বুধবার, ২৩ অক্টোবর ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯, ১১:৪৪:১৩

মাশরাফীদের সেমিফাইনালে যাওয়ার রাস্তা সহজ করে দিলো অস্ট্রেলিয়া

মাশরাফীদের সেমিফাইনালে যাওয়ার রাস্তা সহজ করে দিলো অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক: ২৭ বছরের পুরোনো ইতিহাসের পুনরাবৃত্তিই ঘটেছে। ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপের পর থেকে চলতি বিশ্বকাপ, কোনো বারই ইংল্যান্ড হারাতে পারেনি অস্ট্রেলিয়াকে। আজ মঙ্গলবার লর্ডসে অজিদের বিপক্ষে ৬৪ রানে পরাজয়ের লজ্জা নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা। ইংল্যান্ডের হারে সুবিধা হয়েছে বাংলাদেশের, শেষ চারে যাওয়ার রাস্তা কিছুটা হলেও মসৃণ হয়েছে মাশরাফী-সাকিবদের।

মাঠে নামলেই রান বন্যা বইয়ে দেন ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা। এই বিশ্বকাপেই নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছে দেশটি। তবে হঠাৎ কী যেন হলো! টানা দুই হারের পর টার্গেটে খেলতে নেমে ৩০ রান না করতেই হারিয়ে ফেলে তিন উইকেট। বেন স্টোকস (৮৯) মাঝে ঘুরে দাঁড়ানোর আভাস দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি একা আর কতটুকুই বা টেনে নিয়ে যেতে পারেন! স্টোকস আউট হওয়ার পর তাসের ঘরের মতো ভেঙে যায় স্বাগতিকদের ইনিংসও।

এক বেন স্টোকস ছাড়া ৩০ রানের ঘর পেরোতে পারেননি কোনো ইংলিশ ব্যাটসম্যান। বিব্রতকর ব্যাটিংয়ে এই নিয়ে টানা তিন ম্যাচে হারল ইংল্যান্ড। ২৫ রান করে করেন আদিল রশিদ ও জস বাটলার। এ ছাড়া জনি বেয়ারস্টো ২৭ ও ক্রিস ওকস করেন ২৬ রান।

অজিদের হয়ে সর্বোচ্চ পাঁচ উইকেট নেন বেহরেনডর্ফ। এ ছাড়া মিচেল স্টার্ক নেন চার উইকেট। এ দুজনেই ইংলিশদের গুড়িয়ে দেন।

টস হেরে আগে ব্যাটিং করে অস্ট্রেলিয়াও তেমন বড় কোনো টার্গেট দেয়নি। রান উৎসবের এই বিশ্বকাপে এই টার্গেট সহেজেই তাড়া করার মতো। নির্ধারিত ওভার শেষে অজিদের  ইনিংস থামে ২৮৫ রানে। অথচ শুরুটা দুর্দান্তই ছিল অজিদের। কিন্ত মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় বড় রানের টার্গেট দিতে পারেননি চ্যাম্পিয়নরা।

ফিঞ্চ-ওয়ার্নার দুর্দান্ত সূচনা এনে দেন। অর্ধশক করে ওয়ার্নার (৫৩) আউট হলে ১২৩ রানে ভাঙে ওপেনিং জুটি। তবে ফিঞ্চ তিন অঙ্কের ঘর (১০০) ছোয়ার পরেই সাজঘরে ফেরেন। অজিদের মধ্যে সর্বোচ্চ রান করেন ফিঞ্চই।

মাঝে স্মিথ (৩৮) ও অ্যালেক্স কারের (৩৮) অপরাজিত ইনিংসে ২৮৫ রান তুলতে সক্ষম হয় অস্ট্রেলিয়া। ম্যাক্সওয়েল ও স্টোয়নিস ব্যর্থ ছিলেন ব্যাট হাতে।  ইংলিশদের হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট নেন ক্রিস ওকস। একটি করে উইকেট নেন জোফরা আর্চার,  মার্ক উড,  বেন স্টোকস ও মঈন আলী।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, পুলিশের ওপর নির্বাচন কমিশনের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?