বুধবার, ১২ মে ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২১, ০২:২০:০০

যুক্তরাষ্ট্রে কারফিউ ভেঙে বিক্ষোভ চলছে

যুক্তরাষ্ট্রে কারফিউ ভেঙে বিক্ষোভ চলছে

নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের ব্রুকলিন সেন্টার শহরে গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ যুবক দান্তে রাইট (২০) নিহত হওয়ার প্রতিবাদে নগরীতে তৃতীয় দিনের মতো কারফিউ ভেঙে বিক্ষোভ-সমাবেশ চলছে।

সন্ধ্যা ৬টা থেকে নগরীতে কারফিউ দেওয়া হলেও ১৩ এপ্রিল রাতে বিক্ষোভকারীরা কারফিউ ভেঙে পুলিশকে লক্ষ্য করে ঢিল ছুড়তে থাকে। নগরজুড়ে বিক্ষোভকারীদের হামলায় বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দ্বিতীয় দিনের বিক্ষোভ থেকে ৪০ জনকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে পুলিশ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য কাঁদানে গ্যাসের শেল ও রাবার বুলেট ছুড়তে হয়েছে পুলিশকে।
বিক্ষোভকারীদের প্রতি সংহতি জানিয়ে নিউইয়র্কসহ বড় বড় নগরীগুলোতেও সমাবেশ হচ্ছে। নাগরিক আন্দোলন ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারসহ অন্যান্য উদারনৈতিক সংগঠনের নেতা-কর্মীরা দান্তে রাইটের হত্যার ন্যায়বিচার নিশ্চিতের দাবি জানাচ্ছেন।

এদিকে এ ঘটনায় মিনেসোটার পুলিশ প্রধান টিম গ্যানোন ও পুলিশ কর্মকর্তা কিম পোটার পদত্যাগ করেছেন। নিহত দান্তে রাইটের মা কেটি রাইট সংবাদ সম্মেলন করে পুলিশের গুলিতে নিহত হওয়ার আগে তাঁর ছেলের শেষ কথাবার্তার বিবরণ দিয়েছেন।

দান্তে রাইটের মা কেটি রাইট ১৩ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, পুলিশ থামানোর পর তাঁর ছেলের সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছিল। গাড়ির বিমার কাগজপত্রের তথ্য দেওয়ার জন্য পুলিশ অফিসারকে ফোনে চেয়েছিলেন কেটি রাইট। এর মধ্যেই ফোনে কথা বার্তার একপর্যায়ে ফোনটি বন্ধ হয়ে যায়। কয়েক মিনিট পরেই তিনি ছেলের মৃত্যুর কথা জানেন। কেটি রাইট ঘটনাটিকে দুর্ঘটনা বলে মানতে রাজি নন। ২৬ বছরের একজন অভিজ্ঞ পুলিশ কর্মকর্তা ভুলে ট্যাজারের স্থলে পিস্তল ব্যবহার করেছেন—এ কথা  বিশ্বাসযোগ্য নয় উল্লেখ করে সন্তান হত্যার উপযুক্ত বিচার দাবি করেছেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে দান্তে রাইটের পরিবার, আইনজীবী এবং গত বছর এ রাজ্যে নিহত জর্জ ফ্লয়েডের আত্মীয়স্বজন উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় সময় ১১ এপ্রিল বিকেলে ব্রুকলিন সেন্টার শহরে পুলিশের গুলিতে নিহত হন কৃষ্ণাঙ্গ যুবক দান্তে রাইট (২০)। ব্রুকলিন সেন্টার পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ট্রাফিক আইন অমান্য করার পর দান্তে রাইটকে থামাতে গেলে বিপত্তি বাধে। তাঁর সঙ্গে পুলিশের তর্ক হয়। একপর্যায়ে দান্তে রাইট ঘটনাস্থল ত্যাগ করতে উদ্যত হন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তা বৈদ্যুতিক শক ছুড়ে অজ্ঞান করার যন্ত্র বা ট্যাজার দিয়ে তাঁকে থামাতে উদ্যত হন।

ব্রুকলিন সেন্টার পুলিশের প্রধান টিম গ্যাননের ভাষ্য, পুলিশের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা তাঁর কোমরে থাকা ট্যাজার ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি ভুলক্রমে পিস্তল ব্যবহার করে ফেলেন। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন দান্তে রাইট।

স্বাধীন একটি তদন্ত দল পুরো বিষয়টি তদন্ত করছে।

নিউইয়র্ক পোস্ট জানিয়েছে, দান্তে রাইটকে গুলি করা কর্মকর্তা কিম পোটারের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক অভিযোগ আনা হতে পারে।

কিম পোটার বলেছেন, ভুলবশত ট্যাজারের বদলে তাঁর হাতে পিস্তল চলে আসে। স্বাধীন ও গ্রহণযোগ্য তদন্তের মাধ্যমে এমন সত্যই পাওয়া যাবে বলে তিনি আশাবাদী।

মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস এক বিবৃতিতে বলেছেন, নিহত দান্তে রাইটের জন্য প্রার্থনা এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা যথেষ্ট নয়। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করছি।

আজকের প্রশ্ন

পুরো ঢাকায় ‘অঘোষিত কারফিউ’ চলছে। সরকার জনগণকে জিম্মি করে জনগণকে বাদ দিয়ে বিদেশি অতিথিদের নিয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে ব্যস্ত। ফখরুলের এক মন্তব্যের সঙ্গে আপনি কি একমত?