বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ,২০২১

Bangla Version
  
SHARE

বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০, ১১:৫০:৩৬

ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে আগ্রহী নয় বাংলাদেশ: রয়টার্স

ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে আগ্রহী নয় বাংলাদেশ: রয়টার্স

নিউজ ডেস্ক: ইসরায়েলের সঙ্গে মুসলিম বিশ্বের স্বাভাবিক কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েল। এতে সমর্থন দিচ্ছে তাদের প্রধান মিত্র যুক্তরাষ্ট্র। ইতিমধ্যেই চারটি মুসলিম দেশ ইসরায়েলিদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়েছে।

আগামী জানুয়ারিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতা ছাড়ার আগে আরও দু’টি মুসলিম দেশের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন হবে বলে দাবি করেছেন এক ইসরায়েলি মন্ত্রী। তবে ইসরায়েলের সঙ্গে বাংলাদেশ এধরনের সম্পর্ক গড়তে মোটেও আগ্রহী নয় বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

গত কয়েক মাসে হোয়াইট হাউসের মধ্যস্থতায় ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করেছে চার মুসলিম দেশ- সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, সুদান ও মরক্কো। এখন পঞ্চম দেশের সন্ধানে রয়েছে ওয়াশিংটন-জেরুজালেম। বিশেষ করে এশিয়ার কোনও মুসলিম দেশের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে আগ্রহী হয়ে উঠেছে ইসরায়েল।

আগামী ২০ জানুয়ারি ট্রাম্প ক্ষমতা ছাড়ার আগে পঞ্চম মুসলিম দেশের সঙ্গে সম্পর্ক হবে কি না জানতে চাইলে ইসরায়েলের আঞ্চলিক সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী অফির আকুনিস স্থানীয় একটি টেলিভিশনকে বলেন, ‘আমরা সেই দিকেই কাজ করছি।’

তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি... শান্তিচুক্তির ভিত্তিতে আরেকটি দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে প্রকাশ্যে সম্পর্ক স্বাভাবিক করছে, এ ধরনের একটি মার্কিন ঘোষণা আসবে।’

ইসরায়েলি এ মন্ত্রী জানান, তাদের সঙ্গে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে পরবর্তী দু’টি দেশ বাছাই করা হয়েছে। এসময় সরাসরি দেশ দু’টির নাম উল্লেখ না করলেও তিনি বলেন, এর একটি হবে উপসাগরীয় দেশ, তবে সেটি সৌদি আরব নয়, বরং ওমান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আকুনিস বলেন, ‘আরেকটি হবে আরও পূর্বাঞ্চলীয় দেশ। সেটি এমন কোনও মুসলিম দেশ হবে, যা খুব একটা ছোট নয়। তবে সেই দেশটি পাকিস্তান নয়।’

সম্প্রতি পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশির আরব আমিরাত সফরের পর থেকেই গুঞ্জন ছিল, ইসলামাবাদ গোপনে ইসরায়েলকে কোনও বার্তা পাঠিয়েছে। তবে পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করে স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আমি আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে ইসরায়েলের বিষয়ে পাকিস্তানের অবস্থান উপস্থাপন করেছি। তাকে জানিয়েছি, ফিলিস্তিন ইস্যুর দৃঢ় ও স্থায়ী কোনও সমাধান না হওয়া পর্যন্ত আমরা ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করব না এবং করতে পারিও না।’

যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ার আলোচনায় নাম এসেছে ইন্দোনেশিয়ারও। ইসরায়েলিদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের জন্য তাদের শত কোটি ডলারের লোভও দেখাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে গত সপ্তাহে বিশ্বের বৃহত্তম মুসলিম জনগোষ্ঠীর দেশটি জানিয়েছে, ফিলিস্তিনিদের দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত তারা ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেবে না।

একই নীতি অনুসরণের ইঙ্গিত দিয়েছে এশিয়ার আরেক মুসলিম দেশ মালয়েশিয়া। ওমান যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রশংসা করলেও ইসরায়েলি বন্ধনের বিষয়ে এখনও সরাসরি কোনও মন্তব্য করেনি।

ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তার বরাতে রয়টার্স বলছে, বাংলাদেশেরও ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের আগ্রহ নেই। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের অবস্থান একই রয়েছে।’

রয়টার্সের গত বুধবারের প্রতিবেদনটিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তার নাম প্রকাশ করা হয়নি। তবে গত সেপ্টেম্বরে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বিবিসি বাংলা'কে বলেছিলেন, তাদের সরকার নৈতিকতার জায়গা থেকে ফিলিস্তিনি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের পক্ষে রয়েছে এবং থাকবে। বাংলাদেশের জন্মলগ্ন থেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পরিষ্কারভাবে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বলেছেন, আমরা ফিলিস্তিনি জনগণের পক্ষে রয়েছি। আমরা স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পক্ষে। ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্কবিহীন পথচলা অব্যাহত থাকবে। সূত্র: রয়টার্স

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির নেতারা আইন না বুঝেই মন্তব্য করে আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে আপনি কি একমত?