রবিবার, ২১ অক্টোবর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ০৮ অক্টোবর, ২০১৮, ১২:১১:১১

২১ আগস্ট মামলার রায়: তারেকের সাজা হলেও বিএনপি বড় কর্মসূচিতে যাবে না

২১ আগস্ট মামলার রায়:  তারেকের সাজা হলেও বিএনপি বড় কর্মসূচিতে যাবে না

ঢাকা: একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলের নেতাদের সর্বোচ্চ সাজা হলেও কঠোর কর্মসূচিতে যাবে না বিএনপি। বিক্ষিপ্ত কয়েকটি শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছে একাধিক সূত্র।

তারেক রহমানও আজ-কালের মধ্যে ভিডিও বার্তায় নেতাকর্মীদের শান্ত থেকে পরিস্থিতি মোকাবেলা করার বার্তা দিবেন। গত কয়েকদিন ধরে বিএনপি নেতারা কয়েক দফা বৈঠক করে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা জানিয়েছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় সরকারের দাবি নিয়ে মাঠে সোচ্চার রয়েছে বিএনপি। এ নিয়ে হয়ত তাদের সামনে কঠোর আন্দোলনে যেতে হবে। তাই গ্রেনেড হামলা মামলায় তারেক রহমানের সাজা হলেও ইস্যুটিকে সামনে আনতে চাইছে না দল। কারণ, এটিকে সামনে আনা হলে বেগম জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় সরকারের দাবি চাপা পড়ে যাবে।

জানতে চাইলে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিএনপি কখনো অশান্তি, সংঘাত ও বিশৃঙ্খলায় বিশ্বাস করে না। আমরা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের বাইরে যাই না। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে সরকার অন্যায়ভাবে সাজা দিলে জ্যেষ্ঠ নেতারা পরিস্থিতি বিবেচনা করে কর্মসূচি দিবেন।

জানা গেছে, দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের একাধিক বৈঠকে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সময়ে দেওয়া গায়েবি মামলার বিষয়টি উঠে এসেছে। তারা মনে করছেন, তারেক রহমানের সাজাকে কেন্দ্র করে বিএনপি আন্দোলনে যেতে পারে এমন ধারণা থেকে সরকার হয়ত এই মামলাগুলো দায়ের করেছে।

স্থায়ী কমিটির সদস্য নয় কিন্তু নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এক নেতা জানিয়েছেন, তারেক রহমানের সাজাকে কেন্দ্র করে আন্দোলনে গেলে সরকার এর সুবিধা নিতে চাইবে। দেশে-বিদেশে বার্তা দেবে যে, বিএনপি সাজার রায়ের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছে। বিএনপি চায় না, এ ইস্যুতে আন্দোলনে নেমে খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় সরকার ইস্যু ও ঐক্য প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে।

গত কয়েকদিনে দলটির নেতাদের বৈঠকের সূত্র ধরে জেনেছে, বিষয়টি নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও উদ্বেগ কাজ করছে। সবার ধারণা সরকার ‘হীন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে’ তারেক রহমানের সর্বোচ্চ সাজা দেবে। নেতাকর্মীরাও সেভাবে মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন। কিন্তু এ ইস্যুকে কেন্দ্র করে আন্দোলনের বিষয়ে দিগনির্দেশনা না থাকায় তাদের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে। বিভ্রান্তি কাটাতে তারেক রহমান নিজেই নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তার বক্তব্য তুলে ধরবেন।

দলের নেতারা নিশ্চিত করে বলেছেন, বড় কর্মসূচিতে যাচ্ছে না বিএনপি। দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা হওয়ার পরও যেভাবে নেতাকর্মীরা শান্ত থেকেছেন, এবারও তাদের সেই রকম নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে।

দলের নেতারা আরও বলেছেন, বিএনপিকে আন্দোলনে যেতে হবে এবং নির্বাচনেও থাকতে হবে এমন পরিস্থিতি বিবেচনা করে মাঠে নামতে হবে। আবার আন্দোলনে ন্যূনতম দাবি আদায় না করে মাঠ থেকে সরতেও চায় না দলটি।

আজকের প্রশ্ন

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?