রবিবার, ০১ আগস্ট ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ১৮ জুন, ২০২১, ০১:২৫:২২

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের ৫ হাজার ২৯১ কোটি টাকা

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের ৫ হাজার ২৯১ কোটি টাকা

ঢাকা : আগের বছরের তুলনায় সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে (সুইস ব্যাংক) বাংলাদেশিদের টাকার পরিমাণ ৭ শতাংশ কমলেও ২০২০ সালে এ অর্থের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৬ কোটি ২৯ লাখ ফ্র্যাংক। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৫ হাজার ২৯১ কোটি টাকা (প্রতি সুইস ফ্র্যাংক ৯৪ টাকা হিসাবে)। তবে আগের বছরের চেয়ে এ আমানত ৩৭৬ কোটি টাকা কমেছে। ২০১৯ সালে যা ছিল ৫ হাজার ৬৬৮ কোটি টাকা।

সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) গতকাল বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড-২০২০’ বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখান থেকে বাংলাদেশিদের অর্থ জমার এ তথ্য পাওয়া গেছে। তবে পাচার সম্পর্কে কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায় না। এমনকি আমানত হিসাবে কার কত অর্থ আছে, তা-ও জানা যায়নি।

২০১৭ সালে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ ছিল ৬৬ কোটি ১৯ লাখ সুইস ফ্রাঁ, ২০১৮ সাল শেষে এই অর্থের পরিমাণ কমে হয় ৬২ কোটি সুইস ফ্রাঁ। ২০১৯ সালে দাঁড়ায় ৬০ কোটি ৩০ লাখে। ২০২০ সাল শেষে হলো ৫৬ কোটি ৩০ লাখ সুইস ফ্রাঁ।

তবে ওই প্রতিবেদনে দেখা যায়, বাংলাদেশের মানুষের কমলেও সুইস ব্যাংকে ভারতীয়দের জমা অর্থের পরিমাণ ১৩ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠেছে। ২০২০ সাল শেষে ভারতীয়দের জমা অর্থের পরিমাণ ২৬০ কোটি সুইস ফ্রাঁ, যা ২০১৯ সালে ছিল ৮৯ কোটি ৯০ লাখ। পাকিস্তানের আমানতও বেড়েছে ৭৭ দশমিক ৮ শতাংশ, হয়েছে ৬৪ কোটি সুইস ফ্রাঁ।

সুইজারল্যান্ডের ২৪৩টি ব্যাংকের যে হিসাব দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক দিয়েছে, তাতে একক দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্যের নাগরিকদের জমা অর্থের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি, ৩৭৭ বিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ।

এর পরের অবস্থানে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের জমার পরিমাণ ১৫২ বিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ। তালিকায় এর পরে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ফ্রান্স, হংকং, জার্মানি, সিঙ্গাপুর ও লুক্সেমবুর্গের নাম।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, দেশে বিনিয়োগ না হওয়ায় সুইস ব্যাংকে অনেকেই টাকা রাখছেন। বাংলাদেশের নিয়ম অনুযায়ী যেকোনও ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন অন্তত ৫০০ কোটি টাকা হতে হয়। সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের যে টাকা এখন জমা আছে, তা অন্তত ১০টি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধনের সমান।

বাংলাদেশ থেকে নানাভাবে অবৈধ উপায়ে পাচার হওয়া অর্থ যেমন সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে জমা হয়, তেমনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী বাংলাদেশিরাও দেশটিতে অর্থ জমা রাখেন। তাই সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে থাকা বাংলাদেশিদের মোট অর্থের মধ্যে বৈধ-অবৈধ সব অর্থই রয়েছে। সাধারণত সুইস ব্যাংক অর্থের উৎস গোপন রাখে। এ কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নাগরিকেরা দেশটির বিভিন্ন ব্যাংকে অর্থ জমা রাখেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আজকের প্রশ্ন

পুরো ঢাকায় ‘অঘোষিত কারফিউ’ চলছে। সরকার জনগণকে জিম্মি করে জনগণকে বাদ দিয়ে বিদেশি অতিথিদের নিয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে ব্যস্ত। ফখরুলের এক মন্তব্যের সঙ্গে আপনি কি একমত?