শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২০, ০৩:০৯:২১

আপনাদের সম্পর্কে ভাঙন ধরেছে নাকি ?

আপনাদের সম্পর্কে ভাঙন ধরেছে নাকি ?

লাইফস্টাইল ডেস্ক : সম্পর্ক যখন মসৃণ গতিতে তরতর করে এগিয়ে চলে তখন কোনও সমস্যাই নেই! মুশকিল হয় তখনই, যখন তাতে দেখা দেয় চড়াই উতরাই! সম্পর্কের নানা ওঠাপড়া, মতান্তর সামলে নিয়ে চলাটা মাঝেমধ্যেই বেশ কঠিন হয়ে দাঁড়ায়, এবং কখনও কখনও অসম্ভব হয়ে ওঠে। সম্পর্ক যদি না টেকার হয়, তা হলে তার কিছু চিহ্ন আগে থেকেই আঁচ করা যায়। তেমনই পাঁচটি চিহ্নের কথা জানিয়ে দিচ্ছি আমরা, এর মধ্যে কোনও একটিকেও আপনাদের জীবনে দেখতে পেলে সচেতন হোন। হয়তো ভেঙে যাওয়ার দিকেই এগোচ্ছে আপনাদের সম্পর্ক।

ওর উপস্থিতিই আপনার কাছে বিরক্তিকর ঠেকছে
স্বামী/প্রেমিকের যে কোনও ছোটখাটো আচরণে বিরক্ত লাগছে, এমনকী ওর উপস্থিতিটাই অসহ্য ঠেকছে? সে ক্ষেত্রে সম্পর্কটা ভাঙনের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেছে। খুব শান্ত মাথায় ভাবুন, ওর প্রতি আপনার এই মনোভাবের কারণ কী। যদি কারণ খুঁজে পান এবং যদি তার কোনও সমাধান থাকে, তা হলে ওঁর সঙ্গে কথা বলুন। হয়তো সব কিছু ঠিক হয়ে যেতে পারে।

স্বামী/প্রেমিক কাছাকাছি না থাকলে স্বস্তি লাগে
ঝগড়া খুব তিক্ত পর্যায়ে পৌঁছোলে কোনও এক পক্ষ একটা দূরত্ব বজায় রাখেন, আর সেটা স্বাভাবিক। কিন্তু এই দূরত্বটাই কি আপনার কাছে স্বস্তিদায়ক বলে মনে হচ্ছে? এবং দীর্ঘ সময় এই দূরত্ব বজায় রেখেও যদি পরিস্থিতির উন্নতি না হয় তা হলে ধরে নিতে পারেন সম্পর্কটা একরকম শেষই হয়ে গেছে।আরো পড়ুন: টসে জিতে আবার ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

আপনাদের শারীরিক সম্পর্ক তলানিতে
শারীরিক সম্পর্ক দু’জন মানুষকে একসঙ্গে বেঁধে রাখে। পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস বাড়িয়ে তোলে, সম্পর্কের বাঁধন গভীর করে। কিন্তু শারীরিক সম্পর্কটাই যদি না থাকে, শারীরিক আকর্ষণ কাজ না করে, তা হলে সম্পর্কের অন্যতম প্রাথমিক ভিত্তিটাই নড়বড়ে হয়ে যায়। আর এমন যদি দিনের পর দিন চলতে থাকে, তা হলে সে সম্পর্কের ভবিষ্যৎ নেই বলেই ধরে নিতে পারেন।

মতাদর্শের তফাৎ
আর্থিক হোক, রাজনৈতিক হোক, দু’জনের মতাদর্শের তফাৎ থাকলে পারস্পরিক সহাবস্থানের জন্য একটা মধ্যপন্থা খুঁজে বের করা দরকার। সেটা না হলে সম্পর্ক ভেঙে যেতে সময় লাগবে না। তাই প্রথম থেকেই চেষ্টা করুন একটা মাঝামাঝি সমাধান আবিষ্কার করার। খোলামেলা কথা বলে তা খুঁজে পাওয়া সম্ভব।

সম্পর্ক বাঁচিয়ে রাখার তাগিদের অভাব
একটা সম্পর্ক ধরে রাখতে হলে দু’পক্ষের তরফ থেকেই কিছু প্রচেষ্টার দরকার হয়। পারস্পরিক আস্থা, বিশ্বাসযোগ্যতাই গড়ে তোলে সম্পর্কের ভিত্তি, আর কোনও একজনের পক্ষে তা ধরে রাখা সম্ভব নয়। সেই জায়গাটায় খামতি থাকলে ভেঙে যেতে পারে আপনাদের সম্পর্ক। তাই সচেতন থাকুন আগে থেকেই!

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির নেতারা আইন না বুঝেই মন্তব্য করে আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে আপনি কি একমত?