বুধবার, ১২ মে ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২১, ১২:৫৫:৪১

বিরল জমজ শিশুর জন্ম দিয়েছেন ব্রিটিশ নারী!

বিরল জমজ শিশুর জন্ম দিয়েছেন ব্রিটিশ নারী!

নিউজ ডেস্ক: ৩ সপ্তাহের ব্যবধানে গর্ভাবস্থাতেই আবারও গর্ভধারণ করে ২টি বিরল জমজ শিশুর জন্ম দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের উইল্টশায়ারের রেবেকা রবার্টস। ভিন্ন সময়ে মায়ের গর্ভে এসেও এই শিশুরা একই দিনে জন্মগ্রহণ করে। তাই চিকিৎসকরা এদের ‘সুপার টুইনস’ হিসেবে উল্লেখ করছেন।

বাথের রয়াল ইউনাইটেড হাসপাতলের স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ডেভিড ওয়াকার বলেন, ‘এটি এত বিরল ঘটনা যে এরকম ঘটনা কতটি ঘটেছে তার প্রকৃত সংখ্যাও অজানা। ডিম্বানু মুক্তিকরণ বন্ধের পরিবর্তে, রেবেকা প্রথমটির ৩ বা ৪ সপ্তাহ পরে আরেকটি ডিম্বানু ছেড়েছেন এবং ডিম্বানুটি অলৌকিকভাবে নিষিক্ত হতে সক্ষম হয়েছে এবং জরায়ুতে প্রতিস্থাপিত হয়েছে।’

ইউরোপিয়ান জার্নাল অব অবসটেট্রিক্স অ্যান্ড গাইনেকোলজির এক প্রতিবেনুযায়ী, ২০০৮ সালে পৃথিবীতে এ ধরণের ‘সুপার টুইনস’ এর ঘটনা ১০ টিরও কম ছিল।

রেবেকা জানান, 'তিনি ও তার সঙ্গী রাইস ওয়েভার অনেক বছর ধরেই সন্তান জন্মদানের চেষ্টা করে আসছিলেন। এজন্য রেবেকা ও রাইস বহুবার চিকিৎসকের কাছেও গিয়েছেন।' চিকিৎসা নিয়ে অবশেষে গর্ভধারণ করতে পারেন রেবেকা। কিন্তু গর্ভাবস্থায় তৃতীয় আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষার সময় চিকিৎসকরা জানান, 'তিনি আবারও গর্ভধারণ করেছেন। এই পরীক্ষার সময় রেবেকা ১২ সপ্তাহের গর্ভবতী ছিলেন।'

তিনি আরও বলেন, ‘এটি আসলেই খুবই অবাক করা ছিল যে একটির জায়গায় ২টি বাচ্চা। তখন তারা আমাকে বলেন ২টি বাচ্চার মধ্যে ৩ সপ্তাহের ব্যবধান রয়েছে যা চিকিৎসকদের বোধগম্য হচ্ছে না। এরা আমার সুপার টুইনস। প্রতিদিন এদের দিকে আমি তাকাই আর ভাবি, আমি ভীষণ ভাগ্যবতী।’

রেবেকার এই গর্ভধারণকে 'সুপারফেটেশন' নামেও অভিহিত করা হয়। এটি এমন এক পরিস্থিতি যখন প্রথম গর্ভধারণের মধ্যেই দ্বিতীয় গর্ভধারণের ঘটনা ঘটে। এটি ঘটে যখন ডিম্বাশয় থেকে দুটি পৃথক সময়ে ডিম্বানু বের হয়।

রেবেকার গর্ভধারণ বেশ চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতি তৈরি করেছিল কারণ চিকিৎসকরা আশঙ্কা করছিলেন, দ্বিতীয় সন্তানটি নাও বাঁচতে পারে। তবে সৌভাগ্যক্রমে গত সেপ্টেম্বরে নোয়াহ ও রোসেলি নামে ২ জমজ শিশুর জন্ম দিয়েছেন তিনি।

আজকের প্রশ্ন

পুরো ঢাকায় ‘অঘোষিত কারফিউ’ চলছে। সরকার জনগণকে জিম্মি করে জনগণকে বাদ দিয়ে বিদেশি অতিথিদের নিয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে ব্যস্ত। ফখরুলের এক মন্তব্যের সঙ্গে আপনি কি একমত?