছেলে তানভির হুদা ও আতাউর রহমান ঢালী।  চাঁদপুর-৩ শেখ ফরিদউদ্দিন আহমেদ মানিক, জি এম ফজলুল হক ও রাশেদা বেগম হীরা, চাঁদপুর-৪ হারুনুর রশিদ, চাঁদপুর-৫ লায়ন ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক  ও  মাস্টার এম এ মতিন, ফেনী-১ বেগম খালেদা জিয়া, ফেনী-২ জয়নাল আবেদীন (ভিপি জয়নাল) ও রেহেনা আক্তার রানু, ফেনী-৩ আবদুল আউয়াল মিন্টু ও আবদুল লতিফ জনি, নোয়াখালী-১ ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন, নোয়াখালী-২ জয়নুল আবদিন ফারুক, নোয়াখালী-৩ বরকতউল্লাহ বুলু বা তার স্ত্রী শামীমা বরকত লাকী, নোয়াখালী-৪ মো. শাহজাহান, নোয়াখালী-৫ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, নোয়াখালী-৬ ফজলুল আজীম ও সাখাওয়াত হোসেন, লক্ষ্মীপুর-১ নাজিম উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক ড. মামুন হোসেন ও ইয়াছিন আলী। এ ছাড়া জোটের শরিক এলডিপির শাহাদাৎ হোসেন সেলিমও প্রার্থী। লক্ষ্মীপুর-২ আবুল খায়ের ভূঁইয়া ও লে. কর্নেল (অব.) আবদুল মজিদ, লক্ষ্মীপুর-৩ শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, লক্ষ্মীপুর-৪ এ বি এম আশরাফউদ্দিন নিজান ও শফিউল বারী বাবু। বৃহত্তর জোট হলে জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবও প্রার্থী হতে পারেন।

চট্টগ্রাম-১ এম এ জিন্নাহ, এম ডি এম কামালউদ্দিন চৌধুরী, লায়ন মনিরুল ইসলাম চৌধুরী ও সাঈদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম-২ কাদের গনি চৌধুরী, ফারহাত কাদের চৌধুরী ও ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৩ আসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৪ মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, এ এস এম ফজলুল হক, প্রয়াত হুইপ ওয়াহিদুল আলমের মেয়ে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা ও জোটের শরিক মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, চট্টগ্রাম-৫ গিয়াস কাদের চৌধুরী ও গোলাম আকবর খন্দকার, চট্টগ্রাম-৬ হুম্মাম কাদের চৌধুরী বা ফারহাত কাদের চৌধুরী ও রোটারিয়ান জসিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৭ এম মোর্শেদ খান, চট্টগ্রাম-৮ ডা. শাহদাৎ হোসেন, চট্টগ্রাম-৯ আবদুল্লাহ আল নোমান, চট্টগ্রাম-১০ আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১১ এনামুল হক এনাম, গাজী মোহাম্মদ শাহজাহান জুয়েল ও ইদ্রিস মিয়া, চট্টগ্রাম-১২ সরওয়ার জামাল নিজাম, চট্টগ্রাম-১৩ এলডিপির কর্নেল (অব.) অলি আহমদ, চট্টগ্রাম-১৪ জামায়াত ছিল। এ ছাড়া  বিএনপির অধ্যাপক ড. সুকোমল বড়ুয়া ও  নাজমুল মোস্তফা আমিন, চট্টগ্রাম-১৫ জাফরুল ইসলাম চৌধুরী ও লিয়াকত আলী, চট্টগ্রাম-১৬ মোস্তফা কামাল পাশা, কক্সবাজার-১ সালাহউদ্দিন আহমেদ বা তার সহধর্মিণী হাসিনা আহমেদ, কক্সবাজার-২ জামায়াত ছিল। এ ছাড়া বিএনপির আলমগীর মাহফুজউল্লাহও প্রার্থী। কক্সবাজার-৩ লুত্ফর রহমান কাজল, কক্সবাজার-৪ শাহজাহান চৌধুরী, খাগড়াছড়িতে আবদুল ওয়াদুদ ভূঁইয়া, রাঙামাটিতে দীপেন দেওয়ান ও কর্নেল (অব.) মনীষ দেওয়ান ও শাহ আলম এবং বান্দরবানে সাচিং প্রু জেরি ও ম্যামা চিং।বাংলাদেশ প্রতিদিন

 

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?