রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ০৩:৩২:৫৫

হেফাজতে মৃত্যু: ক্ষতিপূরণ দিল এসআই জাহিদের পরিবার

হেফাজতে মৃত্যু: ক্ষতিপূরণ দিল এসআই জাহিদের পরিবার

ঢাকা : তুচ্ছ ঘটনায় থানায় নিয়ে জনি নামের এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে করা মামলায় যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি পল্লবী থানার সাবেক উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদের পক্ষে ক্ষতিপূরণের দুই লাখ টাকা জমা দিয়েছে তার পরিবার। এ ক্ষতিপূরণের টাকা মামলার বাদী পাবেন।

আজ বুধবার (১৬ সেপ্টম্বর) এসআই জাহিদের আইনজীবী ফারুক আহম্মেদ মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের অনুমতি নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকে এ টাকা জমা দেন।

আইনজীবী ফারুক আহম্মেদ বলেন, আমরা আদালতের নির্দেশে ক্ষতিপূরণের ২ লাখ টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা দিয়েছি। আমরা এখন যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করবো।

এর আগে ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ মামলায় পল্লবী থানার সাবেক এসআই জাহিদুর রহমান জাহিদসহ তিন পুলিশ সদস্যকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন। এছাড়া মামলার অপর দুই আসামির সাত বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়। নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনের এটি প্রথম রায়।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত অন্য আসামিরা হলেন- পল্লবী থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) রাশেদুল ও এএসআই কামরুজ্জামান মিন্টু। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের পাশাপাশি প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। এছাড়া তিন পুলিশ সদস্যের প্রত্যেককে ১৪ দিনের মধ্যে বাদীকে দুই লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সাত বছর কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- সোর্স সুমন ও রাশেদ। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত।

মামলার আসামিদের মধ্যে এসআই জাহিদুর রহমান জাহিদ ও পুলিশের সোর্স সুমন কারাগারে। একই থানার এএসআই রাশেদুল ইসলাম জামিনে এবং এএসআই কামরুজ্জামান মিন্টু ও পুলিশের সোর্স রাসেল জামিনে নিয়ে পলাতক।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি মিরপুর-১১ নম্বর সেক্টরে স্থানীয় সাদেকের ছেলের গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান চলাকালে পুলিশের সোর্স সুমন মেয়েদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করেন। এ সময় জনি ও তার ভাই সুমনকে চলে যেতে বলেন। সুমন চলে গেলেও পরদিন এসে আবার আগের মতো আচরণ করতে থাকেন। তখন জনি ও তার ভাই তাকে চলে যেতে বললে সুমন পু্লিশকে ফোন করে তাদের ধরে নিয়ে যান। তাদের নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকার লোকজন ধাওয়া দিলে পুলিশ গুলি ছোড়ে।

পরে থানায় নিয়ে জনিকে নির্যাতন করা হয়। একপর্যায়ে জনির অবস্থা খারাপ হলে ন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে অবস্থা আরও খারাপ হওয়ায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এই বিভাগের আরও খবর

  দারিদ্র্য-শোষণমুক্ত বাংলাদেশ হবে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের উপর প্রতিষ্ঠিত

  সময় ৩ ঘণ্টা, করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়েই দৌড়!

  ১৪ বছরের সাজা নিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে নিরুদ্দেশ ইমাম

  বিলে মাছ ধরতে নেমে বজ্রপাতে নিহত ২

  কুড়িগ্রামে ভারি বর্ষণে আবারো বন্যা

  বাংলাদেশে করোনায় আরও ৩৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১১০৬

  কক্সবাজারের ৮ থানায় নতুন ওসি

  শেখ হাসিনা দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  ছাত্রাবাসে তরুণীকে ধর্ষণ : দোষীদের শাস্তির দাবিতে সড়ক অবরোধ

  জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলায় ভাষণের দিনটি ঐতিহাসিক

  এমসি কলেজে স্বামীকে বেঁধে তরুণীকে গণধর্ষণ: ৯ ছাত্রলীগ নেতাকে আসামি করে মামলা

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির নেতারা আইন না বুঝেই মন্তব্য করে আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে আপনি কি একমত?