শুক্রবার, ২৫ জুন ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ১০ মে, ২০২১, ০৩:০৪:২০

গ্রাহকের দীর্ঘ সারি: ব্যাংকে নগদ টাকা তোলার চাপ

গ্রাহকের দীর্ঘ সারি: ব্যাংকে নগদ টাকা তোলার চাপ

ঢাকা: ঈদকে সামনে রেখে রোববার ব্যাংকগুলোয় গ্রাহকের প্রচণ্ড ভিড় লক্ষ করা গেছে। রাজধানীর মতিঝিল, দিলকুশা, দৈনিক বাংলা, পল্টন, গুলশান, মোহাম্মদপুরে বিভিন্ন ব্যাংকের শাখা ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

ঈদের আগে দুদিন ব্যাংক খোলা (মঙ্গল ও বুধবার) থাকবে। তাই এদিন নগদ টাকা তোলার হিড়িক পড়ে। ব্যাংকের অধিকাংশ শাখায় বাইরে ও ভেতরে গ্রাহকের দীর্ঘ সারি ছিল। বেশির ভাগ মানুষকে নগদ টাকা উত্তোলন করতে দেখা গেছে।

গুলশানে প্র্রাইম ব্যাংকের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা এক গ্রাহক জানান, ঈদের আর অল্প কদিন বাকি, নগদ টাকার প্রয়োজন পড়বে। তাই টাকা তুলতে এসেছি।

ব্যাংক কর্মকর্তারা বলেছেন, রোববার নগদ টাকা উত্তোলনের চাপ বেশি ছিল। বেশির ভাগ গ্রাহক টাকা তুলতে এসেছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই তাদের ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে।

সোনালী ব্যাংকের নয়াবাজার শাখা ব্যবস্থাপক (ম্যানেজার) শরিফুল হাসান খান গণমাধ্যমকে বলেন, স্বাভাবিকের তুলনায় লেনদেন প্রায় ৩০ শতাংশ বেড়েছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নগদ টাকা তোলার চাপ। মূলত লোকজন ঈদে বাড়ি যাচ্ছে, সে কারণে নগদ টাকা তোলার চাপ বেড়েছে।

ভিড় থাকলেও ব্যাংকে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও তাপমাত্রা মাপতে থার্মাল স্কেনার ব্যবহার করা হচ্ছে। মাস্ক ছাড়া ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার না করিয়ে কাউকেই ভেতরে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের শাখায় রোববার সকাল থেকেই ক্যাশ ও জমা কাউন্টারের সামনে লম্বা লাইন লক্ষ করা গেছে। লেনদেনের পাশাপাশি সঞ্চয়পত্র বিভিন্ন সেবার বিল জমা দেওয়ার লাইনও ছিল চোখে পড়ার মতো। এদিকে অতিরিক্ত গ্রাহকের চাপে ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টারের কর্মকর্তাদের বেশ চাপ সইতে হয়েছে। সার্ভার সমস্যায় পড়তে হয়েছে। অতিরিক্তি গ্রাহকের চাপে সার্ভার সমস্যায় লেনদেন বিঘ্নিত হয়েছে কয়েকটি ব্যাংকের। মতিঝিল সোনালী ব্যাংকের লোকাল অফিসের জেনারেল ম্যানেজার মো. আব্দুল ওয়াহাব জানান, রোববার সকাল থেকেই গ্রাহকের অনেক ভিড়।

এদিন স্বাভাবিক দিনের চেয়ে তিন থেকে চারগুণ লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে গ্রাহক টাকা উত্তোলন বেশি করেছে। ঈদে লোকজন গ্রামে টাকা পাঠাবে আবার অনেকে কর্মীদের বেতন-বোনাস দেবে। সব মিলিয়ে ঈদ উপলক্ষ্যে ব্যবসায়িক ও নিজস্ব প্রয়োজনে টাকা উত্তোলন করছে।

এছাড়া সঞ্চয়পত্রের মুনাফা তুলছেন। আবার অনেকে ডিপোজিটের অর্থ জমা করছে। বিভিন্ন বিলও জমা দিয়েছে। তিনি জানান, সব মিলিয়ে সকাল থেকে বাড়তি গ্রাহকের চাপ সামলাতে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা হিমশিম খেয়েছেন। তবে নগদ টাকার কোনো সমস্যা নেই। গ্রাহকের চাহিদামতো পরিশোধ করা হচ্ছে বলে জানান এ ব্যাংক কর্মকর্তা।

একটি সরকারি ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টারের সামনে লাইনে দাঁড়ানো তোফায়েল বলেন, ঈদে কর্মীদের বেতন-বোনাস দিতে হবে। তাই টাকা তুলতে এসেছি। কিন্তু অনেক ভিড়। তারপর আবার সার্ভার সমস্যা হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে চলমান কঠোর বিধিনিষেধ (৬ মে থেকে ১৬ মে মধ্যরাত পর্যন্ত) নিয়ে জারি করা প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ব্যাংক সীমিত পরিসরে খোলা থাকছে। সাপ্তাহিক ছুটির দিন ছাড়া প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ব্যাংকের লেনদেন হচ্ছে। লেনদেন-পরবর্তী আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শেষ করার জন্য বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত খোলা থাকছে।

এদিকে এক নির্দেশনায় বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়েছে, ঈদের আগে তৈরি পোশাক শিল্পে কর্মরত শ্রমিক/কর্মচারী/কর্মকর্তাদের বেতন, বোনাস ও অন্যান্য ভাতাদি পরিশোধের সুবিধার্থে এবং রপ্তানি বাণিজ্য অব্যাহত রাখার স্বার্থে ঢাকা মহানগরী, আশুলিয়া, টঙ্গী, গাজীপুর, সাভার, ভালুকা, নারায়ণগঞ্জ ও চট্টগ্রামে অবস্থিত পোশাক শিল্প এলাকার তপশিলি ব্যাংকের সব শাখা ও প্রধান কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট সব বিভাগ আগামী ১০ থেকে ১৩ মে (১৪ মে ২০২১ তারিখে ঈদ হওয়া সাপেক্ষে) খোলা রাখতে হবে।

আজকের প্রশ্ন

পুরো ঢাকায় ‘অঘোষিত কারফিউ’ চলছে। সরকার জনগণকে জিম্মি করে জনগণকে বাদ দিয়ে বিদেশি অতিথিদের নিয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে ব্যস্ত। ফখরুলের এক মন্তব্যের সঙ্গে আপনি কি একমত?